যুবা থেকে পিকু, ক্রমশই বলিউডের ফেভরিট শুটিং ডেস্টিনেশন হয়ে উঠছে রাজ্য

যুবা থেকে পিকু, ক্রমশই বলিউডের ফেভরিট শুটিং ডেস্টিনেশন হয়ে উঠছে রাজ্য

বলিউডি ছবিতে কলকাতাকে ব্যবহারের ট্রেন্ড শুরু হয়েছিল বেশ কয়েকবছর আগেই। পরিনীতা ছবিতে উত্তরের চা বাগান ব্যবহার করেছিলেন পরিচালক প্রদীপ সরকার। এরপর বলিউড ক্রমশঃ ক্যামেরায় আপন করে নিয়েছে কলকাতাকে।

আইফায় বাজিমাত বরফির, ব্রাত্য পান সিং তোমার

আইফাতেও শাসন করল নির্বাক বরফি। সেরা ছবি, সেরা পরিচালক ও সেরা অভিনেতা। তিনটি পুরস্কারই গেল বরফির ঝুলিতে। তবে সেরা অভিনেত্রীর দৌড়ে বিদ্যা বাগচির কাছে হার মানলেন ঝিলমিল চ্যাটার্জি। কাহানি ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতে নিলেন বিদ্যা বালন। তবে পুরস্কারের তালিকায় ব্রাত্য রইল পান সিং তোমার।

আইফার নমিনেশনে বরফির ১৩ গোল

আইফার মনোনয়নে এগিয়ে রইল বরফিই। মোট ১৩টি বিভাগে মনোনয়ন পেয়ে প্রথম স্থানে রয়েছে বরফি। ৯টি মনোনয়ন পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভিকি ডোনর। ঘাড়ের কাছে নিশ্বাস ফেলছে গ্যাংস অফ ওয়াসেপুর ও অগ্নিপথ।

আইফায় চালকের আসনে বরফি

জাতীয় পুরস্কারে বিশেষ কূল না পেলেও আইফা অ্যাওয়ার্ড মাতাল বরফি। এখনও পর্যন্ত ঘোষিত টেকনিকাল বিভাগের ১৪টির মধ্যে ৯টি পুরস্কারই জিতেছে বরফি।

ছেলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ঋষি

খোলা গলায় ছেলের প্রশংসা করলেন ঋষি কপূর। ২০০৭ সালে সঞ্জয় লীলা বনশালির সাঁওরিয়া ছবি দিয়ে বলিউডে পা রেখেছেন রণবীর। মাত্র ৭ বছরেই তাঁর উত্থানে স্বাভাবিক ভাবেই অভিভূত ঋষি। গর্বিত বাবা জানালেন, ইন্ডাস্ট্রিতে কপূর পরিবারের যথেষ্ট প্রতিপত্তি থাকা সত্ত্বেও রণবীর যেভাবে কেরিয়ারের শুরু থেকেই বিভিন্ন ধরনের চরিত্র বেছে সাহস দেখিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।

আইফায় এগিয়ে বরফি

আইআইএফএর তালিকায় সবথেকে বেশি মনোনয়ন পেয়ে এগিয়ে রইল বরফি। বরফির ঘাড়ের ওপর নিশ্বাস ফেলছে ভিকি ডোনর, গ্যাংস অফ ওয়াসেপুর ও অগ্নিপথ। মার্চের একটি সপ্তাহান্তে ছিল ভোটিং উইকএন্ড। ভোটে মোট ১৩টি মনোনয়ন পেয়েছে বরফি।

নির্বাক বরফির কথা শুনতে পেয়ে

ধুর, নায়ক কথাই বলতে পারে না! আইটেম নম্বর নেই। প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার মত সেক্স সাইরেনও এখানে কেমন যেন!

