সূচনা (দশমীর গল্প)

সূচনা (দশমীর গল্প)

চাকরি, টেনশন, ব্যস্ততা। বসব, বসব করে বসাই হয়নি অনেকদিন। কত মাস হবে, কে জানে! ছয় মাস, কিংবা সাত, কিংবা এক বছর। কতদিন তোমার সঙ্গে কথা হয় না!

মন খারাপ শুরু, তবে নবমীর আমেজ রাখতে নাছোড় আমবাঙালি, বনেদি বাড়িতে আজই উমার কৈলাসযাত্রা মন খারাপ শুরু, তবে নবমীর আমেজ রাখতে নাছোড় আমবাঙালি, বনেদি বাড়িতে আজই উমার কৈলাসযাত্রা

শুদ্ধ পঞ্জিকা মতে আজ সকাল  সাতটা থেকেই শুরু  দশমী । তবে তাকে আমল দিতে নারাজ আমবাঙালি। বরং অষ্টমীতে রাতভর প্যান্ডেল হপিংয়েও ক্লান্ত নয় শহরবাসী।  তাই পঞ্জিকা মতে আজ দশমী হলেও এক্কেবারে নবমীর আমেজ।

বিসর্জন বিষাদের সুর আরবসাগরের পাড়েও

দশমীর বিষাদের সুর আরবসাগরের পাড়েও। বেলা বাড়ার সঙ্গেই সঙ্গেই শিবাজী পার্ক, ডিএন নগরের পুজো, মুখার্জি পরিবারের পুজো কিমবা লোখান্ডওয়ালায় অভিজিতের পুজোয় শুরু হয়ে যায় সিঁদুর খেলা। সন্ধেয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মাধ্যমে শুরু হয় প্রতিমা নিরঞ্জন। দশমীর প্রতিমা নিরঞ্জনের পাশাপাশি মিলেমিশে একাকার হয়ে যায় দশেরা উদযাপনও।

আজ দশমী

পাঁচটা দিন ছেলে পুলে নিয়ে বাপের ঘরে কাটিয়ে আজ ফের কৈলাসে ফিরবেন উমা। মায়ের হাজার আর্তি সত্ত্বেও নিষ্ঠুর নবমী নিশি ফুরিয়ে সূর্য ওঠে। গিরিরাজের ঘর থেকে ভোলানাথের ঘরে ফিরে চললেন গণেশজননী। উত্সবে আমোদে পাঁচটা দিন কাটিয়ে বাঙালির ঘরে ঘরে তাই আজ বিষাদের সুর।

আজ দশমী

পাঁচটা দিন ছেলে পুলে নিয়ে বাপের ঘরে কাটিয়ে আজ ফের কৈলাসে ফিরবেন উমা। মায়ের হাজার আর্তি সত্ত্বেও নিষ্ঠুর নবমী নিশি ফুরিয়ে সূর্য ওঠে। গিরিরাজের ঘর থেকে ভোলানাথের ঘরে ফিরে চললেন গণেশজননী। উত্সবে আমোদে পাঁচটা দিন কাটিয়ে বাঙালির ঘরে ঘরে তাই আজ বিষাদের সুর।