আলোর বিপরীতে স্বামী বিবেকানন্দ

স্বামী বিবেকানন্দের দেড়শতম জন্মশতবর্ষে নানা ষোড়শোপচারের সঙ্গে, অবশ্যই প্রয়োজন ছিল একটি পূর্ণদৈর্ঘের চলচ্চিত্রের। অনেক কিছুই তো হল, ছবিটাই বা বাকি থাকে কেন! তবে এমন নয় যে, স্বামীজিকে নিয়ে আমরা এই প্রথম আড়মোড়া ভেঙে উঠলাম। প্রত্যেক মধ্যবিত্ত বাড়ির স্টাডিরুমে এঁর ছবি অবশ্যই টাঙানো থাকে বাণীসমেত, যতই দরজার পেছনে ফিল্ম বা স্পোর্টসস্টারেরা শোভা পাক। প্রতিটি ছাত্র কোনও-না-কোনও বয়সে একবার স্বামীজি হওয়ার স্বপ্ন দেখে।

স্বামীজিই শিখিয়েছেন `হাতি চলে বাজার...`: মুখ্যমন্ত্রী

আদর্শ মানুষ গড়ার প্রতিষ্ঠান তৈরি করুক বেলুড় মঠ। তার জন্য যাবতীয় সাহায্য করবে সরকার। বেলুড়মঠে স্বামী বিবেকানন্দের জন্ম সার্ধশতবর্ষ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে এই অনুরোধ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শ্রদ্ধায় পালন বিবেকানন্দের জন্মের সার্ধশতবর্ষ

নানা অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে জন্মের সার্ধশতবর্ষ উপলক্ষ্যে স্বামী বিবেকানন্দকে আজ দিনভর শ্রদ্ধা জানালেন মানুষ। সিমলা স্ট্রিটে স্বামীজীর জন্মভিটেয় যায় প্রাক্তন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধী, সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। শ্রদ্ধা জানিয়েছেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ। গোলপার্ক থেকে নরেন্দ্রপুর পর্যন্ত শোভাযাত্রায় পা মেলান অনেকেই। সিমলা স্ট্রিটের এই বাড়িতেই শৈশব কেটেছে নরেন্দ্রনাথ দত্তের।