ভোট পরবর্তী অশান্তি ঠেকাতে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি রাজ্যপালের

ভোট পরবর্তী অশান্তি ঠেকাতে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি রাজ্যপালের

ভোট পরবর্তী অশান্তি ঠেকাতে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন রাজ্যপাল। তবে অশান্তি এখনও থামেনি। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ফের আক্রান্ত বিজেপি কর্মীরা। আক্রান্ত সিপিএম এবং আরএসপি কর্মীরাও। যদিও তৃণমূল কংগ্রেস অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

উত্তরাখণ্ডে জারি হয়ে গেল রাষ্ট্রপতি শাসন উত্তরাখণ্ডে জারি হয়ে গেল রাষ্ট্রপতি শাসন

অরুণাচলের পর এবার পালা উত্তরাখণ্ডের। উত্তরের এই রাজ্যে জারি হয়ে গেল রাষ্ট্রপতি শাসন। মূলত রাজ্যপালের রিপোর্টের ভিত্তিতেই রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশে সিলমোহর দিলেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।

স্টিং অপারেশনের ভিডিও দেখানোর পরই রাজ্যপালের কাছে রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি বিজেপির স্টিং অপারেশনের ভিডিও দেখানোর পরই রাজ্যপালের কাছে রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি বিজেপির

দলীয় দফতরে স্টিং অপারেশনের ভিডিও দেখানোর পরের দিনই পথে নামল বিজেপি। ১৪৪ ধারা ভেঙে রাজ্যপালের কাছে রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি জানিয়ে এলেন দলের নেতারা। মধ্য কলকাতায় দলের অফিস থেকে শুরু হয় মিছিল। গন্তব্য রাজভবন।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে প্রাণে মারার হুমকির অভিযোগ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে প্রাণে মারার হুমকির অভিযোগ

অশান্ত কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়া বিতর্ক। এবার উপাচার্যকে প্রাণে মারার হুমকির অভিযোগ। জল গড়াল থানা-পুলিস পর্যন্ত। ভোটের জন্য পরীক্ষা পিছনোর দাবিতে অনড় পড়ুয়ারা আজ মহামিছিলে পা মেলান। যদিও পরীক্ষা পিছবে না, এই অবস্থানে অনড় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

রাজ্যপাল বললেন, বাক স্বাধীনতা অবাধ নয়, তার সীমা বেঁধে দিয়েছে সংবিধানই রাজ্যপাল বললেন, বাক স্বাধীনতা অবাধ নয়, তার সীমা বেঁধে দিয়েছে সংবিধানই

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বিতর্কে মুখ খুললেন রাজ্যপাল। বললেন, বাক স্বাধীনতা অবাধ নয়। তার সীমা বেঁধে দিয়েছে সংবিধানই। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্লোগানকাণ্ডের প্রেক্ষিতে  রাজ্যপালের এই বক্তব্য যথেষ্ট তাত্পর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন অনেকেই। যাদবপুরের মিছিলে কাশ্মীর, মনিপুর, আফজল গুরু কিংবা গিলানিকে নিয়ে যে ধরনের স্লোগান দেওয়া হয়েছে, তার গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে তৈরি হয়েছে জোরালো বিতর্ক। একদলের বক্তব্য, বাক স্বাধীনতা থাকলে নিজের মত প্রকাশ্যে বলা যাবে না কেন? অন্যপক্ষের বক্তব্য, বাক স্বাধীনতা থাকলেই যা খুশি  বলা যায় না। এই বিতর্কের মধ্যেই  বুধবার তাঁর অবস্থান স্পষ্ট করলেন রাজ্যপাল।  জানিয়ে দিলেন বাক স্বাধীনতা কখনই চূড়ান্ত বা অবাধ হতে পারে না।

আজ বিকেল সাড়ে তিনটেয় আচার্য- রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক আজ বিকেল সাড়ে তিনটেয় আচার্য- রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক

দীর্ঘ বাহান্ন ঘণ্টা পর আলোচনার পথেই অবস্থান তুলে নিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীরা। আজ বিকেল সাড়ে তিনটেয় আচার্য- রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক। তবে এক সঙ্গে ইসির প্রতিনিধি ও ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে বৈঠক না করলে, বৈঠক ছেড়ে বেড়িয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ছাত্রছাত্রীরা। নির্দিষ্ট সময় জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে ছাত্রভোট। এই দাবিতে শুক্রবার সন্ধে থেকে উপাচার্য সহ অধ্যাপকদের ঘেরাও করে যাদবপুরের ছাত্রছাত্রীরা। শনিবার রাতে ছাত্রছাত্রীরা জানায়, ঘেরাও উঠছে। তবে দাবি মেটা না পর্যন্ত অবস্থান চলবে। যদিও, উপাচার্য, রেজিস্ট্রার-সহ সকলেই শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়ে যান। এসবের মধ্যেই আচার্য-রাজ্যপালের সঙ্গে সোমবার সাক্ষাতের সম্ভাবনার কথা জানান যাদবপুরের কর্মসমিতিতে রাজ্যপাল মনোনীত সদস্য বিমল রায়।

 অনেক কেন আছে, তার উত্তর কারও কাছে নেই অনেক কেন আছে, তার উত্তর কারও কাছে নেই

আলোচনার প্রস্তাবেই শেষ পর্যন্ত উঠল অবস্থান। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তো শুক্রবারই এই প্রস্তাব দেয়। তাহলে কেন সিদ্ধান্ত নিতে লেগে গেল বাহান্ন ঘণ্টা? উঠছে প্রশ্ন।শুক্রবার সন্ধে ছটা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্মসমিতি জানিয়ে দেয় ছাত্রছাত্রীদের, নির্বাচনের দাবির সঙ্গে তাঁরা পুরোপুরি সহমত। সে ক্ষেত্রে রাজ্যপালের সঙ্গে কথা বলেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

