ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে TMCP-এর দাপাদাপি, 'দিদি'র আদেশ 'সংযত' হও, 'শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান দাও' ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে TMCP-এর দাপাদাপি, 'দিদি'র আদেশ 'সংযত' হও, 'শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান দাও'

কলেজে কলেজে প্রতিনিয়ত বাড়ছে শিক্ষক নিগ্রহের ঘটনা। কখনও আধ্যাপক নিগ্রহ, কোথাও শিক্ষককে জগ ছুড়ে মেরেছেন তৃণমূলের 'তাজা' নেতা আরাবুল ইসলাম, আবার কখনও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক ঘেরাওকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ছাত্রনেতা 'শঙ্কু স্যার'। প্রসিডেন্সিতে শাসক দলের তাণ্ডবে ভাঙচুর হয় ঐতিহ্যের বেকার ল্যাব। সব ঘটনাতেই মুখ পুড়েছে শাসক দলের। বিগত ৪ বছরে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রদের সংযত হওয়ার বার্তা দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। ছাত্রদের শিক্ষকদের সম্মান করার উপদেশ দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, "সংযত আচরণই ছাত্রদের কাছ থেকে কাম্য। ছাত্ররা যৌবনের প্রতীক। সমাজের নেতা আপনারাই হবেন। শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান জানাবেন। বাড়ি থেকে বেরনোর সময় আমরা যেমন মায়েদের প্রনাম করি, শিক্ষকরাও আমাদের কাছে তেমনই সম্মানের। শিক্ষক দিবসের দিন, যেভাবে পাড়বেন শিক্ষকদের সম্মান করেবেন। পয়সা না থাকলে, বই কেনার টাকা না থাকলে, অন্তত পায়ে হাত দিয়ে প্রমাণ করুন"।     

তৃণমূল ছেড়েছেন লকেট, কিন্তু লকেটকে ছাড়েনি তৃণমূল  তৃণমূল ছেড়েছেন লকেট, কিন্তু লকেটকে ছাড়েনি তৃণমূল

দল বদল করেছেন তিনি। কিন্তু তৃণমূল ছাত্র পরিষদ ভুলতে পারেনি তাঁকে। পুরসভা ভোটের আগেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন অভিনেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু সেই লকেটের ছবি এবার জ্বলজ্বল করছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রচার পুস্তিকায়। গতকালই নেতাজি ইন্ডোরে মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতে তৃণমূলের ছাত্র নেতাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় এই বই। আর সেখানেই রয়েছে নারী ও শিশুকল্যাণ বিভাগে সরকার কী কী কাজ করেছে তার বিস্তারিত খতিয়ান। এই অংশেই দেখা যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর পাশে হাত জোড় করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন লকেট। কি করে বিজেপি নেত্রীর ছবি তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রচার পুস্তিকায় এল তা নিয়ে তৃণমূলের অন্দরেই তৈরি হয়েছে বিতর্ক।