শিল্ড সেমিফাইনালের ডার্বি জ্বরে কাঁপছে কলকাতা

আজ, রবিবার আইএফএ শিল্ডের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল। ফ্লাডলাইটে হতে চলা এই ম্যাচ ঘিরে উন্মাদনা তুঙ্গে। চলতি মরসুমে ইতিমধ্যেই দুটি ডার্বির সাক্ষী থেকেছে কলকাতা। যার মধ্যে একটি ভেস্তে গিয়েছে দর্শক হাঙ্গামায়। দ্বিতীয়টিতে আয়োজক মোহনবাগান টিকিটের দাম অনেকটা বাড়িয়ে দেওয়ায় মাঠে দর্শক সংখ্যা একেবারেই ডার্বিসুলভ ছিল না। আই লিগে সেই ডার্বি ম্যাচ গোলশূন্য অবস্থায় শেষ হয়। এবার আইএফএ শিল্ডের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ফের মুখোমুখি কলকাতার দুই ফুটবল দৈত্য। যেখানে টিকিট বিক্রি থেকে শুরু করে দর্শক নিরাপত্তা সব দায়িত্বই রাজ্য ফুটবলের নিয়ামক সংস্থার। টিকিট বিক্রির বর্তমান পরিস্থিতিতে যুবভারতী পরিপূর্ণ হওয়ারই পূর্বাভাস মিলছে।

Updated: Mar 17, 2013, 09:38 AM IST

আজ, রবিবার আইএফএ শিল্ডের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল। ফ্লাডলাইটে হতে চলা এই ম্যাচ ঘিরে উন্মাদনা তুঙ্গে। চলতি মরসুমে ইতিমধ্যেই দুটি ডার্বির সাক্ষী থেকেছে কলকাতা। যার মধ্যে একটি ভেস্তে গিয়েছে দর্শক হাঙ্গামায়। দ্বিতীয়টিতে আয়োজক মোহনবাগান টিকিটের দাম অনেকটা বাড়িয়ে দেওয়ায় মাঠে দর্শক সংখ্যা একেবারেই ডার্বিসুলভ ছিল না। আই লিগে সেই ডার্বি ম্যাচ গোলশূন্য অবস্থায় শেষ হয়। এবার আইএফএ শিল্ডের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ফের মুখোমুখি কলকাতার দুই ফুটবল দৈত্য। যেখানে টিকিট বিক্রি থেকে শুরু করে দর্শক নিরাপত্তা সব দায়িত্বই রাজ্য ফুটবলের নিয়ামক সংস্থার। টিকিট বিক্রির বর্তমান পরিস্থিতিতে যুবভারতী পরিপূর্ণ হওয়ারই পূর্বাভাস মিলছে।
নয়ই ফ্রেবুয়ারির পর শিল্ডের সেমিফাইনালে রবিবার আবার ডার্বি ম্যাচ। একমাস আগে মরগ্যানের দলের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে মোহনবাগানের লক্ষ্য ছিল অন্তত এক পয়েন্ট। একমাস পর অবশ্য বদলে গেছে সবুজ বাগানের পুরো চিত্রটাই। বড়ম্যাচে নামার আগে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে মোহনবাগান ফুটবলাররা। ওডাফাদের মতই চনমনে কোচ করিম বেঞ্চিরিফাও। শিল্ডের সেমিফাইনাল। তাই এখানে অঙ্ক একটাই। জিতে জায়গা করে নিতে ফাইনালে।সুপার সানডে-তে শিল্ডের মেগা সেমিফাইনালের আগে মোহনবাগান কোচ বলছেন, ৯ ফ্রেবুযারীর ডার্বির পারফরম্যান্সে কিছুটা উন্নতি করতে পারলেই,তারা তাদের লক্ষ্যে পৌঁছতে পারবেন।
যুবভারতীতে বড়ম্যাচের ইতিহাসে সবচেয়ে কম দর্শক হয়েছিল নয়ই ফ্রেবুযারী শেষ ডার্বিতে। মাত্র পঁচিশ হাজার দর্শক সেদিন মাঠে এসেছিলেন। যা বড়ম্যাচের পরিবেশের সঙ্গে একেবারেই মানানসই নয়। রবিবারের ডার্বিতে অবশ্য যথেষ্ট দর্শক হবে বলে মনে করছেন আইএফএ সচিব উত্‍পল গাঙ্গুলি।
নিরাপত্তার দিক থেকে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে দাবি করেছেন আইএফএ সচিব। রবিবার দর্শকদের সচতেন করতে কাগজে বিজ্ঞাপনও দিচ্ছে তারা। বিকেল চারটে সময়ই খুলে দেওয়া হবে স্টেডিয়ামের গেট। তাই আইএফএ সচিবের আবেদন ঝামেলা এড়াতে যত দ্রুত সম্ভব যেন দর্শকরা মাঠে আসেন। আর খেলার স্পিরিট বজায় রেখে খেলা দেখেন।