এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি

এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি

এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি। সকাল থেকেই গলসির পুরন্দরগড়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে  শুরু হয় সংঘর্ষ। দফায় দফায়  দুপক্ষের মধ্যে ব্যাপক বোমাবাজি হয়। বাড়ি ভাঙচুরে পাশাপাশি  আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় দুটি ধানের গোলায়, খড়ের গাদায়। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় একটি বাড়ি।  বোমার আঘাতে জখম হয়েছেন তৃণমূল কর্মী হারুল মোল্লা। গুরুতর জখম অবস্থায় হারুল মোল্লাকে বর্ধমান মেডিক্যাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযোগ, স্থানীয় দুই তৃণমূল নেতা জনার্দন চট্টোপাধ্যায় ও পরেশ পালের গোষ্ঠীর মধ্যে এলাকা দখলকে কেন্দ্র করেই এই সংঘর্ষ ।

আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেল বর্ধমানের বড়বাজারের বেডিং গোডাউন আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেল বর্ধমানের বড়বাজারের বেডিং গোডাউন

আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেল বর্ধমানের বড়বাজারের বেডিং গোডাউন। গতরাতে এই ভয়াবহ আগুন লাগে ওই গোডাউনে। সেখানে প্রচুর পরিমাণে দাহ্য পদার্থ মজুত থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। প্রাথমিকভাবে আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান স্থানীয় বাসিন্দারা। তারপরই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে দমকল। কিন্তু দমকলের সেই ইঞ্জিনে কোনও গোলোযোগ দেখা দেয়। তাই সেটি দিয়ে আগুন নেভানো যায়নি। বরং, দমকলের ওই ইঞ্জিনটি কাজ না করায় বিক্ষোভের মুখে পড়েন দমকলকর্মীরা। পরে আরও দুটি ইঞ্জিন পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, শর্ট সার্কিট থেকেই আগুন লেগেছিল।

বন্ধুর গায়ে পেনের কালি ছিটিয়ে শিক্ষকের কাছে বেধড়ক মার খেয়ে হাসপাতালে ছাত্র বন্ধুর গায়ে পেনের কালি ছিটিয়ে শিক্ষকের কাছে বেধড়ক মার খেয়ে হাসপাতালে ছাত্র

ক্লাসে সহপাঠীর গায়ে পেনের কালি ছিটিয়ে দেওয়ার শাস্তি, নবম শ্রেণির ছাত্রকে বেধড়ক মারধর করলেন শিক্ষক। গুরুতর আহত ওই ছাত্র ভর্তি হাসপাতালে। বর্ধমানের ঘটনা। ক্লাসে সহপাঠীর গায়ে পেনের কালি ছিটিয়েছিল বর্ধমান চাগ্রাম হাইস্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র তমালকৃষ্ণ ব্যানার্জি। দেখে ফেলেন শিক্ষক জহরলাল কোঙার। অভিযোগ এরপরই ওই ছাত্রকে মারধর শুরু করেন। মারধরের পর অভিযুক্ত শিক্ষক জহরলাল কোঙার ওই ছাত্রকে ভ্যানে করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন বলে অভিযোগ। এরপর বাড়ির লোকই তমালকৃষ্ণকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করেন। ছাত্রের শারীরিক অবস্থা এখন স্বাভাবিক।