‘জোহানেসবার্গে খেলে এসেছি, পারথে ভয় নেই’

জোহানেসবার্গের মতো কঠিন উইকেটে খেলে এসেছে, পারথের সবুজ পিচ দেখিয়ে এই দলকে চমকানো যাবে না। হাবেভাবে তো বটেই, সরাসরি বক্তব্যেও সেই কথা বুঝিয়ে দিলেন বিরাট কোহলি।

Sourav Paul | Updated: Dec 13, 2018, 02:29 PM IST
‘জোহানেসবার্গে খেলে এসেছি, পারথে ভয় নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট ব্যাটসম্যানের যে শরীরী ভাষা, যে মেজাজ থাকা দরকার, তা বিরাটের আছে। বলা ভাল যতটা প্রয়োজন তার থেকে একটু বেশিই আছে। তার প্রমাণ আরও একবার মিলল। বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দল ভারত, জোহানেসবার্গের মতো কঠিন উইকেটে খেলে এসেছে, পারথের সবুজ পিচ দেখিয়ে এই দলকে চমকানো যাবে না। হাবেভাবে তো বটেই, সরাসরি বক্তব্যেও সেই কথা বুঝিয়ে দিলেন বিরাট কোহলি।

আরও পড়ুন- পারথের পিচ কেমন? জানিয়ে দিলেন কিউরেটর

অ্যাডিলেডে জয় দিয়ে সিরিজ শুরু করেছে ভারত। পারথে ১-০ এগিয়ে থেকেই শুরু করবে তাঁরা। তবে এই টেস্টে কোনও দলই যে অ্যাডভান্টেজ নিয়ে নামবে না, তাও পরিষ্কার করে দেন বিরাট।

আরও জানুন- পারথে দ্বিতীয় টেস্টে নামার আগে চোট সমস্যা ভারতীয় শিবিরে, ১৩ সদস্যের দলে পাঁচ পেসার

পারথে একেবারে ঘাসে মোড়া উইকেট বানিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। স্টাম্প সামনে না  থকালে বোঝাই যাচ্ছে না কোনটা পিচ আর কোনটা মাঠ। জাস্টিন ল্যাঙ্গাররা ভেবেছে, গ্রিন টপেই ভারতকে নাকানিচুবানি খাইয়ে দেবে স্টার্ক, কামিন্স, হ্যাজেলউডরা। সেই মতো পেস বোলিংকেও অগ্রাধিকার দিচ্ছে তারা। তবে বিরাট সাফ জানিয়ে দিলেন, “সবুজ উইকেটে তাঁরা কোনও ভিনগ্রহী নন। জোহানেসবার্গের মতো ক্রিকেট পিচে খেলে এসেছে ভারতীয় দল। অতীতে এই ধরনের উইকেটে বহুবার খেলেছি আমরা। এটা আমাদের কাছে নতুন কিছু নয়।”

২০১২ সালেও পারথের এই উইকেটে খেলে গিয়েছেন বিরাট। সেটা জোহানেসবার্গের উইকেটের ধারের কাছেও ছিল না বলে দাবি ইন্ডিয়ান ক্যাপ্টেনের। তবে সেবার টেস্টটা হেরেছিল ভারত। সেটাও খুব বিশ্রী ভাবেই। প্রথম ইনিংস (৪৪) ও দ্বিতীয় ইনিংসে (৭৫) বিরাট রান পেলেও ধোনির ভারত সেবার অস্ট্রেলিয়ার কাছে এক ইনিংস ও ৩৭ রানে হেরেছিল। কিন্তু এবার যে সেই হারের পুনরাবৃত্তি ঘটবে না তা প্রত্যয় নিয়েই বলছেন বিরাট।

সাংবাদিক বৈঠকে কোহলি জানিয়েছেন, টেস্ট জিততে হলে ২০ উইকেট নেওয়া প্রয়োজন। আর সেটা ভারতীয় বোলাররা পারবে বলেই দাবি তাঁর। বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দলের অধিনায়ক আরও জানাচ্ছেন, “পারথে কেউ অ্যাডভান্টেজ নিয়ে নামবে না। বরং দুই দলই টেস্ট জেতার সমান ক্ষমতা নিয়েই মাঠে নামবে।” এই টেস্ট উত্তেজক হবে বলেও মত তাঁর।