হূতিকের মাইলস্টোন

Jan 10, 2013, 06:54 PM IST
হ্যাপি বার্থডে হৃতিকআজ চল্লিশে পা দিলেন হৃতিক রোশন। তাঁর অভিনীত সেরা সিনেমার সেরা ছবিগুলি দিয়েই শুভেচ্ছা ২৪ ঘণ্টার।
1/13

হ্যাপি বার্থডে হৃতিক
আজ চল্লিশে পা দিলেন হৃতিক রোশন। তাঁর অভিনীত সেরা সিনেমার সেরা ছবিগুলি দিয়েই শুভেচ্ছা ২৪ ঘণ্টার।

কহো না প্যায়ার হ্যায়কহো না প্যায়ার হ্যায় (২০০০)-- নায়ক হৃতিকের অভিষেক ছবি। এই সিনেমাটা ভারতীয় বাণ্যিজিক সিনেমার ইতিহাসে মাইলস্টোন। গোটা দেশে ঝড় তুলেছিল রোশন ক্যাম্পের এই ছবি। ২৬ বছরের হ্যান্ডসাম হৃতিককে দেখে দেশের মহিলারা বলতে শুরু করেছিল `কহো না প্যায়ার হ্যায়`। আর হূতিক দেখিয়েছিল বলিউডে খানেদরে দাপট শেষ করতে তিনি তৈরি।
2/13

কহো না প্যায়ার হ্যায়
কহো না প্যায়ার হ্যায় (২০০০)-- নায়ক হৃতিকের অভিষেক ছবি। এই সিনেমাটা ভারতীয় বাণ্যিজিক সিনেমার ইতিহাসে মাইলস্টোন। গোটা দেশে ঝড় তুলেছিল রোশন ক্যাম্পের এই ছবি। ২৬ বছরের হ্যান্ডসাম হৃতিককে দেখে দেশের মহিলারা বলতে শুরু করেছিল `কহো না প্যায়ার হ্যায়`। আর হূতিক দেখিয়েছিল বলিউডে খানেদরে দাপট শেষ করতে তিনি তৈরি।

কোই মিল গয়াকোই মিল গয়া(২০০৩)। রোম্যান্টির বা অ্যাকশন হিরো নয়। কেরিয়ারের শুরুতেই সম্পূর্ণ নতুন ধাঁচের এক চরিত্রে অভিনয় করার সাহস দেখিয়েছিলেন হৃতিক। বলা যেতে পারে এই ছবি দেখেই এরকম বিশেষ চরিত্রে অভিনয়ের সাহস পেয়েছিলেন ভবিষ্যতের বহু অভিনেতা। অভিনয়ের অন্যতম মাইলস্টোন সেট করে হাসতে হাসতে তুলে নিয়েছিলেন বছরের সেরা অভিনেতার পুরস্কার। সমালোচকরাও বেছে নিয়েছিলেন তাঁকেই।
3/13

কোই মিল গয়া
কোই মিল গয়া(২০০৩)। রোম্যান্টির বা অ্যাকশন হিরো নয়। কেরিয়ারের শুরুতেই সম্পূর্ণ নতুন ধাঁচের এক চরিত্রে অভিনয় করার সাহস দেখিয়েছিলেন হৃতিক। বলা যেতে পারে এই ছবি দেখেই এরকম বিশেষ চরিত্রে অভিনয়ের সাহস পেয়েছিলেন ভবিষ্যতের বহু অভিনেতা। অভিনয়ের অন্যতম মাইলস্টোন সেট করে হাসতে হাসতে তুলে নিয়েছিলেন বছরের সেরা অভিনেতার পুরস্কার। সমালোচকরাও বেছে নিয়েছিলেন তাঁকেই।

লক্ষ্যলক্ষ্য(২০০৪)। ছবি হিট না হলেও দিনের শেষে সমালোচকদের প্রসংসা কুড়িয়েই নিয়েছিলেন অভিনেতা হৃতিক।
4/13

লক্ষ্য
লক্ষ্য(২০০৪)। ছবি হিট না হলেও দিনের শেষে সমালোচকদের প্রসংসা কুড়িয়েই নিয়েছিলেন অভিনেতা হৃতিক।

কৃষসালটা ২০০৬। বলিউড পেল প্রথম সুপারহিরো, কৃষকে। দর্শক, সমালোচক সবার কাছেই একশোয় একশো পেলেন হৃতিক।
5/13

