স্বর্গোদ্যানে সচিনের শেষ যুদ্ধের `অসুর` ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়ে গেলেন

Last Updated: Monday, December 16, 2013 - 16:17

ইডেন গার্ডেনে সচিন তেন্ডুলকরের শেষ টেস্টে তিনি একেবারে ভিলেন বনে গিয়েছিলেন। স্বর্গোদ্যানে ক্রিকেট ভগবানের শেষ লড়াইয়ে তিনি ছিলেন অসুরের ভূমিকায়। ক্যারিবিয়ান স্পিনার শেন সিলিংফোর্ড নিয়েছিলেন সচিনের উইকেট। ১৯৯ তম টেস্টে সিলিংফোর্ডের বলে ১০ রানে এলবিডব্লু হয়ে গিয়েছিলেন সচিন।

ইডেনে সেদিন আম্পয়ার নাইজেল লংয়ের বিতর্কিত সিদ্ধান্তের শিকার হয়ে সিলিংফোর্ডের বলে যখন সচিন প্যাভিলিয়নে ফিরে যাচ্ছিলেন, তখন গোটা ইডেনে ছিল দীর্ঘশ্বাসের শব্দ। সচিনকে আউট করে সিলিংফোর্ড কার্যত ভিলেনে পরিণত হয়েছিলেন। সেই সিলিংফোর্ডকে অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত করল আইসিসি।

আইসিসি-র বায়োমেকানিক্যাল অ্যানালিসিসে সিলিংফোর্ডের বোলিং অ্যাকশনে অবৈধ হিসাবে ধরা পড়ে। সিলিংফোর্ডের সঙ্গে মার্লন স্যামুয়েলেসের বোলিং ডেলিভারিও অবৈধ ঘোষিত হয়। তাঁর সতীর্থ মার্লন স্যামুয়েলসকেও কুইকার বোলিং করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে আইসিসি।

আইসিসি এক বিবৃতির মাধ্যমে জানায়, শিলিংফোর্ডের অফস্পিন এবং দুসরা দুই ক্ষেত্রেই হাতের কনুই আইসিসি কর্তৃক নির্ধারিত সীমা ১৫ ডিগ্রী ছাড়িয়ে যায়। এই ‍কারনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শিলিংফোর্ডকে বোলিং করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অবশ্য শিলিংফোর্ড অ্যাকশন শুধরে নিয়ে করে বিশুদ্ধ একটি বিশ্লেষণ আইসিসিকে জমা দিলে এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই দুই বোলার গত ১৬ মুম্বাইয়ে ভারতের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্ট চলার সময়ে অভিযুক্ত হন। পরে ২৯ নভেম্বর অস্ট্রেলিয়ার পার্থে বায়োমেকানিক্যাল অ্যানালিসিসের জন্য পাঠানো হয় তাঁদেরকে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চলতি সিরিজেও অবশ্য বল করে যাওয়ার অনুমতি পান এই জুটি।

অন্যদিকে, স্যামুয়েলসের বোলিং বিশ্লেষণ যাচাই করে দেখা যায়, তার অফস্পিন বোলিং ঠিকই আছে তবে কুইকার ডেলিভারির ক্ষেত্রে তার কনুই সীমা ছাড়িয়ে যায়। এ কারনেই তাকে কুইকার বোলিং করা থেকে বিরত থাকার জন্য নির্দেশ দিয়েছে আইসিসি। শিলিংফোর্ড এর আগে ২০১০ সালের ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়ে সন্দেহজনক বোলিং অ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ হন। পরে অ্যাকশন শুধরে নেওয়ায় ২০১১ সালের জুন মাসে আইসিসি সিলিংফোর্ডের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়।



First Published: Monday, December 16, 2013 - 16:17


comments powered by Disqus