বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না মুন্নাভাইয়ের

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না মুন্নাভাইয়ের

ছাড়া পাওয়ার দিনক্ষণ ঘোষণা হলেও এখনও বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না মুন্নাভাইয়ের। কালই অভিনেতার আইনজীবী হিতেশ জৈন জানিয়ে দেন সাতাশে ফেব্রুয়ারিই মুক্তি পাচ্ছেন সঞ্জয় দত্ত। তবে এরপরেই তৈরি হয় নয়া বিতর্ক। মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রঞ্জিত পাটিল জানিয়ে দেন মুন্নাভাইয়ের মুক্তি আসন্ন তবে দিনক্ষণ নিয়ে এখনও কিছুই ঠিক করেনি মহারাষ্ট্র সরকার। একই সুর শোনা গেল অতিরিক্ত ডিজি বিকে উপাধ্যায়ের গলাতেও। তিনি জানিয়ে দেন এবিষয়ে সরকারের তরফে কোনও নির্দেশ তাঁরা এখনও পাননি। এরপরেই অভিনেতার  ছাড়া পাওয়ার দিন নিয়ে নতুন করে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা।

রেশন কার্ড পেতে অফিসারের সামনে নগ্ন হলেন এক ব্যক্তি রেশন কার্ড পেতে অফিসারের সামনে নগ্ন হলেন এক ব্যক্তি

মুন্নাভাই জেলে, কিন্তু তাঁর গান্ধীগিরি থেমে থাকেনি এখনও। দুর্নীতিগ্রস্ত, ঘুষখোর অফিসারের আচরণে বিরক্ত আমজনতা। তবে সেলুলয়ডে মুন্নাভাই শিখিয়ে দিয়েছিলেন এইসব দুর্নীতিপরায়ণ মানুষদের বিরুদ্ধে কীভাবে রুখে দাঁড়ানো যায়। সিদেসাধা প্রতিবাদের ধরণ শিখিয়ে রীতিমতো দেশবাসীকে মুগ্ধ করেছিল মুন্নাভাই।

গান্ধীগিরি ছেড়ে এবার পুলিসগিরি

বাস্তব জীবনে তিনি এখন গরাদের পিছনে। পরনে কয়েদির পোশাক। তবে পর্দায় খাকি উর্দিতে আসতে কোনও বাধা নেই। জেলে যাওয়ার আগেই পুলিসগিরি ছবির শুটিং শেষ করেছেন সঞ্জয় দত্ত। মঙ্গলবার মুক্তি পেল পুলিসগিরির ট্রেলর।

সঞ্জয় এখন কয়েদি নম্বর ১৬৬৫৬

ইয়েরওয়াড়া জেলে কয়েদি নম্বর পেলেন সঞ্জয় দত্ত। এখন তাঁর পরিচয় কয়েদি নম্বর ১৬৬৫৬। বুধবার ভোরেই তাঁরে আর্থার রোড জেল থেক পুণের ইয়েরওয়াড়া জেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

পাখা, শ্যাম্পু ও গীতা নিয়ে জেলে সঞ্জয়

জেলে অতিথি আপ্যায়ন না পেলেও কিছু প্রয়োজনীয় জিনিস সঙ্গে রাখার অনুমতি পেলেন সঞ্জয়। বাড়ি থেকে তাঁকে শোয়ার গদি, বালিশ, পাখা, টয়লেটের প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও মশার ওষুধ নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে জেল কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও বাড়ি থেকে ওষুধ ও মাঝেমধ্যে জেলে বসে বাড়ির খাবারও খেতে পারবেন সঞ্জয়।

জেলে মুন্নাভাইয়ের দিনলিপি

খলনায়ক থেকে মুন্নাভাই। দীর্ঘ ২০ বছরে বদলে গেছে অনেক কিছু। কখনও ভাইগিরি, কখনও গান্ধীগিরি। এইভাবেই এতদিন জীবন কাটিয়েছেন সঞ্জুবাবা। কিন্তু অবশেষে কঠোর বাস্তবের মুখোমুখি তিনি। ১৬ মে ২০১৩-র রাত থেকে আগামী সাড়ে তিন বছর গরাদের পিছনে কাটবে তাঁর। মেনে চলতে হবে জেলের সব নিয়মকানুন। কেমন হবে তাঁর রোজকার জীবন?

খলনায়কের অপরাধ থেকে মুন্নাভাইয়ের জেল: সম্পূর্ণ ক্যালেন্ডার

শেষ পর্যন্ত জেলেই যেতে হল সঞ্জয় দত্তকে। শীর্ষ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী আজ মুম্বইয়ের দুপুরে মুম্বইয়ের বিশেষ টাডা আদালতে আত্মসমর্পণ করলেন সঞ্জয়। পড়ুন ঘটনাপ্রবাহ-

সঞ্জুর সাজা মকুবের আর্জি বিদ্যার

শীর্ষ আদালত সাজা ঘোষণার পর থেকেই সঞ্জয় দত্তর সাজা মকুবের দাবিতে সরব হয়েছেন তারকারা। এবার সঞ্জয়ের পাশে দাঁড়ালেন বলিউডের লেডি খান বিদ্যা বালন। সপ্তাহান্তে মুম্বইয়ের এক অনুষ্ঠানে বিদ্যা বলেন, "আইন ও বিচারব্যবস্থার ওপর আমাদের বিশ্বাস রয়েছে।

সঞ্জয়কে ছাড়া মুন্নাভাই অসম্ভব: সুভাষ কপূর

শীর্ষ আদালতের নির্দেশে সাড়ে তিন বছরের সাজা হয়েছে সঞ্জয় দত্তর। অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে মুন্নাভাই সিরিজের তৃতীয় ছবির ভবিষ্যত। তবে তাতে বিন্দুমাত্র পরোয়া নেই পরিচালক সুভাষ কপূরের। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন সঞ্জয়কে ছাড়া মুন্নাভাই ভাবতেই পারছেন না তিনি। সঞ্জুর জন্য তিনি অপেক্ষা করবেন।

ছবির কাজ শেষ করেই জেলে যাব, আশ্বাস মুন্নাভাইয়ের

সঞ্জয়ের দত্তর সাজা ঘোষণা হতেই মাথায় আকাশ ভেঙে পড়েছে সাত প্রযোজকের। সাতটি ছবি হাতে নিয়ে জেল খাটার আদেশ হয়েছে সঞ্জয়ের। তবে সঞ্জয় আশ্বাস দিয়েছেন জেলে ঢোকার আগে অসমাপ্ত ছবির কাজ শেষ করে যাবেন তিনি।

জেলে মুন্নাভাই, আতান্তরে বলিউড

শেষরক্ষা হল না। অনেক চেষ্টা করেও হাজতবাস থেকে বাঁচতে পারলেন না মুম্বইয়ের মুন্নাভাই। শীর্ষ আদালতের নির্দেশে সাড়ে তিন বছরের জেল হয়েছে সঞ্জয়ের। তবে সঞ্জয় একা জেলে গেলেন না, অনিশ্চিত করে গেলেন সাত ছবির ভবিষ্যত। ভাসিয়ে দিয়ে গেলেন প্রচুর লগ্নিকারীকে।

সঞ্জুবাবার জেল: টুইটারে তারকাদের সমবেদনা

শীর্ষ আদালতের নির্দেশে পাঁচ বছরের জেলের আদেশ মুন্না ভাইয়ের। খবরে স্তম্ভিত টিনসেল টাউন। টুইটারে সমবেদনা জানালেন তারকারা,