বিমান দূর্ঘটনার পর তাইপেইয়ের হাসপাতালে মৃত্যু হয় নেতাজির, দাবি নেতাজির দোভাষীর

বিমান দূর্ঘটনার পর তাইপেইয়ের হাসপাতালে মৃত্যু হয় নেতাজির, দাবি নেতাজির দোভাষীর

রহস্য। রহস্য। কেবলই রহস্য। এমন এক রাষ্ট্রনায়ক যার মৃত্যু নিয়ে রহস্যের কোনও শেষ নেই। প্রতি পরতে পরতে যেন নয়া মোড় আর নতুন নতুন তথ্য। নেতাজি জীবিত না মৃত? মৃত হলে, কীভাবে হল তাঁর মৃত্যু? কেনই বা লুকিয়ে রাখা হল নেতাজির মৃত্যুর রহস্য! নেতাজির ১১৯ বছরের জন্মজয়ন্তীতে নেতাজি নিয়ে ১৬,৬০০ পাতার একটি নথি প্রকাশ করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। সেখানে নেতাজি সম্পর্কে ১০০টি গোপন তথ্য জনসমক্ষে আনা হয় এবং দাবি করা হয়, ১৯৪৫ সালে তাইপেইয়ের বিমান দূর্ঘটনাতেই মৃত্যু হয় নেতাজির। এবার সেই দাবিকে আরও জোড়ালো করল তাইপেইতে নেতাজির দোভাষী, ৯৮ বছরের কাজুনরি কুনিজুকা। ১৯৪৩ থেকে ১৯৪৫, নেতাজির দোভাষী হিসেবে সবসময় নেতাজির সঙ্গে থাকতেন কুনিজুকা। ব্রিটেনের একটি সংবাদপত্রে কুনিজুকার সাক্ষাৎকারে দাবি করা হয়, ১৮ অগাস্ট ১৯৪৫ সালে তাইপেইয়ের বিমান দূর্ঘটনার পর সেখানেরই একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় নেতাজির।   

নেতাজি ফাইল প্রকাশের পর নেহরুর চিঠি নিয়েই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি নেতাজি ফাইল প্রকাশের পর নেহরুর চিঠি নিয়েই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি

নেতাজি যুদ্ধপরাধী! ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এটলিকে লেখা চিঠিতে এমনটাই নাকি লিখেছিলেন জওহরলাল নেহরু! আর এই নথি সামনে আসতেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। কংগ্রেসের দাবি  চিঠিটি জাল! চিঠিতে নেই নেহরুর কোনও সইও। তাইহোকু বিমান দুর্ঘটনাতেই কী নেতাজির মৃত্যু হয়েছিল? পঁয়তাল্লিশের আঠারোই অগাস্টের পরও কী জীবিত ছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু? বিমান দুর্ঘটনায় সুভাষচন্দ্রের মৃত্যু হয়েছে এমনটা সম্ভবত বিশ্বাস করতে পারেননি নেহরু। আর তাই চিঠি লিখে বসেছিলেন তত্কালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লেমেন্স এটলিকে। নেতাজি ফাইল প্রকাশ্যে আসায় সামনে এসছে এমনই একটি চিঠি। আর সেই চিঠি ঘিরেই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি। পয়তাল্লিশেরই ডিসেম্বরে এটলিকে  নেহরু লিখছেন , বিশ্বস্ত সূত্রে তিনি জানতে পেরেছেন, এটলির চোখে যুদ্ধপরাধী  সুভাষ চন্দ্র বসু কে রাশিয়ায় ঢোকার অনুমতি দিয়েছেন স্টালিন।আর এ চিঠি সামনে আসতেই উঠছে একের পর এক প্রশ্ন?

