সোনা অধরা, ব্রোঞ্জ জিতে মালেশ্বরীর সঙ্গে ইতিহাসের পাতায় মেরি

Last Updated: Wednesday, August 8, 2012 - 19:06

সোনার দৌড় থেমে গেল মেরি কমের। লন্ডন অলিম্পিকে মহিলাদের বক্সিংয়ে ৫১ কেজি বিভাগে সেমিফাইনালে ব্রিটেনের নিকোলা অ্যাডামসের কাছে হেরে গেলেন ভারতীয় মহিলা বক্সার। লন্ডন অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জিতে নতুন ইতিহাস গড়লেন তিনি। অলিম্পিকে এই বারই চালু হয়েছে মহিলাদের বক্সিং ইভেন্টে। আর প্রথম বারেই বিজয়ী তালিকায় নাম তুলে ইতিহাসের পাতায় ঢুকে গেলেন মেরি। ২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিকেও এই একই ইতিহাস গড়েছিলেন কর্ণম মালেশ্বরী। সেবারও প্রথম বার অলিম্পিকে অনুষ্ঠিত হয়েছিল মহিলাদের ভারত্তোলন ইভেন্ট। প্রথম বারেই ব্রোঞ্জ জিতে আগেই ইতিহাস গড়েছিলেন মালেশ্বরী। এবার সেই একই বন্ধনীতে ঢুকে পড়লেন মেরি কম।
প্রথম রাউন্ড থেকেই ম্যাচের দখল নিয়েছিলেন বিশ্বের দুনম্বর বাছাই নিকোলা অ্যাডামস। ৪ টি রাউন্ডেই পয়েন্টে এগিয়ে থাকেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৬-১১ পয়েন্টে ম্যাচ হেরে যান ওই মণিপুরি কন্যা। আর মাত্র একধাপ এগোলেই সামনে ছিল অলিম্পিকের সোনা জয়ের লড়াই। প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে মেরি কমের সেই জয়ের স্বপ্নেই বিভোর ছিল গোটা দেশ। কিন্তু শেষপর্যন্ত স্বপ্নভঙ্গ। সেমি ফাইনাল থেকেই বিদায় নিতে হল ভারতের মেরি কমকে। চলতি বছরের মে মাসেই বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে এই নিকোলার কাছেই হেরে গিয়েছিলেন তিনি।
এক সময় বাড়িতে কেউ জানতেন না তিনি বক্সার। একবার সংবাদপত্রে ছবি বেড়োনোর পর মা বাবা জানতে পারেন তাঁদের মেয়ে মেরিকম একজন বক্সার। ইম্ফলের প্রত্যন্ত গ্রাম কাংথেই থেকে লন্ডন অলিম্পিক উত্থান সংগ্রামী মেরির। যমজ সন্তানের মা মেরি কমই এখন লন্ডন অলিম্পিকে বক্সিংয়ের রিং দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছেন। সোমবারই কোয়ার্টার ফাইনালে টিউনিশিয়ার বক্সার মারোয়া রাহালিকে হারিয়ে দেশের জন্য ব্রোঞ্জ নিশ্চিত করে ফেলছিলেন তিনি। অলিম্পিকে যে কোন পদক জেতা সম্মানের ব্যাপার, কিন্তু সোনাতেই পাঞ্চ মারতে মরিয়া বলে জানিয়েছিলেন তিনি। হল না স্বপ্নপূরণ। প্রতিপক্ষ শক্ত হলেও নিজের সেরাটা দিলেন মেরি। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েও অলিম্পিকে অংশগ্রহণের স্বপ্ন ছিল অধরা। সেই স্বপ্নকে ব্রোঞ্জ জিতে পূরণ করলেন ভারতের এই মহিলা বক্সার।



First Published: Wednesday, August 8, 2012 - 19:46


comments powered by Disqus