যে দেশে মেয়েদের থেকে বেশি ধর্ষিত হতে হয় ছেলেদের! যে দেশে মেয়েদের থেকে বেশি ধর্ষিত হতে হয় ছেলেদের!

আমাদের রাজ্যে ধর্ষণ ক্রমশ সংখ্যায় বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুধু রাজ্যেই বা কেন, গোটা দেশেই ধর্ষিতা হচ্ছেন মেয়েরা। কিন্তু জানেন কি, যে এই পৃথিবীতে এমন দেশও রয়েছে, যেখানে মেয়েদের থেকে অনেক বেশি ধর্ষিত হতে হয় ছেলেদের! না, তেমন কোনও খটমট নাম না সেদেশের। আপনি শোনেননি তেমনও নয়। আমেরিকাতেই এরকম। সেখানে মেয়েদের থেকে অনেক বেশি ধর্ষিত হতে হয় ছেলেদের। এর কারণ, সে দেশের জেলের পদ্ধতি। জেলের মধ্যে বা সামাজিক ক্ষেত্রেও সে দেশে সমকামিতাও যে বেশি। তাই যে সমস্ত পুরুষরা অপরাধ করে জেলে যায়, তাদের জেলের মধ্যেও ধর্ষণ  করা হয় বহু ক্ষেত্রে। আর এই সংখ্যাগুলো যোগ করে দেখা যাচ্ছে, প্রতিবছরই আমেরিকাতে মেয়েদের থেকে অনেক বেশি ধর্ষিত হতে হয় ছেলেদের। বুঝুন কাণ্ড!

আগুনে পুড়েই মৃত্যু হয়েছে ভাঙড়ের মহিলার, প্রাথমিক রিপোর্টের পর নিশ্চিত পুলিস আগুনে পুড়েই মৃত্যু হয়েছে ভাঙড়ের মহিলার, প্রাথমিক রিপোর্টের পর নিশ্চিত পুলিস

আগুনে পুড়েই মৃত্যু হয়েছে ভাঙড়ের মহিলার। ময়না তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টের পর নিশ্চিত পুলিস। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ধর্ষণ ও খুনের পর প্রমাণ লোপাটের জন্যই মহিলার দেহ পুড়িয়ে দিয়েছে দুষ্কৃতীরা।অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করেছে তদন্ত শুরু করেছে পুলিস। শীতের রাত।  শুনসান রাস্তাঘাট। আধঘুমে ভাঙড়। সোমনাথ কলোনির সামনের রাস্তা দিয়ে ফিরছিলেন এক ব্যক্তি। আচমকাই রাস্তার ধারে আগুন দেখে থমকে দাঁড়ান। কাছে গিয়ে ঠাহর করতেই বোঝা গেল পুড়ছে তরুণীর দেহ। কিছুক্ষণের মধ্যেই জড়ো হয়ে যায় লোকজন। খবর যায় কাশীপুর থানায়। ধর্ষণ ও খুনের পর প্রমাণ লোপাটের জন্যই দেহ পোড়ানোর চেষ্টা করেছে দুষ্কৃতীরা। দাবি এলাকার মানুষের। যেখানে দেহ উদ্ধার হয়েছে, তার খুব কাছে সংহিতা আবাসন প্রকল্প।  এলাকার মানুষের অভিযোগ, সন্ধের পর থেকে সমাজবিরোধীদের আখড়া হয়ে ওঠে প্রকল্প চত্বর। চলে অসামাজিক কাজকর্ম। সব জেনেও মুখে কুলুপ কাশীপুর থানার। দেহ উদ্ধারের পরই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর। সংহিতা প্রকল্পের ঠিকাদারির বরাত নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গোলমাল চলছে স্থানীয় তৃণমূল নেতা নান্নু হোসেন ও আরাবুল ইসলাম গোষ্ঠীর মধ্যে। ঘোলাজলে মাছ ধরতে নেমে পড়েছে দুপক্ষই।  সমাজবিরোধীদের মদত দেওয়ার অভিযোগে সরব দুই শিবিরই। মহিলা কে ? কে বা কারা খুন করে তার দেহ ফেলে গেল তা নিয়ে গাঢ় হচ্ছে ধোঁয়াশা। ইতিমধ্যেই অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত  শুরু করেছে কাশীপুর থানার পুলিস।

দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ

দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ। চক্রান্তের অভিযোগ নির্যাতিতার বান্ধবীর মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, সাতশ টাকা বিনিময়ে মদ্যপ চার যুবকের হাতে নির্যাতিতাকে তুলে দেয় বান্ধবীর মা। গ্রেফতার করা হয়েছে  ওই মহিলা ও চার যুবককে। মেয়ের বান্ধবী। খুবই পরিচিত। অভিযোগ, মাত্র সাতশ টাকার জন্য তাকেই চার মদ্যপ যুবকের ফুর্তির জন্য তুলে দেয় বান্ধবীর মা। বালুরঘাট থানায় এমনই অভিযোগ জানিয়েছে নির্যাতিতার পরিবার।  অভিযুক্ত  চার যুবক ও নির্যাতিতার বন্ধবীর মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। ঘটনা সাতই জানুযারির। বাড়িতে মেয়ে ফিরছে না। পাড়ায় খোঁজাখুঁজিতে না মেলায় থানায় খবর দেয় নির্যাতিতার পরিবার। আটই জানুয়ারি সকালে বালুরঘাটের শান্তিময় ঘোষ কলোনি থেকে বেহুঁশ অবস্থায় নবম শ্রেণির কিশোরীকে  উদ্ধার করে  পুলিস।