চার্চিল সুযোগ দিল, ইস্টবেঙ্গল নিল না

চার্চিল সুযোগ দিল, ইস্টবেঙ্গল নিল না

চার্চিল সুযোগ দিল, ইস্টবেঙ্গল নিল নাইস্টবেঙ্গল (১) এয়ার ইন্ডিয়া (১)।। চার্চিল ব্রাদার্স (১) ওএনজিসি (১)।। প্রয়াগ (১) সিকিম ইউনাইটেড (০)


লিগ শীর্ষে থাকা চার্চিলের পয়েন্ট নষ্ট করার অ্যাডভান্টেজ কাজে লাগাতে পারল না ইস্টবেঙ্গল। মরগ্যানের স্ট্র্যাটেজির ভুলে ফের একবার পচা শামুকে পা কাটল লাল-হলুদ শিবিরের। কল্যাণীতে এয়ার ইন্ডিয়ার সঙ্গে ১-১ গোলে ম্যাচ শেষ করল ইস্টবেঙ্গল। ৯১ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও জয় হাতছাড়া করলেন মেহতাবরা।

শিল্ড ফাইনালের দলে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন করেছিলেন লাল-হলুদ কোচ। অসুস্থতা আর চোটের জন্য প্রথম একাদশে ছিলেন না ওপারা আর খাবরা। তার উপর পেন অফ ফর্মে থাকায় প্রথমার্ধে ইস্টবেঙ্গলের খেলা সেভাবে দানা বাঁধেনি।

চিডি আর বোরিসিচ জুটিও সেভাবে নজর কাড়তে পারেননি। দ্বিতীয়ার্ধে ইস্টবেঙ্গলকে অবশ্য অনেকটাই চেনা মেজাজে পাওয়া যায়। বোরিসিচের পাস থেকে ইস্টবেঙ্গলকে এগিয়ে দেন এই মরসুমে লাল-হলুদের সর্বোচ্চ গোলদাতা চিডি।

কিছুক্ষণ পর ব্যবধান বাড়াবার সুবর্ন সুযোগ নষ্ট করেন নাইজেরীয় স্ট্রাইকার। পিছিয়ে পড়লেও খেলা থেকে হারিয়ে যায়নি মুম্বইয়ের বিমান দলটি। সমতা ফেরাবার জন্য বেশ কয়েকটি সুযোগ পেয়েছিল নৌশাদ মুসার দল। ইস্টবেঙ্গল গোলপোস্টের নীচে অনবদ্য কিছু সেভ করেন শিল্ডের ডার্বির নায়ক গুরপ্রীত। পরিবর্ত হিসাবে ওপারা আর খাবরা-কে মাঠে নামিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন মরগ্যান। ব্যবধান বাড়াবার সুযোগ এসেছিল ডিকা-বোরিসিচদের সামনে। কিন্তু তা কাজে লাগাতে পারেননি ইস্টবেঙ্গল ফুটবলাররা। সুযোগ নষ্টের খেসারত শেষ পর্যন্ত দিতে হল লাল-হলুদ শিবিরকে।
চার্চিল সুযোগ দিল, ইস্টবেঙ্গল নিল না

অন্যদিকে আই লিগের অন্য ম্যাচে গ্যাংটকের পালজোড় স্টেডিয়ামে অন্য আরেকটি ম্যাচে ঘরের মাঠে সিকিম ইউনাইটেডকে এক গোলে হারাল প্রয়াগ ইউনাইটেড। সদ্য আইএফএ শিল্ড জয়ীদের হয়ে ২৭ মিনিটে একমাত্র জয়সূচক গোলটি করেন রন্টি মার্টিনস। তিনি মোট ২২টি গোল করে এখন জাতীয় লিগের শীর্ষ গোলদাতা। জাতীয় লিগের অন্য দুটি ম্যাচে শনিবার চার্চিল ও ওএনজিসির মধ্যে খেলা ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। সালগাওকার ১-০ গোলে হারিয়েছে মুম্বই এফসিকে।





First Published: Saturday, March 23, 2013, 21:52


comments powered by Disqus