শনিবারের ডার্বিতে স্ট্র্যাটেজিতে বাজিমাত করতে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন দুদলের কোচই শনিবারের ডার্বিতে স্ট্র্যাটেজিতে বাজিমাত করতে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন দুদলের কোচই

শনিবারের ডার্বিতে স্ট্র্যাটেজিতে বাজিমাত করতে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন দুদলের কোচই। একদিকে মোহনবাগান কোচ সঞ্জয় সেন ঘরোয়া লিগের হারের বদলা নিতে মরিয়া। অন্যদিকে বিশ্বজিত ভট্টাচার্যও চান জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে। সঞ্জয় সেন আর বিশ্বজিত ভট্টাচার্য। শনিবারের ডার্বিতে  দুই বন্ধু দুই চিরপ্রতিন্দন্দ্বী দলের কোচ। ঘরোয়া লিগে মরসুমের প্রথম ডার্বিতে আই লিগ জয়ী সঞ্জয় সেনকে টেক্কা দিয়েছিলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ বিশ্বজিত ভট্টাচার্য। তরুণ ব্রিগেড নিয়ে চার গোল হজম করতে হয়েছিল সঞ্জয় সেনকে। সেই দিন থেকে শনিবারের জন্য অপেক্ষা করেছিলেন বাগান কোচ। কেননা এই ম্যাচ আদতে সঞ্জয় সেনের জ্বালা মেটাবার ম্যাচ। ফুটবলার হিসাবে কখনও বড়ম্যাচ খেলেননি বাগান কোচ। উল্টোদিকে ফুটবলার  হিসাবে ডার্বিতে পোড়খাওয়া বিশ্বজিত ভট্টাচার্য। শনিবারের বড়ম্যাচের আগে এটাকে গুরুত্বই দিচ্ছেন না সঞ্জয় সেন। একইসঙ্গে লিগের বড়ম্যাচে জয়কে মাথায় না রেখে শনিবারের ম্যাচ নিয়েই মনোনিবেশ করতে চান বিশ্বজিত ভট্টাচার্য।

 শনিবারই নতুন মরসুমে প্রথমবার মোহনবাগান জার্সিতে নামবেন সোনি শনিবারই নতুন মরসুমে প্রথমবার মোহনবাগান জার্সিতে নামবেন সোনি

হাইতিতে বসে ঘরোয়া লিগের ডার্বিতে নিজের দলের হার দেখেছিলেন সোনি নর্ডি। সেই ম্যাচে বিশ্বজিত ভট্টাচার্যের দলের কাছে কার্যত আত্মসমর্পন করতে হয়েছিল বাগানের তরুণ ব্রিগেডকে। সেই হার এখনও ভোলেননি হাইতিয়ান তারকা। শনিবারই নতুন মরসুমে প্রথমবার মোহনবাগান জার্সিতে নামবেন সোনি। সেটাও আবার বড়ম্যাচ। ঘরোয়া লিগের হারের ডার্বিতে হারের বদলা নেওয়ার জন্য মোহনবাগান জনতা তাকিয়ে আছেন সোনির দিকে। ডার্বিতে মাঠে নামার আগে হাইতিয়ান তারকা বলছেন,শনিবারই তো আসল ডার্বি। তবে বড়ম্যাচের থেকে আই লিগ খেতাবকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন সোনি।