কৃষ
সালটা ২০০৬। বলিউড পেল প্রথম সুপারহিরো, কৃষকে। দর্শক, সমালোচক সবার কাছেই একশোয় একশো পেলেন হৃতিক।

ধুম টুধুম টু(২০০৬)। ছ`ছটি ভিন্ন লুকে এই ছবিতে দেখা গিয়েছিল হৃতিককে। অভিনয়, নাচ, লুক সবদিক দিয়েই নিজের সেরাটা উজার করে দিয়েছিলেন হৃতিক। সমালোচকরা মানতে বাধ্য হয়েছিলেন হৃতিকই এই প্রজন্মের মোস্ট ভার্সাটাইল অ্যাক্টর।
6/13

ধুম টু
ধুম টু(২০০৬)। ছ`ছটি ভিন্ন লুকে এই ছবিতে দেখা গিয়েছিল হৃতিককে। অভিনয়, নাচ, লুক সবদিক দিয়েই নিজের সেরাটা উজার করে দিয়েছিলেন হৃতিক। সমালোচকরা মানতে বাধ্য হয়েছিলেন হৃতিকই এই প্রজন্মের মোস্ট ভার্সাটাইল অ্যাক্টর।

যোধা আকবরযোধা আকবর(২০০৮)। হৃতিকের জীবনের সেরা ছবিগুলির একটি। জীবনের তৃতীয় ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড এনে দিয়েছিল এই ছবি। আগের ছবি ধুম টু-র অ্যাকশন হিরো থেকে হৃতিকের ঐতিহাসিক অবতারে উত্তরণ তাঁকে নিয়ে গিয়েছিল অন্য উচ্চতায়।
7/13

যোধা আকবর
যোধা আকবর(২০০৮)। হৃতিকের জীবনের সেরা ছবিগুলির একটি। জীবনের তৃতীয় ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড এনে দিয়েছিল এই ছবি। আগের ছবি ধুম টু-র অ্যাকশন হিরো থেকে হৃতিকের ঐতিহাসিক অবতারে উত্তরণ তাঁকে নিয়ে গিয়েছিল অন্য উচ্চতায়।

ফিজাফিজা (২০০০)-- বক্স অফিস বলছে হৃতিক রোশনের কেরিয়ারে হতাশার ছবি। কিন্তু ব্যর্থতা আসলে সাফল্যের ভিত এই কথাটা যদি মনেপ্রাণে মানেন তাহলে বলা হবে এই ছবিটা তাঁর কেরিয়ারে মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল। এই ছবির জন্য ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে সেরা অভিনেতার মনোনয়ন পেযেছিলেন। `ফিজা`তে দর্শকরা ফিদা না হোন, কিন্তু এই `ফিজা`হৃতিকের পথকে আলো দেখিয়েছিল।
8/13

ফিজা
ফিজা (২০০০)-- বক্স অফিস বলছে হৃতিক রোশনের কেরিয়ারে হতাশার ছবি। কিন্তু ব্যর্থতা আসলে সাফল্যের ভিত এই কথাটা যদি মনেপ্রাণে মানেন তাহলে বলা হবে এই ছবিটা তাঁর কেরিয়ারে মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল। এই ছবির জন্য ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে সেরা অভিনেতার মনোনয়ন পেযেছিলেন। `ফিজা`তে দর্শকরা ফিদা না হোন, কিন্তু এই `ফিজা`হৃতিকের পথকে আলো দেখিয়েছিল।

মিশন কাশ্মীরমিশন কাশ্মীর(২০০০)। হৃতিকের জনপ্রিয়তা তখন মধ্যগগণে। বিধু বিনোদ চোপড়ার ব্যানারে এই ছবিটায় তাঁকে নিয়ে আশাটা ছিল গগণচুম্বি। কিন্তু মিশন কাশ্মীরের মিশনটা হৃতিকের কাছে ভাল যায়নি। তবে ক্যারেকটারে একটু অন্য ছোঁয়া থাকলেও তিনি সেটা অনায়াসে করতে পারেন সেটা প্রমাণ হল। এই ছবিটা দেখাল ব্যর্থ ছবির মাঝেও নিজেকে সফল প্রমাণ করার ক্ষমতা তাঁর আছে।
9/13

