চুম্বন-চমকে বাজিমাত বাদশার

Last Updated: Tuesday, May 29, 2012 - 15:24

আইপিএল আর শাহরুখ। মঙ্গলবার ভর দুপুরে ৩৭ ডিগ্রির কলকাতাকে ইডেনমুখী করতে শুধু এই দুটো ফ্যাক্টরই যে যথে, তা আরও একবার দেখল ২৯ মে ২০১২-র পরিবর্তনের কলকাতা। প্রায় ১ লাখ মানুষের উপস্থিতিতে গ্যালারি উপচে পড়া ভিড়ের মাঝখানে তিনি এলেন, নাচলেন, জয় করলেন। সংবর্ধনা শেষে দিদির কপালে এঁকে দিলেন স্নেহচুম্বন। 'ধিতাং ধিতাং বোলে'-র তালে পা মেলালেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর। সাক্ষী থাকল সারা দেশে টিভির পর্দায় চোখ রাখা অগণিত মানুষ।
সকাল থেকেই ইডেনে কাতারে কাতারে মানুষের ভিড়ে পরিস্থতি সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে বিশাল পুলিসবাহিনীকে। এদিনের ইডেনে ছিল সকলের জন্য অবারিত দ্বার। প্রায় ২ ঘণ্টার অধীর অপেক্ষার পর কিং খান ঢুকলেন তাঁর নাইটদের নিয়ে। সঙ্গে টিমের `কো-ওনার` জুহি চাওলা। নাইটদের থিম সং 'করবো, লড়বো, জিতবো রে' ছাপিয়ে তখন দর্শকদের উচ্ছ্বাস আর হাততালি। তার মধ্যেই মাঠে তৈরি মঞ্চে বাংলা ব্যান্ডের সঙ্গে পা মেলালেন বাংলার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর। তাঁকে ঘিরে জিত্, লকেট, দেব, সোহমরা। একটু তফাতে জুহি। পিছনে পুরো টিম।
হাততালি আর উচ্ছ্বাসের মাঝেই মঞ্চে এলেন মুখ্যমন্ত্রী। হাত ধরে মঞ্চে তুললেন রাজ্যপালকেও। সিল্কের আকাশি উত্তরীয় আর বেতের ঝুড়িতে সাজানো নকূড়ের সন্দেশে নাইটদের অভ্যর্থনা জানিয়ে বললেন, কলকাতার জয়ে আমি গর্বিত। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূয়সী প্রশংসা করে রাজ্যপাল বলেন, "এটাই বাংলার প্রকৃত পরিবর্তন। এই পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতিই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিয়েছিলেন।" উত্তরীয় ও মিষ্টির পাশাপাশি টিমের প্রত্যেককে এক ভরি করে সোনার চেনও উপহার দেওয়া হয় রাজ্য সরকারের তরফে। নাইটদের থিম সং-এর তালে নকূড়ের তৈরি কেক-সন্দেশ কাটলেন শাহরুখ, জুহি, গম্ভীর। সবশেষে আইপিএল ট্রফি নিয়ে মাঠ পরিক্রমা।
রবিবার রাতে দুরন্ত জয়ের পর থেকেই নাইট জ্বরে আক্রান্ত শহর। মঙ্গলবার সকালে হাজরা মোড়ে প্রাথমিক সংবর্ধনার পর হুড-খোলা গাড়িতে ক্রিকেটাররা যদুবাবুর বাজার হয়ে পৌঁছন এক্সাইড মোড়ে। সেখান থেকে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের নর্থ থেকে রেড রোড হয়ে নাইটরা পৌঁছন মহাকরণে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা নাইট রাইডার্সের ক্রিকেটাররা পৌঁছন ইডেন গার্ডেন্সে। সেখানেই বাঙালি স্টাইলে, বাংলা গানে, বাঙালি মিষ্টিতে, বাংলার তারকা খচিত মঞ্চে নাইট বরণ করল বাংলার সরকার।



First Published: Tuesday, May 29, 2012 - 19:55


comments powered by Disqus