মেসি এবং সুয়ারেজের দাপটে পিছিয়ে পড়েও জয় বার্সেলোনার

মেসি এবং সুয়ারেজের দাপটে পিছিয়ে পড়েও জয় বার্সেলোনার

লিওনেল মেসি এবং লুই সুয়ারেজের দাপটে পিছিয়ে পড়েও জয় ছিনিয়ে নিল বার্সেলোনা। শনিবার রাতে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে দুই-এক গোলে হারিয়ে দিল লুই এনরিকের দল। ফলে খেতাব জয়ের সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল হল ক্যাটাল্যান্সদের। ম্যাচের শুরুতেই কোকের গোল এগিয়ে দেয় অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে। কিন্তু বিরতির আগে দলকে সমতায় ফেরান মেসি। দুরন্ত মুভ থেকে বল জালে জড়িয়ে দেন তিনি। তার কিছু পরেই বার্সার  হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন লুই সুয়ারেজ। এই নিয়ে চলতি মরসুমে একত্রিশটি গোল করা হয়ে গেল তাঁর। ফিলিপে লুইস আর  দিয়েগো গডিন লালকার্ড দেখায় ম্যাচে বেশ খানিকটা সময় নয়জনে খেলতে হয় দিয়েগো সিমিওনের দলকে।

কোপা দেল রে-র সেমিফাইনালের পথে বার্সেলোনা কোপা দেল রে-র সেমিফাইনালের পথে বার্সেলোনা

কোপা দেল রে-র সেমিফাইনালের পথে বার্সেলোনা। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে অ্যাথলেটিক বিলবাওকে দুই-এক গোলে হারিয়ে দিল লুই এনরিকের দল। বার্সেলোনার হয়ে গোল করেন মুনির এল হাদ্দাদী এবং নেইমার। কোপা দেল রে-র সেমিফাইনালের দিকে এক পা বাড়িয়ে রাখল বার্সেলোনা। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে অ্যাথলেটিক বিলবাওকে দুই-এক গোলে হারিয়ে দিল লুই এনরিকের দল। প্রথমার্ধে বার্সেলোনার হয়ে দুটি গোল করেন মুনির এল হাদ্দাদী এবং নেইমার। ম্যাচের আঠেরো মিনিটে ইভান রাকিটিচের দুর্দান্ত পাসকে কাজে লাগিয়ে দলকে এগিয়ে দেন মুনির। বিরতির কিছু আগে ব্যবধান বাড়ান নেইমার। চোটের বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল লিওনেল মেসিকে। নির্বাসিত থাকায় খেলেননি লুই সুয়ারেজও।

কোপা দেল রে চ্যাম্পিয়ন বার্সা কোপা দেল রে চ্যাম্পিয়ন বার্সা

ম্যাজিকাল মেসি। আর্জেন্টাইন সুপারস্টারের দুরন্ত পারফরম্যান্সের ওপর ভর করে মরশুমের দ্বিতীয় ট্রফি ঘরে তুলল বার্সেলোনা। ন্যু ক্যাম্পে অ্যাটলেটিকো বিলবাওকে ৩-১ গোলে হারিয়ে দিল কোপা দেল রে চ্যাম্পিয়ন ক্যাটালিয়ান্সরা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মেগা ফাইনালে জুভেন্টাসের বিরুদ্ধে নামার আগে ঘরোয়া ট্রফি ঘরে তুলল বার্সা। লুই এনরিকে জমানায় চলতি মরশুমে দ্বিতীয় ট্রফি জিতলেন মেসি, নেইমাররা। ফুটবল যুবরাজের জোড়া গোলের সাহায্যে চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা। খেলা শুরুর ২০ মিনিটে মেসির প্রথম গোলটা এই মরশুমে তার করা অন্যতম সেরা গোল হয়ে থাকবে। ডানদিক থেকে বল নিয়ে চার ডিফেন্ডারকে শুধুমাত্র গতি ও পায়ের জাদুতে তছনছ করে গোল করে যান মেসি। এর ১০ মিনিটের মধ্যেই গোল করে ব্যবধান বাড়ান ব্রাজিলিয়ান স্টার নেইমার। ম্যাচের চুয়াত্তর মিনিটে দলের তৃতীয় গোলটি করে ট্রফি নিশ্চিত করেন মেসি। শেষদিকে বিলবাওয়ের হয়ে একটি গোল করেন ইনাকি উইলিয়ামস। জয় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর ন্যু ক্যাম্পে শেষবারের মতো বার্সার কিংবদন্তী ফুটবলার জাভিকে খেলার সুযোগ দেন এনরিকে। তবে সবাইয়ে ছাপিয়ে গেলেন সেই মেসি।