উত্তপ্ত সংসদে ডিজেলের দাম বিনিয়ন্ত্রণের প্রস্তাব

Last Updated: Tuesday, April 24, 2012 - 15:58

বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয় দফার সূচনা পর্বেই উত্তপ্ত হয়ে উঠল সংসদ। পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনের দাবিতে প্রবল বিক্ষোভের জেরে এদিন ৩ বার লোকসভার অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যায়। তবে বিরোধী শিবির নয়, তাত্‍পর্যপূর্ণভাবে এদিন লোকসভা উত্তাল করার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা নিলেন কংগ্রেসের ৮ তেলেঙ্গানাপন্থী সাংসদ। সভার কাজে বিঘ্ন ঘটানোর অভিযোগে কংগ্রেসের ৮ সাংসদকে ৪ দিনের জন্য সাসপেন্ড করেছেন স্পিকার মীরা কুমার।
২২ দিনের বিরতির পর মঙ্গলবার সকালে শুরু হয় সংসদের বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয় পর্ব। সরকারপক্ষের আশঙ্কা ছিল, অভিষেক মনু সিংভির বিতর্কিত সিডি কাণ্ডকে ইস্যু করে সভায় শোরগোল তুলতে পারে বিরোধীরা। সুষ্ঠু ভাবে সভা পরিচালনার জন্য তাই বিজেপি, বাম-সহ বিরোধী শিবিরের কাছে বার্তাও পাঠানো হয় কেন্দ্রের তরফে। তা ছাড়া বাজেট অধিবেশনের রণকৌশল ঠিক করতে সোমবার রাতে নিজেদের মধ্যে বৈঠকে করেন বিজেপি ও সিপিআইএম নেতারা। পেনশন, ব্যাঙ্ক, বিমাক্ষেত্রে সরকারের সংস্কার কর্মসূচির বিরোধিতা করা হবে বলে জানিয়েছেন সিপিআইএম সাংসদ বাসুদেব আচারিয়া। ফলে আগামী ৮ মে-র মধ্যে বাজেট প্রস্তাব ও অর্থ বিল পাশ করানো নিয়েও যথেষ্ট দুশ্চিন্তায় ট্রেজারি বেঞ্চ।
কিন্তু এদিন সভা শুরুর পর কিছুটা অপ্রত্যাশিতভাবেই ধাক্কা আসে তেলেঙ্গানার কংগ্রেস সাংসদদের তরফে। সেই সঙ্গে প্রশ্নোত্তর পর্ব বাতিল করে মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা শুরুর দাবিতে সরব হন বাম সাংসদরা। প্রবল বাকবিতণ্ডার জেরে তিন বার মুলতুবি করে দিতে হয় লোকসভার অধিবেশন। এমনকী দলীয় নির্দেশ অমান্য করে কেন্দ্রীয় সংসদীয়মন্ত্রী পবনকুমার বনশলকে বাজেটের সমর্থনে প্রস্তাব পেশ করতেও বাধা দেন তেলেঙ্গানাপন্থী কংগ্রেস সাংসদরা। এ সময় ট্রেজারি বেঞ্চের পাশাপাশি বিরোধী বেঞ্চের তরফেও তাঁদের নিবৃত্ত হওয়ার অনুরোধ জানান হয়। শেষ পর্যন্ত সভায় শান্তি ফেরাতে তেলেঙ্গানাপন্থী ৮ কংগ্রেস সাংসদকে ৪ দিনের জন্য সাসপেন্ড করা হয়। আগামী ৪ দিনের মধ্যে সংসদে কোনও বিল নিয়ে ভোটাভুটি নেই। কংগ্রেস নেতৃত্বের আশা, এর মধ্যেই অন্ধ্র্র বিভাজনের সমর্থক দলীয় সাংসদের সঙ্গে সমঝোতায় আসা সম্ভব হবে।
অন্যদিকে, এদিন রাজ্যসভার পরিবেশ ছিল তুলনামূলক শান্ত। ডিজেলের দামের উপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী নমো নারায়ণ মিনা। জ্বালানি ও রান্নার গ্যাসের দাম নিয়ে রাজ্যসভায় একটি জবাবি ভাষণে মিনা বলেন, ''ডিজেলের দাম বাজারের উপরে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। তবে রান্নার গ্যাসের দামের উপর নিয়ন্ত্রণ তোলার কোনও প্রস্তাব নেই।''  



First Published: Tuesday, April 24, 2012 - 17:46


comments powered by Disqus