আজ ইস্টবেঙ্গলের সতর্কতার স্পোর্টিং চ্যালেঞ্জ

ইস্টবেঙ্গলের কাছে এখন আই লিগ খেতাব জয়ের পথ শ্যাওলা বেছানো রাস্তার মত। আচমকা পা ফস্কালেই ভূপতিত হতে হবে খেতাব জয়ের স্বপ্ন থেকে। আর এই পথ সতর্কে অতিক্রম করার জন্য প্রথম হার্ডল স্পোর্টিং ক্লাব দ্য গোয়া। গোয়ার দলটি ঘরের মাঠে মোহনবাগানের কাছে ৫-১ গোলে হেরে কলকাতায় এসেছে। নতুন কোচ,নতুন বিদেশি-স্পোর্টিং ক্লাব দ্য গোয়া এখন ভাঙাগড়ার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। আর এই সুযোগকেই এখন কাজে লাগাতে চান মরগ্যান।

Updated: Apr 13, 2013, 10:48 PM IST

ইস্টবেঙ্গলের কাছে এখন আই লিগ খেতাব জয়ের পথ শ্যাওলা বেছানো রাস্তার মত। আচমকা পা ফস্কালেই ভূপতিত হতে হবে খেতাব জয়ের স্বপ্ন থেকে। আর এই পথ সতর্কে অতিক্রম করার জন্য প্রথম হার্ডল স্পোর্টিং ক্লাব দ্য গোয়া। গোয়ার দলটি ঘরের মাঠে মোহনবাগানের কাছে ৫-১ গোলে হেরে কলকাতায় এসেছে। নতুন কোচ,নতুন বিদেশি-স্পোর্টিং ক্লাব দ্য গোয়া এখন ভাঙাগড়ার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। আর এই সুযোগকেই এখন কাজে লাগাতে চান মরগ্যান।
প্রথম পর্বে গোয়ায় গিয়ে স্পোর্টিং ক্লাব দ্য গোয়াকে হারিয়ে এসেছিল মরগ্যান ব্রিগেড। রবিবার ম্যাচের আগে বিপক্ষের সমস্যা নিয়ে স্বস্তি থাকলেও, মরগ্যানের অস্বস্তি দলের চোট। তবুও সুযোগ কাজে লাগাতে স্ট্র্যাটেজি কষছেন মরগ্যান।
  
চোটের জন্য স্পোর্টিং ম্যাচে নেই নওবা সিং,বোরিসিচ।চোটের জন্য অনিশ্চিত সৌমিকও।কার্ড সমস্যায় নেই খাবরা ও মেহতাবও। মেহতাবের বদলি হিসেবে সুবোধ কুমারকে ভেবে রাখলেও, দুই ব্যাক কে হবেন তা নিয়ে চিন্তিত কোচ।
 
ইস্টবেঙ্গলের অনুশীলনে ফিলগুড পরিবেশ বহুদিন ধরেই। ঘরোয়া লিগে খেতাবি দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে। এএফসি কাপেও গ্রুপ শীর্ষে। আইলিগের খেতাবি দৌড়েও দল। তবে তো হাল্কা মেজাজ থাকাই তো স্বাভাবিক! স্পোর্টিং ম্যাচের আগে ইস্টবেঙ্গলের ফুরফুরে মেজাজে গুমোট পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে রবিবার দুপুরে যুবভারতীর টার্ফে স্পোর্টিং ম্যাচ দেওয়ায়।
 
আইপিএলের পর যুবভারতীর টার্ফ খেলার অযোগ্য হয়েছে। ক্রমশ তাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে।সঙ্গে কলকাতার গরমের গনগনে তাপ। যা থেকে বাঁচার কোনও জো নেই সঞ্জু-গুরবিন্দরদের।
 
দুপুরে স্পোর্টিং ক্লাব দ্য ম্যাচ খেলেই রাতে অস্ট্রেলিয়ার বিমান ধরবেন ট্রেভর জেমস মরগ্যান। মরগ্যানের কাছে এই ছুটি লাল হলুদ ক্লাবে থাকা বা না থাকার জন্য সিদ্ধান্তের ছুটি। ঘনিষ্ঠমহলে মরগ্যানের দাবি,গত তিনবছরের মধ্যে যতবার তিনি অস্ট্রেলিয়া গিয়েছেন ততবার তিনি খোশমেজাজে ছিলেন। এবার একদমই পরিস্থিতি আলাদা। পরিবারের টান একদিকে। আরেক দিকে লক্ষ লক্ষ ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের আবেগ। শেষ এএফসি কাপের ম্যাচের পর মরগ্যানের ইস্টবেঙ্গলে না থাকার ধনুকভাঙা পণ খানিকটা পরিবর্তিত হয়েছে। তবে ক্লাব ও পরিবারের টানাপোড়েনে জর্জরিত মরগ্যান শনিবার বেশি মনঃসংযোগ করলেন আইলিগ ম্যাচের প্রস্তুতিতেই। অনুশীলন শেষে জানান,ইস্টবেঙ্গলে তিনি চাকরি করেন, তাই প্রত্যাশার চাপ আছে। পরিবারের ক্ষেত্রে তা নেই। ক্লাবকর্তারাও তাকিয়ে অস্ট্রেলিয়াতে বসে মরগ্যান কি সিদ্ধান্ত নেন তার উপর!