২৭ ঘণ্টা কেটে গেলেও ঘেরাও উঠল না যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৭ ঘণ্টা কেটে গেলেও ঘেরাও উঠল না যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে

২৭ ঘণ্টা কেটে গেলেও ঘেরাও উঠল না যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে যাতে রাজ্যপালের বৈঠক হয়, সেবিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালন সমিতি। কিন্তু কবে ,কখন বৈঠক হবে সেবিষয়ে নির্দিষ্ট কোনও বার্তা না থাকায়  ঘেরাও অবস্থান চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন ছাত্রছাত্রীরা। ফেব্রুয়ারিতে যাদবপুরে ছাত্রভোট করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, তাতে রাজি হয়নি রাজ্য। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতি জরুরি বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, নির্বাচনের বিষয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে আলোচনা  হবে।

রাজ্যপালের আক্ষেপ রাজনীতিকদের মানের অবনতি হচ্ছে রাজ্যপালের আক্ষেপ রাজনীতিকদের মানের অবনতি হচ্ছে

রাজ্যপালের আক্ষেপ রাজনীতিকদের মানের অবনতি হচ্ছে।  রাজনীতিবিদদের মুখে ভাষা যে ভাবে শালীনতার সীমা ছাড়াচ্ছে তারও  নিন্দা করেন রাজ্যপাল।

রাজ্যপালের প্রশংসা, মুখ্যমন্ত্রীর গর্বের বেলুন চুপসে গেল আদালতের ভর্ত্‍‍সনায় রাজ্যপালের প্রশংসা, মুখ্যমন্ত্রীর গর্বের বেলুন চুপসে গেল আদালতের ভর্ত্‍‍সনায়

আইন-শৃঙ্খলা ইস্যুতে রাজ্যপালের প্রশংসা। মুখ্যমন্ত্রীর গাল ভরা দাবি। গর্বের সেই বেলুন চুপসে গেল আদালতের তিরস্কারে।

রোজই রাজ্যে আক্রান্ত জীবন, তবু প্রশংসায় পঞ্চমুখ রাজ্যপাল রোজই রাজ্যে আক্রান্ত জীবন, তবু প্রশংসায় পঞ্চমুখ রাজ্যপাল

প্রতিদিনই কোনও না কোনও হিংসার ঘটনা উঠে আসছে শিরোনামে। কখনও আক্রান্ত প্রতিবাদী। কখনও নির্যাতনের শিকার মহিলারা। কলেজ হোক বা কারখানা!

দিনভর বয়কট, কলরব, কালো পতাকা, গো ব্যাক স্লোগানে স্তম্ভিত রাজ্যপাল দিনভর বয়কট, কলরব, কালো পতাকা, গো ব্যাক স্লোগানে স্তম্ভিত রাজ্যপাল

রাজ্যপালকে দেখতে হল কালো পতাকা। উপাচার্য শুনলেন গো-ব্যাক। স্টেজে উঠেও মেডেল-শংসাপত্র নিলেন না ছাত্রছাত্রীরা। সমাবর্তন ঘিরে এমনই নজিরবিহীন ছবি দেখল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। মঞ্চে হল বয়কট। বাইরে চলল কল

সব জল্পনার অবসান! আগামী সপ্তাহে রাজ্যপাল পদ থেকে ইস্তফা দিতে পারেন এম কে নারায়ণন

আগামী সপ্তাহেই পদত্যাগ করতে পারেন রাজ্যপাল এম কে নারায়ণন। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে এবিষয়ে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন বলে খবর।

গান্ধীঘাটে গান্ধীস্মরণে নেই রাজ্যের কোনও মন্ত্রী, ক্ষোভ রাজ্যপালের গলায়

বারাকপুরের গান্ধীঘাটে অনুষ্ঠানে রাজ্যের কোনও মন্ত্রী উপস্থিত না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করলেন রাজ্যপাল এম কে নারায়ণন। আজ গান্ধীঘাটে গান্ধীস্মরণে যোগ দেন এম কে নারায়ণন। বেড়িয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে রাজ্যপালের মন্তব্য, স্মরণ অনুষ্ঠানে রাজ্যের কোনও মন্ত্রী না থাকার বিষয়টি দুঃখজনক।

(বিস্তারিত খবর কিছু পরে)

মুখ্যমন্ত্রীর উল্টো সুর রাজ্যপালের গলায়, বললেন মন্ত্রীরা ভালই কাজ করছেন

মুখ্যমন্ত্রী যখন নিজেই অসন্তুষ্ট তাঁর মন্ত্রীদের কাজে, তখন ঠিক উল্টো সুরে কথা বললেন রাজ্যপাল। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সামনে রাজ্যপাল এম কে এম কে নারায়ণন বলেন, রাজ্যের মন্ত্রীরা ভালই কাজ করছেন। রাজ্যের মন্ত্রীদের কাজ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে রাজ্যপাল বলেন," দে আর ডুয়িং ভেরি ওয়েল।" এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ঠিক কী বলছেন তা নিয়ে জানেন না বলেও জানান রাজ্যপাল।

রাজ্যপালে বদলে মন্ত্রীদের নামেই সরকারি নির্দেশিকা, সতর্ক করলেন মুখ্যসচিব

সংবিধানকে কার্যত বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রাজ্যপালের বদলে মন্ত্রীদের নামেই বিভিন্ন সরকারি নির্দেশিকা জারি করছিল রাজ্য সরকার। বিষয়টি নজরে আসায় ওই সব দফতরগুলিকে সতর্ক করলেন মুখ্যসচিব। এবিষয়ে দফতরগুলিকে সংবিধান মেনে চলতে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।