অসি ওপেনে গরমে প্লাস্টিক বোতলও গলে গেল! কোর্টেই নাদালের স্নান, জামা খুললেন শারাপোভা, পরে স্বস্তির বৃষ্টি

Last Updated: Thursday, January 16, 2014 - 16:13

-------------------------------------------------------------------------
অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে গরমে কাহিল হয়ে পড়ার ঘটনা আরও বেড়ে গেল প্রতিযোগিতার চতুর্থ দিনে। আজ মেলবোর্নের তাপমাত্রা ৪১.৭ ডিগ্রি, সঙ্গে সূর্যের প্রখর তাপ, আর গরম হাওয়া। সব মিলিয়ে খেলোয়াড়দের প্রাণ ওষ্ঠাগত। তবে বিকালের পর এল স্বস্তির বৃষ্টি। বাজও পড়ল বেশ কয়েকবার। এতে প্রতিযোগিতার বেশ কিছু ম্যাচ স্থগিত হয়ে গেল ঠিকই , কিন্তু আয়োজক থেকে খেলোয়াড়, দর্শক থেকে সাংবাদিক। প্রত্যেকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন।

গরমকে হারিয়ে রাফায়েল নাদাল, মারিয়া শারাপোভার মত খেলোয়াড়রা জিতলেন ঠিকই, কিন্তু তাদের দেখেই মনে হল সূর্য্যি মামা তাদের সব প্রাণশক্তি শুষে নিয়েছে। প্রাক্তন এক নম্বর খেলোয়াড় ক্যারোলিনা ওয়াজনিয়াকি আবার বললেন, খেলার মাঝে দেখলাম রোদে যে প্লাস্টির বোতলটা রয়েছে সেটাও গলে গেল
(নিচে দেওয়া হল সেই টুইট)।

রাফায়েল নাদাল তো খেলার মাঝেই কার্যত স্নান সেরে নিলেন। বিশ্বের ৫৭০ নম্বর খেলোয়াড় অসি তরুণ কোকানাকিসকে ৬-২,৬-৪,৬-২ হারিয়ে তৃতীয় রাউন্ডে উঠলেন শীর্ষ বাছাই নাদাল। ১৭ বছরের কোকনাকিসের খেলা দেখে নাদাল বেশ খুশি।

অন্যদিকে, দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে মারিয়া শারোপভা একেবারে খাদের কিনারা থেকে ম্যাচ জিতে ফিরলেন। ইটালির কারিনা কানাপের বিরুদ্ধে শারাপোভা প্রথম সেটে হেরে গিয়েছিলেন। দ্বিতীয় সেটে জিতলেও রাশিয়ার টেনিস সুন্দরীক তৃতীয় সেট জিততে পায়ের ঘাম মাথায় ফেলতে হল। তৃতীয় সেটের মাঝে ঘামে ভেজা জামা খুলে পরিবর্তন করে অন্য পোশাক পরলেন। শেষ অবধি জিতলেন ৩-৬, ৬-৪, ১০-৮।

দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে রজার ফেডেরার জিতলেন স্লোভানিয়া ব্লাক কাভতচিচের বিরুদ্ধে ৬-২,৬-১, ৭-৬। স্ট্রেট সেটে জয় পেলেনও ফরাসি সঙ্গাও।

অন্যদিকে, প্রচণ্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়লেন ক্রোট খেলোয়াড় ডডিচ। বসনিয়ার দামির দুমজারের বিরুদ্ধে ম্যাচে ডডিচ কোর্টে জ্ঞান হারালেন। সুস্থ হওয়ার পর বললেন, মনে হচ্ছিল এই গরমে মরেই গেছি। পরে দেখলাম না এখনও বেঁচে।

(এখানে ক্লিক করে দেখুন অসি ওপেনে গরমে কাহিল খেলোয়াড়, দর্শকরা)

রোদে ডিম ভাজার চেষ্টা

গরমে অসুস্থ হয়ে পড়লেন বেথানি ম্যাটেক

ইটালির ক্যামিলা গিরগি একেবারে গোলাপি হয়ে গেলেন।



First Published: Thursday, January 16, 2014 - 15:46


comments powered by Disqus