সারদার মূল মামলায় জামিন সুদীপ্ত, দেবযানীর

পুলিসের গাফিলতিতে সারদা-কাণ্ডের পর দায়ের হওয়া মূল মামলায় জামিন পেলেন সুদীপ্ত সেন। তাঁর সহযোগী দেবযানী মুখোপাধ্যায়, অরবিন্দ সিং চৌহান ও মনোজ নাগেলেরও জামিন মঞ্জুর করেছে বিধাননগর আদালত।

এবার জেরার মুখে সারদার ডিরেক্টর দেবিকা

চিটফান্ড কাণ্ডে সারদাকর্তাকে জেরায় প্রতিদিনই উঠে আসছে নতুন নতুন তথ্য। মঙ্গলবারও বিধাননগর কমিশনারেট অফিসে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় সংস্থার আরেক ডিরেক্টর দেবিকা দাশগুপ্তকে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে সুদীপ্ত সেনের চিঠিতে নাম থাকা সজ্জন আগরওয়াল এবং ইস্টবেঙ্গল কর্তা দেবব্রত সরকারকে। জেরা করা হয়েছে সারদার কর্নধার সুদীপ্ত সেন এবং দেবযানী মুখোপাধ্যায়কেও।

গোপন নথির খোঁজে দেবযানীকে নিয়ে তল্লাসি পুলিসের

গোপন নথির খোঁজে দেবযানী মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে মিডল্যান্ড পার্কে সারদার মূল অফিসে তল্লাসি চালাল পুলিস। সকাল সাড়ে দশটা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত তল্লাসি চালিয়ে পুলিস প্রচুর রবার স্ট্যাম্প ও ফাইল বাজেয়াপ্ত করে। সারদার আয়- ব্যয় সংক্রান্ত বেশকিছু নথিপত্র উদ্ধার করেন গোয়েন্দারা। আয়কর সংক্রান্ত কিছু নথিও মেলে। বিষ্ণুপুর ও জাগুলিয়ায় সংস্থার সম্পত্তি সংক্রান্ত বেশ কিছু নথি উদ্ধার হয়।

সুদীপ্ত সেনের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা

সারদা-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের দাবিতে হাইকোর্টে দায়ের হল আরও একটি জনস্বার্থ মামলা। প্রধান বিচারপতি অরুণ মিশ্র ও বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির ডিভিশন বেঞ্চে প্রদেশ কংগ্রেসের আইনজীবী সেলের তরফে আজ জনস্বার্থ মামলাটি দায়ের করা হয়। আবেদনকারী নরেন্দ্র প্রসাদ গুপ্তার আবেদনের ভিত্তিতে ২মে এই মামলার শুনানি হবে।

লকআপে খাবার খাচ্ছেন না দেবযানী

নিউ টাউন থানা লক আপে পুলিসের দেওয়া খাবার খেতে অস্বীকার করেছেন সারদাকাণ্ডে ধৃত দেবযানী মুখোপাধ্যায়। গতকাল প্রাতঃরাশের  পর থেকে কিছুই চা-বিস্কুট ছা়ডা কিছুই খাননি তিনি। এর জেরে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সেকারণে থানায় সর্বক্ষণ একজন চিকিত্‍সককে রাখা হয়েছে।

সুদীপ্তদের ১৪ দিনের পুলিস হেফাজত

চিটফান্ড কাণ্ডে ধৃত সারদা গোষ্ঠীর কর্ণধার সুদীপ্ত সেন, দেবযানী মুখোপাধ্যায় ও অরবিন্দ সিং চৌহানের জামিনের আবেদন খারিজ করল আদালত। তাঁদের সকলকেই ১৪ দিনের পুলিস হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে বিধাননগর এসিজেএম আদালত। তারা চ্যানেলের করা মামলার ভিত্তিতে আজ জামিনের আবেদন খারিজ করে আদালত। বিচারকরা সুদীপ্তর আইনজীবীর কোনও আবেদনই মানতে চাননি বিচারক। সাত দিনের মধ্যে সুদীপ্ত সেনের বিরুদ্ধে নথি আদালতের সামনে আনার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

দেবযানীকে ফাঁসানো হয়েছে, দাবি পরিবারের

দেবযানীর পরিবার দাবি করছে দেবযানীকে ফাঁসানো হয়েছে। যদিও আত্মীয় এবং প্রতিবেশীদের অনেকেই স্বল্প সময়ে দেবযানীর এই আর্থিক শ্রীবৃদ্ধিতে রীতিমতো আশঙ্কিত হয়েছিলেন। ফলে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে, আত্মীয়-প্রতিবেশীদের কাছে যা বিস্ময়, তা কী করে চোখ এড়িয়ে গেল পরিবারের?