মিশন কাশ্মীর
মিশন কাশ্মীর(২০০০)। হৃতিকের জনপ্রিয়তা তখন মধ্যগগণে। বিধু বিনোদ চোপড়ার ব্যানারে এই ছবিটায় তাঁকে নিয়ে আশাটা ছিল গগণচুম্বি। কিন্তু মিশন কাশ্মীরের মিশনটা হৃতিকের কাছে ভাল যায়নি। তবে ক্যারেকটারে একটু অন্য ছোঁয়া থাকলেও তিনি সেটা অনায়াসে করতে পারেন সেটা প্রমাণ হল। এই ছবিটা দেখাল ব্যর্থ ছবির মাঝেও নিজেকে সফল প্রমাণ করার ক্ষমতা তাঁর আছে।

কাইটসকাইটস(২০১০)। ছবির মুক্তির আগে প্রচারের চমকে প্রত্যাশার পারদ ছিল চরমে। কিন্তু লুক, নাচ, কোনও কিছু দিয়েই দর্শককুলকে জয় করা যায়নি। প্রথমবারের জন্য দর্শকদের একরাশ হতাশা দিলেন হৃতিক।
10/13

কাইটস
কাইটস(২০১০)। ছবির মুক্তির আগে প্রচারের চমকে প্রত্যাশার পারদ ছিল চরমে। কিন্তু লুক, নাচ, কোনও কিছু দিয়েই দর্শককুলকে জয় করা যায়নি। প্রথমবারের জন্য দর্শকদের একরাশ হতাশা দিলেন হৃতিক।

গুজারিশগুজারিশ(২০১০)। বক্সঅফিসের আনুকুল্য একেবারেই পায়নি এই ছবি। তবে হৃতিকের জীবনের অন্যতম সেরা অভিনয় দেখা গিয়েছিল গুজারিশে। জুটেছিল ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডসে সেরা নায়কের মনোনয়নও।
11/13

গুজারিশ
গুজারিশ(২০১০)। বক্সঅফিসের আনুকুল্য একেবারেই পায়নি এই ছবি। তবে হৃতিকের জীবনের অন্যতম সেরা অভিনয় দেখা গিয়েছিল গুজারিশে। জুটেছিল ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডসে সেরা নায়কের মনোনয়নও।

জিন্দেগি না মিলেগি দোবারাজিন্দেগি না মিলেগি দোবারা(২০১১)। নিজের পরিচিত ইমেজের থেকে এই ছবিতে একেবারেই অন্যরকম হৃতিককে পেয়েছে দর্শক। ছবি হিট না হলেও অভিনেতা হৃতিককে পাওয়া গিয়েছিল এই ছবিতে।
12/13

জিন্দেগি না মিলেগি দোবারা
জিন্দেগি না মিলেগি দোবারা(২০১১)। নিজের পরিচিত ইমেজের থেকে এই ছবিতে একেবারেই অন্যরকম হৃতিককে পেয়েছে দর্শক। ছবি হিট না হলেও অভিনেতা হৃতিককে পাওয়া গিয়েছিল এই ছবিতে।

অগ্নিপথঅগ্নিপথ(২০১২)। এখনও পর্যন্ত হৃতিক অভিনীত শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি। অমিতাভ বচ্চন অভিনীত চরিত্রে অভিনয় করা হৃতিকের থেকে প্রত্যাশা ছিল প্রচুর। ছবি দেখে দর্শকদের মতামত, অমিতাভকেও ছাপিয়ে গেছেন তিনি। আর বলিউড পেল এক নতুন বিজয় দীনানাথ চৌহানকে। এটাই হৃতিকের জীবনের একমাত্র রিমেক।
13/13

অগ্নিপথ
অগ্নিপথ(২০১২)। এখনও পর্যন্ত হৃতিক অভিনীত শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি। অমিতাভ বচ্চন অভিনীত চরিত্রে অভিনয় করা হৃতিকের থেকে প্রত্যাশা ছিল প্রচুর। ছবি দেখে দর্শকদের মতামত, অমিতাভকেও ছাপিয়ে গেছেন তিনি। আর বলিউড পেল এক নতুন বিজয় দীনানাথ চৌহানকে। এটাই হৃতিকের জীবনের একমাত্র রিমেক।