স্টারডাস্টে ব্রাত্য রণবীর

বছরের প্রায় সবকটি অ্যাওয়ার্ডে সেরার শিরোপা পেলেও স্টারডাস্ট অ্যাওয়ার্ডে ব্রাত্যই থাকলেন রণবীর বরফি কপুর। তবে প্রথম বারের জন্য পুরস্কৃত হলেন শাহরুখ খান। সেরা অভিনেতা(এডিটরস চয়েস) ও স্টার অফ দ্য ইয়ার(পুরুষ) দুটো খেতাবই উঠেছে শাহরুখের মাথায়। অন্যদিকে বরফির জন্য সেরা অভিনেত্রী(ড্রামা) ও স্টার অফ দ্য ইয়ার(মহিলা) দুটো পুরস্কারই গেছে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার ঝুলিতে।

নির্বাক বরফির নি:শব্দ অনুভূতি

গোটা ছবিতে নির্বাক উপস্থিতিই এনে দিল স্বীকৃতি। তাই পুরস্কার প্রাপ্তির পর ধন্যবাদ জ্ঞাপনও ছিল নির্বাক। আটান্নতম ফিল্মফেয়ার পুরস্কারের মঞ্চে এটাই ছিল সেরা মুহূর্ত। বরফির জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেলেন রণবীর কপুর। মঞ্চে উঠে সঞ্চালকের বাড়িয়ে দেওয়া মাইক নামিয়ে রাখলেন। পুরস্কার নিলেন রণবীর, কিন্তু নি:শব্দ অনুভূতি ব্যক্ত করলেন বরফি।

পান, বরফি অ্যান্ড মোর...

জি সিনে অ্যাওয়ার্ডসের মঞ্চে যদি শেষ কথা হয় দর্শক, তাহলে কালার্স স্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডসের শেষ কথা ছিল প্রতিভা। জনপ্রিয়তার নিরিখে নয়, প্রতিভার স্বীকৃতি দিতেই সেজেছিল উনিশতম অ্যানুয়াল কালার্স স্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডসের স্টেজ। খান ক্লাবকে বলে বলে দশ গোল দিয়ে শেষ হাসি হাসলেন রণবীর কপুর ও ইরফান খান। তবে হারানো যায়নি লেডি খানকে। এই নিয়ে টানা চার বার সেরা অভিনেত্রীর শিরোপা পেলেন বিদ্যা বালন।

করাঞ্জি

দীপাবলি মানেই মিষ্টিমুখ। লাড্ডু, কাজু বরফি, মালপোয়ার মাঝে স্বাদ বদলাতে লাগবে মুখরোচক নোনতা গাঠিয়া বা করাঞ্জি। অনেকটা আমাদের ভাজাপুলির মতো হয় এই করাঞ্জি। নারকেলের পুরে ভরা নোনতা স্বাদের করাঞ্জি জমিয়ে রাখতে পারেন পৌষপার্বণের জন্যও।

কেসর কাজু বরফি

এসে গেল আলোর উত্সব। দীপাবলি মানেই হকের রকম বাজি, আলোর রোশনাই আর দেদার খাওয়া দাওয়া। তার মধ্যে অবশ্যই মিঠেকড়ার পাল্লাই ভারী। মিষ্টি রকমফের হয় জায়গায় জায়গায়। বদলে যায় স্বাদ। তবে এদের মধ্যে প্রাদেশিকতার বেড়া টপকে সারা ভারতে রাজত্ব করে তাদের মধ্যে এক নম্বরে রাখতেই হয় বাধ্য কাজু বরফিকে।

অস্কার দৌড়ের পর এবার ১০০ কোটির তালিকায় বরফি

অস্কারের জন্য মনোনীত হওয়ার পর এবার বলিউডের ১০০ কোটির ক্যাম্পে ঢুকে পড়ল `বরফি`।

কপুর vs কপুর

গোটা ছবি জুড়ে আইটেম নম্বর, সাহসী অভিব্যক্তি, উত্তেজক ফিনফিনে শাড়ি, সর্বোপরি মধুর ভান্ডারকরের মতো পরিচালক।

অস্কারে বঞ্চিত প্রাদেশিক ছবি: ঋতুপর্ণ

বলিউডি ছবি ও কিছু বিশেষ ধরণের মারাঠি ছবি ছাড়া অন্যান্য ভাষার ছবিকে অস্কারে উপেক্ষা করা হয়।