নেতৃত্বের চাপে ভাঙড়ে এক মঞ্চে আরাবুল ইসলাম ও রেজ্জাক মোল্লা

নেতৃত্বের চাপে ভাঙড়ে এক মঞ্চে আরাবুল ইসলাম ও রেজ্জাক মোল্লা

  নেতৃত্বের চাপে ভাঙড়ে এক মঞ্চে আরাবুল ইসলাম ও রেজ্জাক মোল্লা। ভাঙড়ে পাকপোল বাজারে দলীয় কর্মীদের নিয়ে সভা করলেন দুজনে। গত পরশুই ভাঙড়ের দ্বন্দ্ব মেটাতে আরাবুল ইসলাম , কাইজার আহামেদ এবং রেজ্জাক মোল্লাকে এক সঙ্গে বসিয়ে মিটিং করেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।  সংঘাত মেটাতে আরাবুল ইসলামকে সভাপতি করে ভাঙড়ের জন্য গড়া হয় নির্বাচনী কমিটি।  কনভেনর করা হয় কাইজারকে। তার পরেই গতকাল একসঙ্গে ভাঙড় রাজনীতির দুই যুযুধান আরবুল-রেজ্জাক। যদিও সভায় ছিলেন না কাইজার আহমেদ।

 সব জল্পনার অবসান, বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী হচ্ছেন মদন মিত্র সব জল্পনার অবসান, বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী হচ্ছেন মদন মিত্র

সব জল্পনার অবসান। বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী হচ্ছেন মদন মিত্র। কামারহাটির কর্মিসভায় জানিয়ে দিলেন সৌগত রায়। সারদা মামলায় জেলবন্দি মদনকে প্রার্থী করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সরব বিরোধীরা। প্রশ্ন উঠছে, তবে কী ভোটে জিততে মরিয়া তৃণমূলের ভরসা সেই মদন-আরাবুলরাই? এক বছরের বেশি সময় কেটে গেছে। সারদা মামলায় জেলবন্দি মদন মিত্র। প্রথমদিকে মদনের গ্রেফতারির প্রতিবাদে পথে নেমেছিল তৃণমূল। কিন্তু সময়ের সঙ্গে মদনের সঙ্গে দুরত্ব বেড়েছে কালীঘাটের। মদন কী দলে ব্রাত্য? জামিন নিয়ে টানাপোড়েনের মাঝে বার বার উঁকি দিয়েছে এই জল্পনাও।

কামব্যাকের পর আরাবুল এখন স্পিকটি নট মুডে কামব্যাকের পর আরাবুল এখন স্পিকটি নট মুডে

আরাবুলের কামব্যাক। বিধানসভা ভোটের আগে এখন এটাই ভাঙড়ের ক্যাচলাইন। পায়ের তলার জমি শক্ত করতেই, এই সিদ্ধান্ত তৃণমূলের। কিন্তু এরপর কী? আরও একবার আরাবুল-কাইজার দ্বন্দ্ব কি মাথাচাড়া দিতে চলেছে? আশঙ্কায় ভাঙর।ফের দলে স্বমহিমায় আরাবুল ইসলাম। সেই আরাবুল, ব্যাঁওতায় জোড়া খুনের জেরে যাঁকে দল থেকে সাসপেন্ড করা হয়। তালপুকুরে শাসক দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে খুন হন তৃণমূলেরই রমেশ ঘোষাল এবং বাপন মণ্ডল। মাস্টারমাইন্ড হিসেবে উঠে এসেছিল আরাবুল ইসলামের নাম। বিচার হয়নি আজও। অভিযোগ, উল্টে হেনস্থা হতে হচ্ছে দুই পরিবারের লোকজনকে। এরই মধ্যে স্বমহিমায় প্রত্যাবর্তন আরাবুলের। নতুন ইনিংসের শুরুতেই, মঞ্চে দাঁড়িয়ে কাইজার-আরাবুল কোলাকুলি অবশ্য আশঙ্কায় জল ঢালতে পারেনি। বিরোধীদের অভিযোগ, সবটাই লোক দেখানো।  যদিও কাইজার গোষ্ঠী প্রকাশ্যে মুখ খুলতে নারাজ। আশঙ্কা, বেফাঁস মন্তব্য ফেলতে পারে বেকায়দায়। আরাবুল অবশ্য স্পিকটি নট মুডে। দলের নির্দেশে তাঁর কাছে পাখির চোখ এখন আসন্ন বিধানসভা ভোট।

বামেদের ধিক্কার মিছিলে জনজোয়ার

রেজ্জাক মোল্লা সহ দলীয় কর্মীদের আক্রমণের প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে ধিক্কার দিবস পালন করল বামেরা। কলকাতায় প্রতিবাদ মিছিলের শুরুতে ছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। উপস্থিত ছিলেন বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র সহ শীর্ষ বাম নেতারা। ধর্মতলা থেকে শিয়ালদা পর্যন্ত মিছিলে পা মেলান অসংখ্য মানুষ। 