পাহাড়ে কী সম্ভাব্য পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছেন মমতা? জানুন পাহাড়ে কী সম্ভাব্য পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছেন মমতা? জানুন

পাহাড়ের বাকী দলগুলিকে এক ছাতার তলায় এনে সহমতের ভিত্তিতে মোর্চার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে পারে তৃণমূল। প্রয়োজনে ভাবমূর্তি ভাল অথচ বিমল গুরুংয়ের কাছের, এমন কাউকেই প্রার্থী করার কথাও ভাবা হচ্ছে। চারদিনের পাহাড় সফরে কোনও অনুষ্ঠানে না ডেকে বিমল গুরুংকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দার্জিলিংয়ে মেঘ আর রোদ্দুরের মতোই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিমল গুরুংয়ের সম্পর্ক। কখনও বিমল গুরুংয়ের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাহাড়ের মা। আর ঝগড়া হলেই দুশমন আদমি।

 পুরসভার বাইরে উপস্থিত অমিতাভ বচ্চন! পুরসভার বাইরে উপস্থিত অমিতাভ বচ্চন!

সরগরম কলকাতা পুরসভা। পুরসভার বাইরে উপচে পড়ছে ভিড়। কর্মীরা তো আছেনই। যারা কোনও প্রয়োজনে পুরসভায় এসেছেন, তারাও যেন কাজ ভুলেছেন। কারণ একটাই। পুরসভার বাইরে উপস্থিত অমিতাভ বচ্চন। ঋভু দাশগুপ্তর তিন ছবির শুটিংয়ের জন্য বেশ কিছু দিন ধরে শহরে বিগ বি। কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে দেখা যাচ্ছে তাঁকে। আজ কলকাতা পুরসভার সামনে শুটিং ছিল। সকাল থেকেই এলাকায় উত্‍সুক অনুরাগীদের ভিড়। যদি একবার দেখা যায়। বচ্চন অনুরাগীদের তালিকায় ছিলেন খোদ মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ও। বিগ বি-র সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেন তিনি। উপহার হিসেবে অমিতাভের হাতে তুলে দেন রবীন্দ্রনাথ এবং নেতাজি সংক্রান্ত পুরসভার বিশেষ সংকলন।

নেতাজিকে নিয়ে ছবি বানাবেন বিশ্বজিত্‍, অভিনয়ে ব্রিটিশ ও আমেরিকান থিয়েটারশিল্পীরা নেতাজিকে নিয়ে ছবি বানাবেন বিশ্বজিত্‍, অভিনয়ে ব্রিটিশ ও আমেরিকান থিয়েটারশিল্পীরা

পুজোর শেষেই চমক দিচ্ছেন বিশ্বজিত্‍ চট্টোপাধ্যায়। দেখা করতে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। দীর্ঘ আলোচনা করবেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ফাইল নিয়ে! এটাই তো তাঁর প্রথম ছবির বিষয়।

নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশ করল রাজ্য নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশ করল রাজ্য

স্বাধীনতার ৬৮ বছর পর অবশেষে প্রকাশিত হল নেতাজি সংক্রান্ত ৬৪টি  ফাইল। মোট ১২ হাজার ৭০০ পাতার ফাইলগুলির কপি তুলে দেওয়া হবে নেতাজির পরিবারের হাতে। সোমবার

আগামিকাল নেতাজি ফাইল প্রকাশ করবে রাজ্য আগামিকাল নেতাজি ফাইল প্রকাশ করবে রাজ্য

কাল প্রকাশ হতে চলেছে রাজ্যের হাতে থাকা নেতাজি ফাইল। চৌষট্টিটি ফাইলের তিনশো পাতায় বন্দি কোন রহস্য?

নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশের দাবি এবার উঠল সংসদেও নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশের দাবি এবার উঠল সংসদেও

নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশের দাবি এবার উঠল সংসদেও। আজ ওই দাবি তোলেন নেতাজির নাতি ও তৃণমূল সাংসদ সুগত বসু। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই নেতাজি পরিবারের ওপর নজরদারির বিষয়ে তদন্তও দাবি করেছেন তিনি।

নেতাজির অন্তর্ধান সংক্রান্ত ফাইল খতিয়ে দেখতে বিশেষে কমিটি গঠন করল কেন্দ্রীয় সরকার নেতাজির অন্তর্ধান সংক্রান্ত ফাইল খতিয়ে দেখতে বিশেষে কমিটি গঠন করল কেন্দ্রীয় সরকার

