রবিবাসীয় ডার্বি ঘিরে উত্তেজনা গলি থেকে রাজপথে, মরসুমের প্রথম বড় ম্যাচে নিজেদের সেরাটা উজাড় করতে প্রস্তুত ইস্ট-মোহন দুই শিবিরই

মরসুমের প্রথম ডার্বি। ডার্বির উত্তাপ বাংলার গলি থেকে রাজপথে। দুই দলের সমর্থকরাই ফুটছেন উত্তেজনায়। মরসুমের প্রথম বড় ম্যাচকে ঘিরে ইস্ট-মোহন দুই শিবিরে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র।

Updated: Nov 23, 2013, 08:24 PM IST

মরসুমের প্রথম ডার্বি। ডার্বির উত্তাপ বাংলার গলি থেকে রাজপথে। দুই দলের সমর্থকরাই ফুটছেন উত্তেজনায়। মরসুমের প্রথম বড় ম্যাচকে ঘিরে ইস্ট-মোহন দুই শিবিরে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র।
ডার্বি ম্যাচের আগে একেবারে চাপহীন ইস্টবেঙ্গল শিবির। নতুন কোচ কোলাসোর নির্দেশ, ডার্বি ম্যাচ খোলামনে উপভোগ করার। জয়ের জন্য সুয়েকা, ওপারাদের উপর চাপ সৃষ্টি করতে নারাজ কোলাসো। লাল হলুদ কোচের সাফকথা, তিন পয়েন্টের জায়গায় এক পয়েন্ট পেলে কোনও সমস্যা হবে না।মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানেই বদলে গিয়েছে ইস্টবেঙ্গলের ড্রেসিংরুমের আবহাওয়া।গুমোট পরিবেশ হটিয়ে এখন লাল হলদু ড্রেসিংরুমে দখিনা বাতাস বইছে!আর্মান্দো কোলাসোর জমানায় ডার্বি ম্যাচের শেষ প্রস্তুতিতে একেবারে ফুরফুরে মেজাজে মেহতাব-অর্নবরা।থাকবেন নাই বা কেন?কোচ কোলাসোর নির্দেশ,রবিবাসরীয় ডার্বি ম্যাচ খোলামনে উপভোগ করার।কলকাতার প্রথম ডার্বি ম্যাচের আগে কোচ কোলাসোর দাবি,তিন পয়েন্ট পেলে ভাল। কিন্তু এক পয়েন্ট পেলেও চলবে।
 
এই প্রথম ঠাসা যুবভারতীর অর্ধেক সমর্থন নিয়ে মাঠে নামবেন আর্মান্দো। প্রথমবার কলকাতা ফুটবলের বড় ম্যাচের স্বাদ পেতে চলা আর্মান্দো কোলাসোকে জয়ের উপহারই দিতে চান সুয়েকারা ।তাই ম্যাচের আগে ফোকাস নষ্ট করতে নারাজ তাঁরা।
বড়ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলকে এগিয়ে রাখলেও,একঝাঁক তরুণ ফুটবলার নিয়ে  বাজিমাত করতে প্রস্তুত করিম। শুধু ওডাফা বা করিম নন।বড়ম্যাচে করিমের তুরুপের তাস হতে চলেছে টিম মোহনবাগানই। মোহনবাগান অনুশীলনের মুড দেখলে বোঝার উপায় নেই যে আর কয়েকঘণ্টা পরেই মরসুমের প্রথম বড়ম্যাচ।ওডাফা-এরিকদের মধ্যে টেনসনের লেশ মাত্র নেই।হাল্কা মেজাজে হাল্কা অনুশীলনের মধ্যে দিয়েই ডার্বির শেষ প্রস্তুতি করে ফেললেন করিম।ময়দানে বলা হয়ে থাকে যে ডার্বিতে অনেক কোচই ম্যাচ জিতে যান স্নাযুর লড়াইয়ে বিপক্ষকে টেক্কা দিয়ে। বিপক্ষ দলে তারকার ছড়াছড়ি হলেও,ওডাফা-কাতসুমিদের মেজাজটাই ভরসা যোগাচ্ছে মোহনবাগান কোচকে। বাগানের মরোক্কান মানছেন যে ডার্বির আগে সেরা প্রস্তুতি নিয়েছে সবুজ-মেরুন। এক একজন ফুটবলারকে একাধিক পজিসনের জন্য তৈরি রেখেছেন। সেইসঙ্গে চিড্ডি-মোগাদের জন্য করিমের হাতে রেডি একাধিক স্ট্র্যাটেজিও।যাতে একটা প্ল্যান ভেস্তে গেলে তিনি বার করতে পারেন প্ল্যান বি বা সি।
 
রবিবাসরীয় ডার্বিতে ইস্টবেঙ্গলের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ। গোলে অভিজিত মন্ডল।ডিফেন্সে অর্নব,ওপারা,সৌমিক ও নওবা।মাঝমাঠে লোবো,মেহতাব,ডিকা ও খাবরা।আপফ্রন্টে চিড্ডি ও কোলাসোর প্রিয় সুয়েকা।পরিবর্ত হিসেবে আসতে পারেন মোগা,জোয়াকিম।
বড়ম্যাচে মোহনবাগানের প্রথম একাদশ হতে পারে এই রকম। গোলের নীচে দুরন্ত ফর্মে থাকা শিল্টনের খেলা নিশ্চিত।ডিফেন্সে সম্ভবত রোউলসন আর আইবর।দুই সাইডব্যাকে দুই তরুণ প্রীতম আর শৌভিক।ব্লকার হিসাবে দেখা যেতে পারে কিংশুককে।মাঝমাঠে ডেনসন,কাতসুমি আর সাবেথ।আক্রমনভাগে এরিক আর ওডাফা।মরসুম শুরুর ব্যর্থতা পেছনে ফেলে মোহনবাগান সবে একটা দল হয়ে উঠতে শুরু করেছে।করিম মনে করছেন ডার্বি জয় তার দলকে একটা নতুন উচ্চাতায় পৌঁছে দিতে পারে।