জামিন পেলেন পমার্সবাখ

Last Updated: Saturday, May 19, 2012 - 17:37

মার্কিন মহিলার শ্লীলতাহানির অভিযোগে জামিন পেলেন অভিযুক্ত অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার লিউক পমার্সবাখ। জামিন পেয়ে তিনি বলেন ভারতীয় বিচারব্যবস্থার উপর তাঁর পূর্ণ আস্থা রয়েছে। যদিও ৩০ হাজার টাকা মূল্যের দুটি জামিন জমা দিতে হয় তাঁকে। তাঁর পাসপোর্টও জমা রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
আজ ফের দিল্লি আদালতে হাজিরা দিতে হয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ক্রিকেটার লিউক পমার্সবাখকে। আজই নির্ধারিত হয়ে যাবে পমার্সবাখের জামিনের মেয়াদ বাড়বে না তাঁকে পুলিসি হেফাজতে পাঠানো হবে। গতকাল তাঁর অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর করে আদালত। এক মার্কিন মহিলার শ্লীলতাহানির চেষ্টা এবং তাঁর প্রেমিক সাহিল পীরজাদাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে অস্ট্রেলিয়ান এই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে। ওই মার্কিন মহিলার প্রেমিক এখন একটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি। আজ তাঁর বয়ান নথিভুক্ত করতে যাবে দিল্লি পুলিস।
এই ঘটনায় প্রশ্ন উঠেছে পুলিসের ভূমিকা নিয়েও। কেন হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ আদালতে পেশ করা হয়নি, গতকালই সে প্রশ্ন তোলে আদালত। আজই দিল্লি পুলিসকে হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ এবং সাহিলের আঘাত কতটা গুরুতর তার মেডিক্যাল রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে।
অন্যদিকে, রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু কর্তা সিদ্ধার্থ মালিয়ার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে চলেছেন পমার্সবাখের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ আনা মার্কিন মহিলা। তাঁর দাবি, নিজের টুইটের জন্য সিদ্ধার্থ মালিয়াকে দুঃখপ্রকাশ করতে হবে। এব্যাপারে ইতিমধ্যেই নোটিস পাঠিয়েছেন ওই মার্কিন মহিলার আইনজীবী। মামলাটি পাতিয়ালা মহিলা আদালতে উঠবে। গতকাল বিকেলে সিদ্ধার্থ মালিয়া টুইট করেন, পার্টিতে ওই মহিলার আচরণ কারও হবু স্ত্রীর মতো ছিল না।তাঁর দাবি, পার্টি চলাকালীন ওই মহিলা তাঁর অন্তরঙ্গ হওয়ার চেষ্টা করছিলেন। পরে একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাত্‍কার দেওয়ার সময়ও নিজের বক্তব্যে অনড় থাকেন আরসিবি কর্তা। তাঁর দাবি, তিনি ওই মহিলার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলেননি। যা ঘটেছিল, তাই বলেছেন। তবে পমার্সবাখের জন্য সম্ভবত এবছরের আইপিএলের দরজা বন্ধ হতে চলেছে। টিম মালিক বিজয় মালিয়া জানিয়ে দিয়েছেন তদন্ত সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত আর কোনও ম্যাচ খেলতে পারবেন না পমার্সবাখ। অন্যদিকে আজই দিল্লি মহিলা কমিশনের কাছে যাচ্ছেন মার্কিন ওই মহিলা।



First Published: Saturday, May 19, 2012 - 17:37


comments powered by Disqus