`পঞ্চরত্ন` -এর জয়ে শীর্ষেই থাকল ইস্টবেঙ্গল

ইস্টবেঙ্গল বিজয়রথ এখন আরও বেপরোয়া। লাল হলুদের বিজয়রাথার গতির কাছে বড় দল, ছোট দল সবাই হার মানছে। চার্চিল ব্রাদার্সকে তিন গোলে হারানোর পর এদিন ওএনজিসিকে ৫-০ গোল হারাল মরগ্যান বাহিনী। গত ম্যাচে ডেম্পোকে হারিয়ে সোরগোল ফেলে দেওয়া ওএনজিসিকে শনিবাসরীয় যুবভারতীতে উড়িয়েই দিল ইস্টবেঙ্গল। ভারতীয় ফুটবলের সুব্রত ভট্টাচার্য-টু মানে পটলার দলের বিরদ্ধে দলগত জয় ছিনিয়ে এনে আই লিগের রঙ লাল হলুদ করে ফেলল মরগ্যান বাহিনী।

Updated: Nov 24, 2012, 04:58 PM IST

ইস্টবেঙ্গল (৫) ওএনজিসি (০)
ইস্টবেঙ্গল বিজয়রথ এখন আরও বেপরোয়া। লাল হলুদের বিজয়রাথার গতির কাছে বড় দল, ছোট দল সবাই হার মানছে। চার্চিল ব্রাদার্সকে তিন গোলে হারানোর পর এদিন ওএনজিসিকে ৫-০ গোল হারাল মরগ্যান বাহিনী। গত ম্যাচে ডেম্পোকে হারিয়ে সোরগোল ফেলে দেওয়া ওএনজিসিকে শনিবাসরীয় যুবভারতীতে উড়িয়েই দিল ইস্টবেঙ্গল। ভারতীয় ফুটবলের সুব্রত ভট্টাচার্য-টু মানে পটলার দলের বিরদ্ধে দলগত জয় ছিনিয়ে এনে আই লিগের রঙ লাল হলুদ করে ফেলল মরগ্যান বাহিনী। এই জয় দেখার পর দেশের ফুটবলমহল বলতে শুরু করে দিল চার্চিল ম্যাচে জয় দিয়ে আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সত্যিকারের স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিল ইস্টবেঙ্গল, আর এদিনের ব়ড জয় সেই স্বপ্নকে আরও বেশি করে বাস্তবের কাছাকাছি নিয়ে এল। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকা দেখে অবশ্য বোঝা যায়নি, এত বড় জয় আসতে চলেছে। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে অসাধারণ ফুটবল খেলে বাজিমাত করল ইস্টবেঙ্গল।
অনেকেই বলছেন পাঁচ গোলের এই জয় ইস্টবেঙ্গলের কাছে পঞ্চরত্নের মত। রত্ন নম্বর-- ১) আই লিগে শীর্ষ স্থান ধরে রাখা,২) আত্মতুষ্টিতে না ভুগে জেতার অভ্যাস বজায় রাখা, ৩) দলের সব স্ট্রাইকারদের গোলের মধ্যে থাকা, ৪) খারাপ ম্যাচেও বড় জয় পাওয়া, ৫) দলের ফিটনসে লেভেল দারুণ জায়গায় থাকা।
মরগ্যানদের এই জয়ের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক দেখার মত টিম স্পিরট। একটা দলের বড় জয়ে সবচেয়ে কোচ খুশি তখনই হোন, যখন সেই ম্যাচে কোনও একজন ফুটবলার সব গোল না করে অনেকে মিলে গোল করেন। শনিবারের যুবভারতী জয়ে ইস্টবেঙ্গলের তাই হল। পাঁচ গোলে জয়ে গোল করলেন পাঁচ জন। গোল উত্‍সবের শুরুটা হয়েছিল ম্যাচের ২৫ মিনিটে চিডির মাধ্যমে। বিরতির পর রূপ বদলে যাওয়া ইস্টবেঙ্গলের হয়ে দ্বিতীয় গোল পেনের। ৬৬ মিনিটে দলের গোলকে তিনে পা দেওয়ালেন মননদীপ সিং। এরপর ওএনিজিসি ফুটবলারদের মানসিকতা একেবারে তলানীতে ঠেকে যায়। সেই সুযোগে দলকে পঞ্চরত্নের জয়ে ৭৮ মিনিটে চতুর্থ গোল লালারানডিকা, পাঁচ মিনিট বাদে পঞ্চম গোল রবিন সিংয়ের। যুবভারতীতে জয়ের পর লাল হলুদ সমর্থকদের উত্‍সাহ ছিল দেখার মত। কোচ মরগ্যান অবশ্য সতর্ক। ইস্টবেঙ্গলের কোচ বলছেন, এখনও অনেক পথ চলা বাকি। তবে তেল কোম্পানির বিরুদ্ধে এই জয় প্রমাণ করলে পা পিছলে না পড়লে (পড়তে হবে আত্মতুষ্টি না হলে) মশালের তাপকে এবার সবাই ভয় পাবে। আই লিগে লাল-হলুদের পরের ম্যাচ সালগাঁওকেরর বিরুদ্ধে।