ইউএস ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডে ফেডেরার, মারে

ইউএস ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডে ফেডেরার, মারে

প্রত্যাশা অনুযায়ী সহজেই ইউ এস ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছলেন দুই তারকা রজার ফেডেরার আর অ্যান্ডি মারে। ৩৪ বছর বয়সেও আর্শার অ্যাশ স্টেডিয়ামে ঝড় তুললেন সুইস সুপারস্টার। এক ঘণ্টার কিছু বেশি সময়ে আর্জেন্টিনার মায়েরকে স্ট্রেট সেটে উড়িয়ে দেন ১৭টি গ্র্যান্ডস্লামের মালিক। ফেডেরার ম্যাচ জেতেন ৬-১, ৬-২, ৬-২। এদিন গোটা ম্যাচে ১২ এস আর ২৯ উইনার মারেন ফেডেরার। ৬ বার বিপক্ষের সার্ভিস ভাঙেন সুইস তারকা। এই বয়সে ফেডেরারকে এতটা দাপটের সঙ্গে খেলতে দেখে অবাক অনেকেই।

অ্যান্ডির মারে ধরাশায়ী জোকোভিচ

সাতাত্তর বছর পর ব্রিটেনে ফিরল উইম্বলডন। স্বপ্নের ফাইনালে নোভাক জোকোভিচকে স্ট্রেট সেটে হারিয়ে উইম্বলডন জিতলেন অ্যান্ডি মারে। ১৯৩৬ সালে ফ্রেড পেরির ৭৭ বছর পর উইম্বলডন জিতলেন কোনও ব্রিটিশ খেলোয়াড়। খেলার ফল, ৬-৪, ৭-৫, ৬-৪।

মেগাম্যাচে মুখোমুখি জোকোভিচ-মারে

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন পুরুষদের ফাইনালে আজ মুখোমুখি নোভাক জোকোভিচ ও অ্যান্ডি মারে। এই নিয়ে তৃতীয় বারের জন্য গ্র্যান্ড স্লাম ফাইনালে মুখোমুখি শীর্ষ বাছাই জোকোভিচ ও তৃতীয় বাছাই মারে। দু`বছর আগে ২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিলেন জোকোভিচ-মারে। সেবার মারেকে স্ট্রেট সেটে(৬-৪,৬-২,৬-৩) হারিয়েছিলেন জোকোভিচ। গত বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালেও মারেকে হারান জোকোভিচ।

জিতলেন রজার, শেষ চারে মুখোমুখি মারে

প্রত্যাশা মতোই সঙ্গাকে হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালে পৌঁছে গেলেন রজার ফেডেরার। খেলার ফল ৭-৬, ৪-৬, ৭-৬, ৩-৬, ৫-৬। এই নিয়ে মোট দশ বার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালে পৌঁছলেন ফেডেরার। সেই সঙ্গেই ৩৩টি গ্র্যান্ড স্লাম সেমিফাইনালে খেলার রেকর্ড গড়লেন তিনি। সেমি ফাইনালে ফেডেরারের প্রতিপক্ষ তৃতীয় বাছাই অ্যান্ডি মারে।

ফেডেরারকে ফের হারালেন মারে

ফেডেরারকে হারালেন অ্যান্ডি মারে। সাংহাই মাস্টার্সের সেমিফাইনালে মারে স্ট্রেট সেটে হারালেন ফেডেরারকে। ম্যাচের ফল ৬-৪, ৬-৪। ইউএস ওপেনে জীবনের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের পর অ্যান্ডি মারে দারুণ ছন্দে।

টেনিস বিশ্বে জোকার রাজ ফিরল

অ্যান্ডি মারের চাপে কোণঠাসা হয়ে টেনিস বিশ্বে কিছুটা হারিয়ে গিয়েছিলেন আদরের জোকার (নোভাক জকোভিচকে আদর করে এই নামেই ডাকা হয়)। সেই জকোভিচই ফের ফিরে এলেন চায়না ওপেনের ফাইনালে জিতে। ফাইনালে সঙ্গাকে ৭-৬, ৬-২ হারালেন জকোভিচ।