উত্তরাখণ্ড জুড়ে ধ্বংসের ছবি, মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়াবার আশঙ্কা

উত্তরাখণ্ডে বন্যায় মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বন্যায় কমপক্ষে ষাট হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত। খারাপ আবহাওয়ায় বারবারই ব্যহত হচ্ছে দুর্গতদের ত্রাণ ও চিকিত্সা ব্যবস্থা পৌঁছে দেওয়ার কাজ। বৃষ্টি থামায় জলস্তর নামতেই সামনে আসছে বন্যাবিধ্বস্ত উত্তরাখণ্ডের ধ্বংসের ছবি। কেদারনাথে মন্দিরটুকু ছাড়া বাকি সবই নদীগর্ভে চলে গিয়েছে।

Updated: Jun 21, 2013, 09:31 AM IST

উত্তরাখণ্ডে বন্যায় মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বন্যায় কমপক্ষে ষাট হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত। খারাপ আবহাওয়ায় বারবারই ব্যহত হচ্ছে দুর্গতদের ত্রাণ ও চিকিত্সা ব্যবস্থা পৌঁছে দেওয়ার কাজ। বৃষ্টি থামায় জলস্তর নামতেই সামনে আসছে বন্যাবিধ্বস্ত উত্তরাখণ্ডের ধ্বংসের ছবি। কেদারনাথে মন্দিরটুকু ছাড়া বাকি সবই নদীগর্ভে চলে গিয়েছে।
আগামী একবছর কেদারনাথ মন্দির বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  উত্তরাখণ্ডের অন্যান্য তীর্থস্থানগুলির অবস্থাও একইরকম। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা কার্যত বিচ্ছিন্ন। তলিয়ে গিয়েছে চারশোটি সড়ক। ভেঙে পড়েছে একুশটি সেতু।
রুদ্রপ্রয়াগ, চামোলি, উত্তরকাশী, টিহরি সর্বত্রই একই ছবি। কুমায়ুনের ধরচুলায় ধস নেমে রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ফলে এবছরের মানস সরোবর যাত্রা বাতিল করা হয়েছে। আজ সকালে আলমোড়ায় ফের ধস নামে। ধ্বসের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তা। কয়েকটি রাস্তা জলের তোড়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে।
মেরামতির কাজ শুরু করেছে বর্ডার রোড অরগানাইজেশন। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলা ও ত্রাণের জন্য কেন্দ্রকে সবরকম সাহায্য করার নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে বন্যার ক্ষয়ক্ষতির ওপর একটি রিপোর্ট আদালতে জমা দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।