সংসদের শীতকালীন অধিবেশন, সুর নরম করে বিরোধীদের সাহায্যপ্রার্থী মোদী

সংসদের শীতকালীন অধিবেশন, সুর নরম করে বিরোধীদের সাহায্যপ্রার্থী মোদী

আজ থেকে শুরু হচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। এই অধিবেশনেই বিমা, পণ্য ও পরিষেবা কর বিল পাশ করাতে চায় কেন্দ্র।

সংসদের শীতকালীন অধিবেশনেও অনিশ্চিত বিমা বিল সংসদের শীতকালীন অধিবেশনেও অনিশ্চিত বিমা বিল

সংসদের শীতকালীন অধিবেশনেও সম্ভবত পেশ হচ্ছে না বিমা বিল। সিলেক্ট কমিটির দুই সদস্য জেপি নাড্ডা ও মোক্তার আব্বাস নকভি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হয়ে যাওয়ায় বিল পেশ ঘিরে জটিলতা তৈরি হয়েছে। যদিও, সিলেক্ট কমিটির

এফডিআই নিয়ে বিতর্ক শুরু লোকসভায়

বিতর্ক আর হট্টোগোলে শুরু হল খুচরো ব্যবসায় বিদেশি বিনিয়োগ নিয়ে আলোচনা। বিতর্কের শুরুতেই লোকসভার বিরোধী দলনেত্রী সুষমা স্বরাজ এফডিআই বিল পাশের জন্য ইউপিএ সরকারের কড়া সমালোচনা করেন। বিজেপির তরফে সুষমা স্বরাজ অভিযোগ করেন, এফডিআই সিদ্ধান্ত নিয়ে কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি। লোকসাভায় বিজেপি দলনেত্রী কটাক্ষের সুরে বলেন, "গত শীতকালীন অধিবেশনে সরকার আশ্বস্ত করছিল এফডিআই নিয়ে সব দলের মধ্যে ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত সিদ্ধান্ত স্থগিত রাখা হবে।"

অনাস্থা আনছেন মমতা, সমর্থন চাইছেন বামেদের

"দেশে লুঠ চলছে, ঝুট চলছে।"এই কথা বলে তৃণমূল সুপ্রিমো জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রে সরকারের বিরুদ্ধে তাঁর দল অনাস্থা প্রস্তাব আনতে চলেছে। পেনশন, এফডিআই আইনের প্রতিবাদে সংসদে এই অনাস্থা আনা হবে বলে শনিবার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একথা জানিয়েছেন। সংসদে আসন্ন শীতকালীন অধিবেশনে বাম দলগুলির কাছেও অনাস্থা প্রস্তাব আনার আবেদন জানিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

এফডিআই বিতর্কে অচল হতে পারে শীতকালীন অধিবেশন

খুচরো ব্যবসায় বিদেশি বিনিয়োগ ইস্যুকে কেন্দ্র করে আবারও উত্তপ্ত হতে চলেছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। এই ইস্যুতে আলোচনার জন্য নোটিস দিয়েছে বামেরা। বিজেপিও জানিয়ে দিয়েছে, এই ইস্যুতে সরকারের তীব্র বিরোধিতা করা হবে। বাম এবং বিজেপি, দুই শিবিরই এই ইস্যুতে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সহযোগিতা চেয়েছে। বিরোধী শিবিরের চাপের মুখে কংগ্রেস জানিয়েছে, যেকোনও ইস্যুতেই আলোচনায় রাজি তারা। তবে  এফডিআই নিয়ে সরকার যে অনড়, তাও স্পষ্ট করে দিয়েছে কংগ্রেস নেতৃত্ব।

জমি অধিগ্রহণ আইনকে কেন্দ্র করে উত্তাল বিধানসভা: ওয়াকআউট করল বিরোধীরা

জমি অধিগ্রহণ আইনের একটি সংশোধনী বিলকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে উঠল বিধানসভা। মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের বিল হওয়া সত্ত্বেও কেন তিনি গরহাজির সেই প্রশ্ন তুলে সভা থেকে ওয়াকআউট করে বিরোধীরা। তাঁদের অভিযোগ ইচ্ছাকৃতভাবে বিধানসভাকে এড়িয়ে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। যদিও সরকার পক্ষের দাবি, বিল পেশের সময় মুখ্যমন্ত্রীর না থাকা কোনও পরিষদীয় রীতিনীতির পরিপন্থী নয়।