প্লাবিত উদনারয়ণপুরের ৭টি গ্রামপঞ্চায়েত, পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনসংযোগে জোর মুখ্যমন্ত্রীর

মুণ্ডেশ্বরী ও কানা দামোদরের জল বেড়ে যাওয়ায় প্লাবিত হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর ব্লক। গতকাল দুপুরের পর থেকে জল ঢুকতে শুরু করে। সন্ধের পর থেকে প্লাবিত হয়ে যায় গোটা এলাকা। মোট ১১টা গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে৭টি জলমগ্ন। কয়েক হাজার জমির ফসল জলের নীচে। উদয়নারায়ণপুরে সব্জি চাষে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। বহু এলাকাতেই পানীয় জলের সঙ্কট তীব্র। প্রশাসনের তরফে ত্রাণ বণ্টনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেকটাই কম বলে অভিযোগ। জলের পাউচের পরিমাণ আরও বাড়ানোর দরকার বলে মত বাসিন্দাদের। আজ বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে উদয়নারায়ণপুর যান রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায়।

যুবকের দেহ উদ্ধার পাঁচলায়

এক যুবকের ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল হাওড়ার পাঁচলা থানার গাববেড়িয়া অঞ্চলে। মৃত যুবকের নাম বেল্লাল মিদ্যে। বাড়ি জগাছা থানার উনশানিতে। তিনি পেশায় গাড়ি চালক। গতকাল রাতে বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান বছর পঁচিশের বেল্লাল মিদ্যে। তারপর থেকেই তার মোবাইল বন্ধ ছিল। ভোররাতে পাঁচলার গাববেড়িয়া অঞ্চলে একটি দেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরাই পুলিসকে খবর দেয়। পরে পুলিস গিয়ে সেই দেহ উ্দ্ধার করে। পকেটে থাকা ড্রাইভিং লাইসেন্স থেকে পুলিস মৃত যুবকের পরিচয় জানতে পারে। এরপরই খবর যায় বেল্লাল মিদ্যের বাড়িতে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিস।

৩ রাত-৭ ঘটনা-নারীর নিরাপত্তা কোথায়?

গত তিন দিনে শহর ও শহরতলিতে পর পর ঘটে গিয়েছে কয়েকটি শ্লীলতাহানির ঘটনা। কয়কটিতে অভিযোগ দায়ের হয়েছে, কিন্তু ব্যবস্থা নেয়নি পুলিস। কোথাও অভিযুক্তদের গ্রেফতারে চূড়ান্ত গড়িমসি নজির। কলকাতার বুকে খোদ মহাকরণের সামনে শ্লীলতাহানির অভিযোগ। মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ হাওড়া মেটিয়াব্রুজ রুটের একটি মিনিবাসে অফিসফেরত দুই মহিলার ওপর চড়াও হয় এক যুবক। অভিযোগ জানালে বাসটির পিছু ধাওয়া করে যুবককে ধরে ফেলে পুলিস। সন্ধ্যায় দমদম মেট্রো স্টেশনে স্ত্রী ও পুত্রবধূর সম্মান বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হন এক ব্যাক্তি। অভিযুক্তদের আটক করে রেল পুলিস। টিএমসিপি নেত্রী পরিচয় দিয়ে এক মহিলা দমদমে স্টেশন সুপারের ঘরে এসে অভিযুক্তদের ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। অভিযুক্ত যুবকদের সিঁথি থানার হাতে তুলে দিয়েছে রেলপুলিস। শহরে একাধিক শ্লীলতাহানির ঘটনায় ফের প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে নারীদের নিরাপত্তা নিয়ে।