দলের অস্বস্তি বাড়িয়েই চলেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা দলের অস্বস্তি বাড়িয়েই চলেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা

ফের পরোক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা। দলের অস্বস্তি বাড়িয়েই চলেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা। অরুণাচল প্রদেশে রাষ্ট্রপতি শাসন নিয়ে এবার সরাসরি কেন্দ্রকে তোপ দাগলেন বিদ্রোহী বিজেপি সাংসদ। সুপ্রিম কোর্ট যদি রাষ্ট্রপতি শাসনের বিরুদ্ধে রায় দেয়, তাহলে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শদাতারা মুখ লুকোবেন কোথায়? টুইটে প্রশ্ন তুলেছেন শত্রুঘ্ন। প্রধানমন্ত্রীকে ড্যাশিং, ডায়নামিক অ্যাকশন হিরোর সঙ্গে তুলনা করেও তাঁর পরামর্শদাতাদের একহাত নিয়েছেন পাটনা সাহিবের বিজেপি সাংসদ। দেশের শীর্ষ আদালত যদি অরুণাচলে রাষ্ট্রপতি শাসনের বিরুদ্ধে রায় দেয়, তাহলে তো মুখ পুড়বে দেশের প্রধানমন্ত্রীরই। ব্যাখ্যা শত্রুঘ্নর। গতকালই অরুণাচলে রাষ্ট্রপতি শাসনের পক্ষে সওয়াল করে সুপ্রিম কোর্টে একটি অ্যাফিডেভিট জমা দেয় কেন্দ্র। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তে অবশ্য এ সপ্তাহের প্রথমেই সায় দেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়।

বেসুরো টুইটে কং সাংসদের নির্বাসনের বিরুদ্ধে লিখলেন শত্রুঘ্ন বেসুরো টুইটে কং সাংসদের নির্বাসনের বিরুদ্ধে লিখলেন শত্রুঘ্ন

  ক দিন ধরেই বেসুরে বাজছেন বিহারের বিজেপি নেতা তথা অভিনেতা শত্রুঘ্ন সিনহা। কখনও বিহারে দলের পয়লা নম্বর শত্রু নীতীশের বাড়ি ছুটে গিয়ে, কখনও আবার নিজেকে ঘুরিয়ে দলের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীর দাবিদার বলে দলের অস্বস্তি বাড়িয়েছেন বলিউডের 'খামোশ' অভিনেতা। আর এদিন একের পর এক টুইটে দলের অস্বস্তি চরমে তুললেন। এই মুহূর্তে তাঁর দল বিজেপি-র কাছে স্পর্শকাতর বিষয় সাংসদ নির্বাসনের বিষয়ে কংগ্রেসের পাশে দাঁড়ালেন শত্রুঘ্ন। টুইটে ৬৯ বছরের এই অভিনেতা- প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী লিখেছেন, সংসদে যা ঘটল, ২৫ বিশিষ্ট বন্ধু এমপি-র বহিষ্কারে খারাপ লাগছে। এঁদের মধ্যে একজন সাংসদ তো সেদিন সভায় উপস্থিত ছিলেনই না পর্যন্ত!