আবারও বিবাদে আরাবুল

ফের কাঠগড়ায় তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম। এবার গ্রাম্য বিবাদের জেরে কয়েকজনকে মারধরের অভিযোগ উঠল ভাঙরের এই দাপুটে নেতার বিরুদ্ধে। জানা গেছে, গত কয়েকদিন ধরে পারিবারিক সমস্যার কারণে গ্রাম্য বিবাদে জড়িয়ে পড়েন বাগানাইট গ্রামের এক মহিলা। তাঁর বিরুদ্ধে অসামাজিক কাজকর্মের অভিযোগে সরব হয় বাগানাইট গ্রাম এবং পাশের গ্রাম মরিয়া গোবিন্দপুরের বাসিন্দাদের একাংশ। আজও মহিলার পরিবারের সঙ্গে গ্রামের বাসিন্দাদের  বচসা বাধে। অভিযোগ, এরপরেই ওই মহিলার হয়ে বচসায় জড়িয়ে পড়েন আরাবুল ইসলাম। আরাবুলের নির্দেশে তাঁর অনুগামীরা গ্রামে গিয়ে বাসিন্দাদের ব্যাপক মারধর করে বলে অভিযোগ।

জামিন পেলেন ভাঙড় কলেজের অধ্যাপিকা

অবশেষে জামিন পেলেন ভাঙড় কলেজের অধ্যাপিকা দেবযানি দে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বারুইপুর আদালতের এসিজেএম সুরতেশ্বর মণ্ডলের এজলাসে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। এরপর হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে তাঁর জামিন মঞ্জুর করে আদালত।

আত্মসমর্পণ করেই জামিন আরাবুলের

আত্মসমর্পণ করলেন ভাঙড় কলেজে অধ্যাপিকা নিগ্রহ কাণ্ডে অভিযুক্ত আরাবুল ইসলাম। যদিও কিছুক্ষণের মধ্যেই হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে আদালত তাঁকে জামিন দেয়। সোমবার দুপুরে বারুইপুর আদালতে আত্মসমর্পণ করেন আরাবুল।

সোমবার আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারেন আরাবুল

সোমবার ভাঙড় কাণ্ডে অভিযুক্ত আরাবুল ইসলাম আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারেন। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন বিধায়ক এবং দলীয় নেতা আরাবুলের বিরুদ্ধে ভাঙড় কলেজের অধ্যাপিকাকে নিগ্রহের অভিযোগ রয়েছে।

শঙ্কুকে তিরস্কার মুখ্যমন্ত্রীর, আরাবুলের বিরুদ্ধে এফআইআর

সিপিআইএম করলে কলেজে পড়ানো যাবে না। এই বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে তৃণমূলের ছাত্রপরিষদের সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডাকে তিরস্কার করলেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ শঙ্কুদেব পণ্ডাকে মহাকরণে ডেকে পাঠান মুখ্যমন্ত্রী। সেখানেই তাঁকে তিরস্কার করা হয়। তবে এঘটনায় দলের তরফে তাঁর বিরুদ্ধে কোনও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা, তা এখনও জানা যায়নি।

আরাবুলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জমা দিলেন নিগৃহীতা অধ্যাপিকা

অবশেষে তৃণমূল নেতা ও ভাঙড়ের প্রাক্তন বিধায়ক আরাবুল ইসলামের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করলেন নিগৃহীতা অধ্যাপিকা। শুক্রবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার পুলিস সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগপত্র জমা দিয়েছেন অধ্যাপিকা দেবযানী দে।

সিন্ডিকেট থেকে তোলা আদায়, ভাঙড় কাঁপে আরাবুল আতঙ্কে

ভাঙড় কলেজের অধ্যাপিকাকে হেনস্থা করার অভিযোগে ফের কাঠগড়ায় প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক আরাবুল ইসলাম। তবে এই প্রথম নয়, তৃণমূলের এই প্রাক্তন বিধায়ক অতীতে একাধিক ঘটনায় অভিযুক্ত হয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ ওঠায় ২০১১-র নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে শাস্তির আশ্বাস দিয়েছিলেন খোদ তৃণমূল নেত্রী।

অধ্যাপিকা নিগ্রহে অভিযুক্ত আরাবুল ইসলাম, একযোগে রুখে দাঁড়ালেন শিক্ষকরা

ফের বিতর্কে তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক আরাবুল ইসলাম। মঙ্গলবার তাঁর বিরুদ্ধে ভাঙড় কলেজের এক অধ্যাপিকাকে হেনস্থার অভিযোগ উঠেছিল। অভিযোগ, কলেজের অধ্যাপিকা দেবযানী দে-কে জলের জগ ছুঁড়ে মারেন তিনি। অধ্যাপিকাদের নিগৃহীত হতে দেখে অধ্যাপকরা বাধা দিতে এলে ওই তৃণমূল নেতা তাঁদেরও অকথ্য গালিগালাজ করেন বলে অভিযোগ।