কুমারের স্পেলে ভূপতিত লঙ্কা, ফাইনালে ভারত

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সাফল্যের ধারা অব্যহত রাখল ধোনিহীন ভারত। প্রায় অসাধ্যসাধন করে ত্রিদেশীয় ক্রিকেট সিরিজের ফাইনালে উঠল বিরাট কোহলির দল। ডাক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে খেতাবি লড়াইয়ে উঠে গেলেন কোহলিরা। প্রতিযোগিতার প্রথম দুটো ম্যাচে হেরে ভারত একসময় বিদায়ের মুখে দাঁড়িয়ে ছিল ভারত। কিন্তু পরের দুটো ম্যাচে বিরাট ব্যবধানে জিতে খাদের কিনার থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ফাইনালে উঠলেন কোহলিরা।

Updated: Jul 10, 2013, 08:30 AM IST

ভারত-- ১১৯/৩ (রোহিত ৪৮)।। শ্রীলঙ্কা- ৯৬ (ভুবনেশ্বর কুমার ৪/৮)।
ভারত জয়ী ৮১ রান (ডিএল পদ্ধতিতে)
চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সাফল্যের ধারা অব্যহত রাখল ধোনিহীন ভারত। প্রায় অসাধ্যসাধন করে ত্রিদেশীয় ক্রিকেট সিরিজের ফাইনালে উঠল বিরাট কোহলির দল।
ডাক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে শ্রীলঙ্কাকে ৮১ রান হারিয়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে খেতাবি লড়াইয়ে উঠে গেলেন কোহলিরা। প্রতিযোগিতার প্রথম দুটো ম্যাচে হেরে ভারত একসময় বিদায়ের মুখে দাঁড়িয়ে ছিল ভারত। কিন্তু পরের দুটো ম্যাচে বিরাট ব্যবধানে জিতে খাদের কিনার থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ফাইনালে উঠলেন কোহলিরা। শুধু ফাইনালে ওঠাই নয়, গ্রুপ চ্যাম্পিয়নও হল ভারত। বোনাস পয়েন্ট সংগ্রহ করে লঙ্কা বধ করায় চার ম্যাচ শেষে ভারতের পয়েন্ট দাঁড়াল ১০। সমসংখ্যাক ম্যাচে শ্রীলঙ্কা, আয়োজক ওয়েস্ট ইন্ডিজ সংগ্রহ করেছে ৯ পয়েন্ট। তবে নেট রান রেটের বিচারে ফাইনালে উঠল শ্রীলঙ্কা, গেইলরা বিদায় নিলেন। বৃহস্পতিবার ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে খেলবে শ্রীলঙ্কা।
বুধবারের ডু অর ডাই ম্যাচে ভারতকে শুধু জিতলেই হত না, পেতে হত বোনাস পয়েন্ট আর ভাল নেট রান রেট। টসে জিতে কোহলিদের ব্যাট করতে পাঠান অ্যাঞ্জেলো। ভারতের ইনিংসের মাঝে শুরু হয় বৃষ্টি। এরপর ম্যাচ ২৯ ওভারের হয়ে দাঁড়ায়। ভারত ২৯ ওভারে করে ১১৯ রান। ডাক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে শ্রীলঙ্কাকে জিততে হলে করতে হত ২৬ ওভারে ১৭৮ রান। কিন্তু ভারতের সামনে ফাইনালে উঠতে শুদু জয় নয়, শর্ত ছিল শ্রীলঙ্কাকে ১৬৭ বা তার কমে বেঁধে রাখতে হবে। আজকের টি ২০ যুগে যেটা অনেকটাই সহজ শ্রীলঙ্কার কাছে। কিন্তু পোর্ট অফ স্পেনের স্যাঁতস্যাঁতে পিচে ভুবনেশ্বর কুমার যে স্পেল করলেন, তারপর আর কিছু করার ছিল না সাঙ্গাকারাদের। হলও তাই।
ভারতীয় ক্রিকেটের সাম্প্রতিক ইতিহাসে অন্যতম সেরা স্পেল করে ভুবনেশ্বর কুমার ভারতকে ফাইনালে তুললেন। আগের ম্যাচে যে শ্রীলঙ্কাকে ভারতের বিরুদ্ধে তুলেছিল ৩৪৮ রান, তারাই অল আউট হয়ে গেল মাত্র ৯৬ ওভারে। ৬ ওভার বল করে মাত্র আট রান দিয়ে ভুবনেশ্বর পেলেন চারটি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট। শ্রীলঙ্কার ইনিংসের প্রথম তিন উইকট তুলে ম্যাচ জয়ের প্রেক্ষাপট তৈরি করেন উত্তরপ্রদেশের এই পেসার। ভুবনেশ্বর আউট করেন থারাঙ্গা, জয়বর্ধনে, সাঙ্গাকারা ও থিরিমানেকে। ইশান্ত শর্মা ১৭ রান দিয়ে নিলেন দুই উইকেট। জাদেজা ১৭ রান দিয়ে নিলেন ২ উইকেট।
প্রতিযোগিতার প্রথম দুটো ম্যাচে হার, ধোনির চোট ভারতকে বেশ বিপদে ফেল দিয়েছিল। নতুন অধিনায়ক কোহলি যেভাবে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে ভারতকে ফাইনালে তুললেন, তারপর ভারতীয় ক্রিকেটমহল উচ্ছ্বসিত।