আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন রূপা গাঙ্গুলি

আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন রূপা গাঙ্গুলি

আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন রূপা গাঙ্গুলি। পঞ্চম দফার ভোটের দিন এক মহিলার সঙ্গে ধাক্কাধাক্কির ঘটনায় রূপার বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করে পুলিস। আজ হাওড়া আদালতে আত্মসমর্পণ করেন রূপা গাঙ্গুলি। এরপর আদালতে জামিনের আবেদন করেন তিনি। ব্যক্তিগত ৫০০ টাকার বন্ডে আদালত রূপার জামিন মঞ্জুর করেছে।

উত্তরাখণ্ডে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের উত্তরাখণ্ডে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

উত্তরাখণ্ডে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র। হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই শীর্ষ আদালতে যাচ্ছে তারা। উত্তরাখণ্ডে কী পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করেছিল মোদী সরকার, শীর্ষ আদালতে তাই তুলে ধরা হবে।

সৌরভ চৌধুরী খুনের ঘটনায় ৮ জনকে ফাঁসির সাজা, ১ জনকে যাবজ্জীবন সৌরভ চৌধুরী খুনের ঘটনায় ৮ জনকে ফাঁসির সাজা, ১ জনকে যাবজ্জীবন

বামনগাছির প্রতিবাদী ছাত্র সৌরভ চৌধুরী খুনের ঘটনায় ৮জনকে ফাঁসির সাজা শোনালো বারাসত আদালত। ১জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অপরাধীদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাকি ৩জনের ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গত সপ্তাহেই দোষী সাব্যস্ত হন অভিযুক্ত  ১২জন।

হ্যান্ড সাইরেন বাজিয়ে মদন মিত্রকে আদালতে হাজির করল পুলিস

হ্যান্ড সাইরেন বাজিয়ে মদন মিত্রকে আদালতে হাজির করল পুলিস। সাংবাদিকরা মদনের উদ্দেশে কিছু বলার চেষ্টা করলেও সাইরেনের শব্দে শোনা যায়নি কিছুই। নারদ অস্বস্তির হাত থেকে মদন মিত্রকে বাঁচাতেই কি পুলিসের এই অতি সক্রিয়তা? প্রশ্ন উঠছে।

কাওয়ের অনুগামীকে নৃশংসভাবে খুনের চেষ্টার ঘটনায় এখনও অধরা অভিযুক্তরা কাওয়ের অনুগামীকে নৃশংসভাবে খুনের চেষ্টার ঘটনায় এখনও অধরা অভিযুক্তরা

ট্যাংরাকাণ্ডে এখনও অধরা অভিযুক্তরা। কাল প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর শম্ভুনাথ কাওয়ের অনুগামীকে নৃশংসভাবে খুনের চেষ্টার পরেও কেন এখনও ধরপাকড় নয়? তাই নিয়ে ক্ষোভে ফুঁসছেন স্থানীয়রা।

রাজ্যকে আকার দিতে অবশ্যই প্রয়োজন আইনের রাজ্যকে আকার দিতে অবশ্যই প্রয়োজন আইনের

আগে নাম ছিল সাংবিধানিক দফতর। এখন সেই দফতরই নাম পালটে হয়েছে আইন দফতর। রাজ্যকে পরিপূর্ণতা দিতে অবশ্যই প্রয়োজন আইনের। আইন বিভাগ ছাড়া রাজ্যকে ঠিক পথে চালিত করা সম্ভব নয়। রাজ্যের আইন শৃঙ্খলাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রয়োজন আইন বিভাগের।

নির্যাতিতাকে অপমানজনক প্রশ্ন বিচারকের নির্যাতিতাকে অপমানজনক প্রশ্ন বিচারকের

ধর্ষণ নিয়ে রোজ রোজ যেন ছেলেখেলা হচ্ছে। একে তো সমাজে নারীদেরকে পুরুষেরা নিজেদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি বলে মনে করেছেন। রোজ তাদের ওপর চলছে নারকীয় অত্যাচার। আবার সেই অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে নারীদের কপালে জুটছে আইন রক্ষককারীদের কাছ থেকে অপমানজনক মন্তব্য। এমনই ঘটনার নিদর্শন পাওয়া গেল স্পেনে।

কান্দিকাণ্ডে পুলিস সুপারের রিপোর্টে ক্ষোভ প্রকাশ হাইকোর্টের কান্দিকাণ্ডে পুলিস সুপারের রিপোর্টে ক্ষোভ প্রকাশ হাইকোর্টের

কান্দিকাণ্ডে পুলিস সুপারের রিপোর্টে ক্ষোভ প্রকাশ করল হাইকোর্ট। কাউন্সিলর আদৌ অপহরণ হয়েছিলেন কি হননি? এই মূল প্রশ্নের উত্তরই নেই রিপোর্টে। এসপির রিপোর্ট তদন্তের ধারাবিবরণী ছাড়া কিস্যু নয়। মন্তব্য বিচারপতির।

রাজ্যের সমস্ত বিদ্যালয়ে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করল রাজ্য সরকার রাজ্যের সমস্ত বিদ্যালয়ে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করল রাজ্য সরকার

রাজ্যের সমস্ত স্কুলে এবার স্কুল শুরুর সময় জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক। এমনই নির্দেশ দিল রাজ্য সরকার। রাজ্য সরকারের নির্দেশের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই নির্দেশিকা জারি করেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

গণধর্ষণের হাত থেকে বাঁচতে তিনতলা থেকে ঝাঁপ তরুনীর গণধর্ষণের হাত থেকে বাঁচতে তিনতলা থেকে ঝাঁপ তরুনীর