নেতাজির পরিবারের সদস্যদের দাবিতে নেতাজির অন্তর্ধান রহস্য সম্পর্কিত নথি খতিয়ে দেখতে উচ্চ পর্যায়ের বিশেষ কমিটি গঠন করল কেন্দ্রীয় সরকার। ক্যাবিনেট সেক্রেটারি পরিচালিত কমিটিতে থাকবেন রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইঙ্গ(RAW), ইন্টালিজেন্স ব্যুরো(IB) ও পিএমও আধিকারিকরা। সুভাষ বোসের অন্তর্ধান সংক্রান্ত সবরকম ফাইল খতিয়ে দেখে তা আদৌ জনসমক্ষে আনা হবে কিনা সেই বিষয়ে এই কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে।

নেতাজি সংক্রান্ত সব ফাইল প্রকাশ করা হোক, দাবি নেতাজির নাতির নেতাজি সংক্রান্ত সব ফাইল প্রকাশ করা হোক, দাবি নেতাজির নাতির

নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশের দাবিতে পথে নামল নেতাজির পরিবার। রাজ্য সরকারের কাছে ৬৪ টি ফাইল রয়েছে। বেশকিছু ফাইল রয়েছে কেন্দ্রের হাতেও। এইসব ফাইল প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন নেতাজির নাতি চন্দ্র বসু, অভিজিত্‍ রায় এবং ভাইপো ডি এন বসুর।

জার্মানিতে আজ নেতাজির পৌত্র সূর্য বোসের সঙ্গে সাক্ষাতে মোদী জার্মানিতে আজ নেতাজির পৌত্র সূর্য বোসের সঙ্গে সাক্ষাতে মোদী

জার্মানিতে নেতাজি সুভাষ চন্দ্রের বোসের পৌত্র সূর্য বোসের সঙ্গে দেখা করতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। জার্মানির শিল্পপতি ও রাজনীতিকদের সঙ্গে দেখা করার পাশাপাশি বার্লিনে ভারতীয় কমিউনিটির সঙ্গেও সাক্ষাত্ করবেন মোদী। সেইসঙ্গেই ভারতীয় রেল আধুনিকীকরণের উদ্দেশ্যে ঘুরে দেখবেন বার্লিনের অত্যাধুনিক রেল স্টেশনও।

`বিমান দুর্ঘটনায় মারা যাননি নেতাজি, বেঁচে ছিলেন দেশ স্বাধীনের সময়েও`

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মদিনে প্রতিবার যে বিতর্কটা বড় বেশী করে ওঠে এবারও তার ব্যতিক্রম হল না। নিজেকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সদস্য হিসাবে নিজেকে দাবি করা নিজামুদ্দিন বলেন, বিমান দুর্ঘটনায় সুভাষ চন্দ্র বসুর মৃত্যু হয়নি। এমনকি নেতাজি দেশ স্বাধীন হওয়ার সময় বেঁচে ছিলেন বলেও দাবি করেন তিনি।

নেতাজির স্মৃতিসৌধ গড়তে চান মমতা, বিরোধিতায় অশোক ঘোষ

নেতাজির স্মৃতিসৌধ গড়া নিয়েও বিতর্কে জড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী। সুভাষচন্দ্রের জন্মভিটে কোদালিয়ায় স্মতিসৌধ গড়বে রাজ্য সরকার। বুধবার নেতাজি ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছেন ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক অশোক ঘোষ। তাঁর স্পষ্ট ঘোষণা, "মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা থাকায় নেতাজির নামাঙ্কিত স্মৃতিসৌধ মেনে নেবেন না বাংলার মানুষ।"

জন্মদিনে ব্রাত্য নেতাজি

ধর্মতলায় নেতাজির মূর্তির পাদদেশে মঞ্চ বাঁধার কাজ শুরু করল ফরওয়ার্ড ব্লক। এদিন মঞ্চ বাঁধার সময় হাজির ছিলেন ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক অশোক ঘোষ। তাঁর ক্ষোভ, এই প্রথম নেতাজির জন্মদিনে নেতাজি মূর্তির পাদদেশে কোনও সরকারি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হল না। এমনকী মূর্তির পাদদেশে যে অনুষ্ঠান হবে না সেবিষয়েও সরকার ফরওয়ার্ড ব্লককে কিছুই জানায়নি বলেও অভিযোগ করেছেন অশোক ঘোষ।