  আই লিগে বড় জয় পেল মোহনবাগান আই লিগে বড় জয় পেল মোহনবাগান

আই লিগে বড় জয় পেল মোহনবাগান। বারাসতে  সালগাঁওকরকে চার-দুই গোলে হারিয়ে দিল গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। প্রথম ম্যাচে আইজলকে তিন গোল দেওয়ার পর গোয়ার দলটিকেও চার গোল দিল সঞ্জয় সেনের দল। পরপর দুম্যাচে গোল পেলেন গ্লেন,বলবন্ত। সবুজ-মেরুন জার্সিতে প্রথম ম্যাচেই গোল পেলেন ব্রাজিলীয় ডিফেন্ডার লুসিয়ানোও। তবে এত কিছুর পরও ডার্বির আগে ডিফেন্স নিয়ে চিন্তা থেকেই গেল মোহনবাগান কোচের। আটচল্লিশ মিনিটে চার গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর দু গোল হজম করতে হল বাগান ডিফেন্সকে। আগের ম্যাচের মতই সালগাঁওকরের বিরুদ্ধেও প্রথমার্ধটা ছিল মোহনবাগানেরই। প্রথম মিনিটেই পেনাল্টি পেতে পারত সবুজ-মেরুন। তবে আট মিনিটের মধ্যেই গোল করে সবুজ-মেরুনকে এগিয়ে দেন কাতসুমি। বাইশ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান বাড়ান কর্নেল গ্লেন। কয়েক মিনিটের মধ্যেই হেডে সবুজ-মেরুন জার্সিতে নিজের প্রথম গোলটা করে যান লুসিয়ানো। তখন মাঠ জুড়ে শুধুই সবুজ-মেরুন জার্সির দাপট। জ্যাঁকিচাদ-হাওকিপ-ডাফিদের সেভাবে দাঁত ফোটাতে দেননি শৌভিক-প্রণয়রা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই হেডে দুরন্ত গোল করে মোহনবাগানকে চার গোলে এগিয়ে দেন বলবন্ত। কিন্তু তারপরই ম্যাচের রাশ হারিয়ে ফেলে সবুজ-মেরুন। বাগান ডিফেন্সে চাপ বাড়াতে থাকেন ডাফিরা। উনসত্তর আর পঁচাশি মিনিটে দুটো গোলও করে যান সালগাঁওকরের ডাফি আর গুরজিন্দর। দেবজিত বেশ কয়েকটা সেভ না করলে স্কোরলাইন অন্যরকম হতেও পারত। বড়ম্যাচের আগে জেজে-রাজু-প্রবীরকে পরিবর্ত হিসাবে মাঠে নামিয়ে দেখে নেন সঞ্জয় সেন। ডিফেন্সে ফাঁকফোকর থাকলেও আপফ্রন্টের পারফরম্যান্স বড়ম্যাচের আগে নিঃসন্দেহে স্বস্তিতে রাখবে বাগান থিঙ্কট্যাঙ্ককে।

আইজল এফসিকে হারিয়ে আই লিগ অভিযান শুরু করল গতবারের চ্যাম্পিয়ন মোহনবাগান আইজল এফসিকে হারিয়ে আই লিগ অভিযান শুরু করল গতবারের চ্যাম্পিয়ন মোহনবাগান

আইজল এফসিকে তিন-এর গোলে হারিয়ে আই লিগের অভিযান শুরু করল গতবারের চ্যাম্পিয়ন মোহনবাগান। জোড়া গোল করে বাগানের জয়ের নায়ক কর্নেল গ্লেন। একটি গোল করেছেন বলবন্ত। সোনি নর্ডির অভাব  প্রথম ম্যাচে পূরণ করে দিলেন গ্লেন-বলবন্ত জুটি। কারও চোট। কেউ আবার অফিস খেলায় ব্যস্ত। এরকম পরিস্থিতিতে আইলিগের প্রথম ম্যাচের জন্য দল গড়তে কার্যত হিমশিম খেতে হয়েছিল মোহনবাগান কোচ সঞ্জয় সেনকে। তাই কেরিয়ারের অন্যতম কঠিন ম্যাচ থেকে তিন পয়েন্ট পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেন সঞ্জয় সেন। আইএসএল খেলা ফুটবলারদের পারফরম্যান্সে হতাশ সঞ্জয় সেন। আইলিগের প্রথম ম্যাচ জিতে আইএসএলের হাইপ্রোফাইল কোচদের খোঁচা দিয়ে রাখলেন বাগান কোচ। সঞ্জয়ের দাবি আইএসএল নয়। আইলিগই ফুটবলারদের জাত চেনায়।