গণধর্ষণের হাত থেকে বাঁচতে তিনতলা থেকে ঝাঁপ দিলেন এক তরুণী। গতকাল রাতে হাওড়ার লিলুয়ার ঘটনা।

আজ সারা দিন পাতিয়ালা হাউস কোর্টে যা চলল তাতে ক্ষুব্ধ শীর্ষ আদালত আজ সারা দিন পাতিয়ালা হাউস কোর্টে যা চলল তাতে ক্ষুব্ধ শীর্ষ আদালত

বারবার সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপের পরেও থামানো গেল না অশান্তি। আজ সারা দিন পাতিয়ালা হাউস কোর্টে যা চলল তাতে ক্ষুব্ধ শীর্ষ আদালত। ভয় আর আতঙ্কের অভূতপূর্ব পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল আদালত চত্বরে , মনে করছেন কপিল সিব্বব সহ সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত কমিশনাররা। পাতিয়ালা হাউস কোর্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে  দিনের শুরুতেই  নির্দেশ দিয়েছিল দেশের শীর্ষ আদালত। তার পরেও বুধবার নজিরবিহীন হাঙ্গামার সাক্ষী থাকল  পাতিয়ালা হাউস কোর্ট।কি হচ্ছে  পাতিয়ালা হাউস কোর্টে? শীর্ষ আদালতের সে প্রশ্নের  জবাব দিতে পারেননি দিল্লি পুলিসের কৌসুলি অজিত সিনহা। এর পরেই  পাতিয়ালা হাউস আদালতের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ছয় কমিশনার নিযুক্ত করে শীর্ষ আদালত। এরই  মধ্যে আদালতে পেশ করার সময় আক্রমণের মুখে পড়েন কানহাইয়া কুমার।

 মুম্বইয়ের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হল ডেভিড কোলম্যান হেডলির মুম্বইয়ের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হল ডেভিড কোলম্যান হেডলির

মুম্বইয়ের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হল ডেভিড কোলম্যান হেডলির। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোর একটি জেল থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তার বয়ান রেকর্ড করা হচ্ছে। প্রথম দিন পাঁচ ঘণ্টা সাক্ষ্য দেবে হেডলি। ছাব্বিশ এগারো জঙ্গি হামলায় ইতিমধ্যেই পাক-মার্কিন এই লস্কর এ তৈবা জঙ্গিকে রাজসাক্ষী ঘোষণা করা হয়েছে।

কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ

কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ। গতকালই ছয় অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। তবে আজ সাজা ঘোষণা করার আগে দুপক্ষের আইনজীবীর মতামত শুনবেন বিচারক। এরপরই চূড়ান্ত সাজা ঘোষণা করবেন তিনি।

 বারবার আদালতের ভর্তসনাতেও বদলাচ্ছে না বীরভূমের পুলিস! বারবার আদালতের ভর্তসনাতেও বদলাচ্ছে না বীরভূমের পুলিস!

বারবার আদালতের ভতর্‍সনাতেও বদলাচ্ছে না বীরভূমের পুলিস। পুলিস সুপারকে নির্দেশ দিয়েও কাজ না হওয়ায়, ক্ষুব্ধ আদালত এবার নির্দেশ দিল রাজ্য পুলিসের ডিজিকে।  দুটি ভিন্ন মামলায় ফের আদালতের তিরস্কারের মুখে সিউড়ি পুলিস।সিউড়ি হোক বা  মহম্মদবাজার। পুলিসের কাজে চরম অসন্তুষ্ট আদালত। বিচারক নিগ্রহের ঘটনায় সপ্তাহ খানেক আগে আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছিলেন সিউড়ি থানার IC সমীর কুপ্তি।  জমি সংক্রান্ত একটি মামলায় ফের আদালতের তিরস্কারের মুখে সেই একই  IC। এবং আবারও  নিঃশর্তে ক্ষমাপ্রার্থনা করলেন তিনি।   তবে আদালতে ক্ষমা চাইলেও কোর্টের বাইরে সমীর কুপ্তিকে দেখা গেল সম্পূর্ণ অন্য মেজাজে।

রাজ্যের তথ্যের অধিকার কমিশনারের পদ তিনমাস ধরে শূন্য! রাজ্যের তথ্যের অধিকার কমিশনারের পদ তিনমাস ধরে শূন্য!

রাজ্যের তথ্যের অধিকার কমিশনারের পদ তিনমাস ধরে শূন্য। সমস্যায় পড়ছেন সাধারণ মানুষ। জমছে ফাইলের পাহাড়। তথ্য জানার অধিকার সংক্রান্ত মামলাগুলি কার্যত থমকে। রায় দিতে গিয়ে অসুবিধায় পড়ছে আদালত। কোনও রাজ্যেই এই পদ কোনওভাবেই শূন্য রাখা যাবে না বলে সম্প্রতি একটি রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। তারপরেও কোনও হেলদোল নেই এ রাজ্যের তথ্যের অধিকার কমিশনের। ফেব্রুয়ারির মধ্যে কমিশনার নিয়োগ না হলে আশঙ্কার কালো মেঘ দেখছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। কারণ, কয়েকমাস পরেই ভোট। তার দামামা বেজে গেলেই কমিশনার নিয়োগের প্রক্রিয়াটিও কার্যত চলে যাবে ঠান্ডা ঘরে। ফলে ভোগান্তি বাড়বে সাধারণ মানুষের। বিভিন্ন ক্ষেত্রে তথ্য জানার অধিকার নিয়ে যাঁরা হাজির হন কমিশনে। সঠিক তথ্য জানতে না পেরে যাঁরা মামলা করেন আদালতে, সেই বিচার প্রক্রিয়াও ক্রমশই দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হবে।