আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনও হয়নি, নদীয়াতে কংগ্রেস-সিপিআইএম জোট মিছিল  আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনও হয়নি, নদীয়াতে কংগ্রেস-সিপিআইএম জোট মিছিল

এখনও জোটের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয়নি। তবু এখন থেকেই জেলায় জেলায় হাত আর কাস্তের জোট প্রকাশ্যেই। এবার নদিয়াতে শাসকদলের বিরুদ্ধে একসঙ্গে মিছিল করল সিপিএম ও কংগ্রেস।  নদিয়ার হবিবপুরের রাঘবপুরে একমঞ্চেই  দেখা গেল সিপিএম ও কংগ্রেস নেতৃত্বকে। প্রতিপক্ষ শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। মঞ্চ থেকে তৃণমূলের বিরুদ্ধে একসঙ্গেই লড়াইয়ের ডাক দিয়েছে দুপক্ষই। বিকেল থেকেই সমাবেশ মঞ্চ জুড়ে ছিল সাজো সাজো রব। প্রায় ২০০ সমর্থক হাজির হয়েছিলেন সমাবেশে। স্থানীয় নেতৃত্বের দাবি, নদিয়ার হবিবপুর থেকেই এই জেলার প্রথম ভোটের জোট বার্তা প্রকাশ্যে ঘোষিত হল।

 নাগপাশে হিটলারি চাল! নাগপাশে হিটলারি চাল!

নাগপাশে হিটলারি চাল। সাপ ধরতে হবে? খবর দিন হিটলারকে। শাঁখামুটি হোক বা চন্দ্রবোড়া, হেলে হোক বা কেউটে, নিমেষে কাবু করা হিটলারের বাঁ হাতের খেল। নদিয়ার স্বরূপ। ডাকনাম হিটলার। মেজাজটা হিটলারি নয় মোটেই। কিন্তু নাগেদের রাজ্যে দোর্দণ্ড প্রতাপ। হিটলারের নাম শুনলে বিষধরেরাও লেজ গুটিয়ে সরে পড়ে। কিন্তু তাঁর হাত থেকে রেহাই নেই। যেখানেই লুকিয়ে থাকুক বাছাধন, হিটলারের নজর পড়বেই। তারপর? সটান বস্তায়। না, সাপ ধরে মারেন না। মারতে চানও না। যে সে শখ নয়, সাপ ধরাই নেশা। বনবাদাড়ে ঘুরে সাপ ধরে বেড়ান তিনি। পাহাড় থেকে জঙ্গল, তাঁর বিচরণ সর্বত্র। গত পাঁচ বছরে ধরেছেন প্রায় দেড় হাজার ভিন্ন প্রজাতির সাপ।

  সরকারি এক চিকিত্‍সকের ঝুলন্ত দেহ সোমবার উদ্ধার হয় নদিয়ার তেহট্টে সরকারি এক চিকিত্‍সকের ঝুলন্ত দেহ সোমবার উদ্ধার হয় নদিয়ার তেহট্টে

সরকারি এক চিকিতসকের ঝুলন্ত দেহ সোমবার উদ্ধার হয় নদিয়ার তেহট্টে। পলাশি গ্রামীণ হাসপাতালের হেলথ অফিসার, চিকিতসক এস চৌধুরীর বাড়ি কলকাতায়। কিন্তু কর্মসূত্রে তিনি নদিয়ার তেহট্টে বাড়িভাড়া নিয়ে থাকতেন। তাঁর স্ত্রী ও পরিবারের অন্য সদস্যরা থাকেন কলকাতাতেই। গত কয়েকদিন ধরেই খোঁজ মিলছিল না তাঁর। ফোনও সুইচড অফ করা ছিল। তাই যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও, তাঁকে ফোনে পাওয়া যায়নি। সন্দেহ হওয়ায় আজ তেহট্টের বাড়িতে খোঁজখবর করেন স্থানীয়রা। পরে ঘরের মধ্যে এই চিকিত্‍সকের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান তাঁরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছয় পুলিস। তদন্তও শুরু করে দিয়েছে তাঁরা।