ধর্ষণে অভিযু্ক্তের নৃশংস হত্যাকন্ডের পর এখনও কারফিউ উত্তপ্ত ডিমাপুর

ধর্ষণে অভিযু্ক্তের নৃশংস হত্যাকন্ডের পর এখনও কারফিউ উত্তপ্ত ডিমাপুর

এখনও কারফিউ চলছে নাগাল্যান্ডের ডিমাপুরে। বৃহস্পতিবার হঠাত্‍ই জেলে ঢুকে একদল উত্তেজিত জনতা এক ধর্ষণে অভিযুক্তকে জোর করে বের করে এনে পিটিয়ে হত্যা করে। এরপর তার দেহ ক্লক টাওয়ার থেকে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। এরমধ্যেই ৩ জন সরকারি আধিকারিককে সাসপেন্ড করে আইনি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে নাগাল্যান্ড সরকার। ঘটনার রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

কাশ্মীরে কারফিউ

পুলিসের গুলিতে ৪ জন নিহত হওয়ার জেরে কারফিউ জারি হল কাশ্মীরের শোপেন ও কুল্গাম জেলায়। শোপেন, জৈনপোরা ও কুল্গাম থানা এলাকায় কারফিউ জারি হয়েছে।

মোর্চার কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গ্রেফতার, শুরু জনতা কারফিউ

আজ থেকে পাহাড়ে শুরু হল জনতা কারফিউ। সকাল থেকেই পাহাড়ের পরিস্থিতি বেশ থমথমে। বন্ধ দোকানপাট। রাস্তায় লোকজন প্রায় নেই বললেই চলে। এরই মধ্যে আজ পাহাড়ের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে দার্জিলিং যাচ্ছেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভূস্বর্গের কারফিউয়ে আটক জেটলিও

আগুন লেগেছে ভূস্বর্গে। ফের একবার বেওনেট আর সেনাবাহিনীর টাইগার ভ্যানের টহলে কাশ্মীর। আর চেনা ছবি কারফিউ। রবিবার আরও তিনটি জেলায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। চলছে আর্মির ফ্ল্যাগ মার্চ। রাজনৈতিক নেতাদের প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জম্মু প্রশাসন। আজ সকালে জম্মু বিমানবন্দরে বিজেপি নেতা অরুণ জেটলিকে আটক করা হয়। তাঁকে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়।

কারফিউ উঠল কাশ্মীরে, ছন্দে ফিরছে উপত্যাকা

সংসদ হানার অভিযুক্ত আফজল গুরুর ফাঁসির এক সপ্তাহের পর ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে কাশ্মীর। কারফিউ তুলে নেওয়া হয়েছে উপত্যাকা থেকে। সেখানে ইন্টারনেট পরিষেবাও স্বাভাবিক করে দেওয়া হয়েছে। আজ সকাল থেকেই আবার রাস্তায় বেরিয়েছেন সাধারণ মানুষ। স্থানীয় দোকান ও বাজারও খুলেছে আগের মতোই। আফজলের ফাঁসির প্রতিবাদ দেখাতে গিয়ে গত কয়েকদিনে মোট ৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন। অন্ততপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছেন পুলিসের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধে।

আবার কারফিউ কাশ্মীরে

নতুন করে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার আশঙ্কায় ফের কারফিউ জারি হল কাশ্মীর উপত্যাকায়। কোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন যেন পাহাড়ে আফজল গুরুর স্মৃতিতে মিছিল করতে না পারে, তাই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে রাজ্য প্রশাসনের তরফে।

শেষ দেখা হল না আফজলের পরিবারের, কারফিউতে স্তব্ধ কাশ্মীর

তিহারের বন্ধ দরজার আড়ালে গতকাল আফজল গুরুর ফাঁসির পর এখন সরকার ও তাঁর পরিবারের মধ্যে শুধুই তোপ দাগার পালা। একদিকে কেন্দ্রীয় সরকার বলছে আফজলের ফাঁসির কথা আগেই জানানো হয়েছিল তাঁর পরিবারকে। অন্যদিকে সরকারের এই দাবি মানতে নারাজ গুরুর পরিবার।