তীর ভেঙে অবনমন বাঁচাল মোহনবাগান

পৈলান অ্যারোজের বিরুদ্ধে ২-০ গোলে জিতে আইলিগে অবনমন কার্যত বাঁচিয়ে ফেলল মোহনবাগান। প্রথমার্ধে ওডাফার গোলে এগিয়ে যায় মোহনবাগান। ম্যাচের ২৬ মিনিটে ওডাফার গোলে এগিয়ে যেতেই পৈলান অ্যারোজের বিরুদ্ধে চাপ সৃষ্টি করে করিমের দল। কিন্তু প্রথম একাদশে ইচেকে বসিয়ে রেখে দল নামানোয় ডিফেন্সের দুর্বলতা আরও একবার প্রকাশ্যে এল অ্যারোজের মত দলের বিপক্ষেও।

Updated: Apr 28, 2013, 07:50 PM IST

মোহনবাগান (২) পৈলান অ্যারোজ (০)
(ওডাফা, জ্যাকবস)
পৈলান অ্যারোজের বিরুদ্ধে ২-০ গোলে জিতে আইলিগে অবনমন কার্যত বাঁচিয়ে ফেলল মোহনবাগান। প্রথমার্ধে ওডাফার গোলে এগিয়ে যায় মোহনবাগান। ম্যাচের ২৬ মিনিটে ওডাফার গোলে এগিয়ে যেতেই পৈলান অ্যারোজের বিরুদ্ধে চাপ সৃষ্টি করে করিমের দল। কিন্তু প্রথম একাদশে ইচেকে বসিয়ে রেখে দল নামানোয় ডিফেন্সের দুর্বলতা আরও একবার প্রকাশ্যে এল অ্যারোজের মত দলের বিপক্ষেও।
প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধে মোহনবাগানের হয়ে ব্যবধান বাড়ান কুইন্টন জ্যাকবস। মোহনবাগানের জার্সি গায়ে আইলিগে জ্যাকবসের এটি প্রথম গোল। এই ম্যাচ জয়ের ফলে ২৪ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট আইলিগের অবনমন কার্যত বাঁচিয়ে ফেলল মোহনবাগান।
পেটের সমস্যার জন্য আটচল্লিশ ঘন্টা আগেও হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। দলের সঙ্গে অনুশীলন করতেও পারেননি ওডাফা। এদিন কলকাতা থেকে কল্যানীতে পৌঁছন সকালে। মাঠে নেমেই পৈলান অ্যারোজের বিরুদ্ধে দুরন্ত গোল করে দুই ম্যাচ পর জয়ের রাস্তায় নিয়ে আসেন মোহনবাগানকে। ম্যাচ জয়ের পর ওডাফা মাঠে শুয়ে রইলেন পনেরো মিনিট। মুখে বলছেন, সকালে দীর্ঘযাত্রার ধকল। আসলে কি তাই!
নাকি অবনমনের জগদ্দল পাথর সরানোর মত কঠিনতম কাজটা করার পর লড়াই শেষের ক্লান্তি। কিং কোবরার মুখে স্বস্তির হাসি। ম্যাচের সেরা হওয়া আরেক গোলদাতা কুইন্টন জ্যাকবস সেরার শিরোপা উত্সর্গ করলেন সতীর্থদের।