জোট ছাড়াও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা জোট ছাড়াও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা

দোরগোড়ায় বিধানসভা নির্বাচন। দিল্লিতে জোরদার জোট তত্পরতা। বামসঙ্গ চেয়ে দরবার প্রদেশ নেতৃত্বের। বল এখন সোনিয়া গান্ধীর কোর্টে। তবে শুধুই কংগ্রেস নয় রাজ্যের বাম শিবিরের নজরও এখন দশ জনপথেই। তবে শুধুই জোটের ওপর ভরসা করে দুহাজার ষোলোর শক্তিপরীক্ষায় নামতে নারাজ  বামেরা। প্ল্যান এ বাম-কংগ্রেস জোট হলেও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা।  কীরকম সেই প্ল্যান বি? অ্যাকশন প্ল্যানের নিরিখে বাছাই করা কেন্দ্রগুলিকে ভাগ করা হয়েছে তিনটি পর্যায়ে। কলকাতা বিধানসভার এগারোটি কেন্দ্রকে ভাগ করা হয়েছে সন্ত্রাস এবং  সাংগঠনিক শক্তির ভিত্তিতে। তৃতীয় পর্যায়ে রাখা হয়েছে এমন কেন্দ্রগুলিকে যেখানে সন্ত্রাসের আশঙ্কার পাশাপাশিই দুর্বল বামেদের সাংগঠনিক শক্তিও। এবং সেই নিরিখেই ইতিমধ্যেই ঠিক হয়ে গেছে কে কে হবেন সেনাপতি। কে কে হচ্ছেন ভোট যুদ্ধে সেনাপতি।চলুন একনজরে দেখে নেওয়া যাক:

সিপিআইমের সঙ্গে জোট, অধীরদের সম্মতি থাকলেও এখনও ভাবছে কংগ্রেস হাইকম্যান্ড সিপিআইমের সঙ্গে জোট, অধীরদের সম্মতি থাকলেও এখনও ভাবছে কংগ্রেস হাইকম্যান্ড

বামেদের সঙ্গে জোট করে বিধানসভা ভোটে লড়ুক কংগ্রেস। রাহুল গান্ধীর কাছে এই দাবি পেশ করলেন অধিকাংশ প্রদেশ নেতা। প্রদেশ কংগ্রেস সূত্রে খবর, ১৭জন প্রতিনিধির মধ্যে ১৫জনই বামেদের হাত ধরার পক্ষে সওয়াল করেছেন। জোট প্রস্তাবে রাহুল গান্ধীও সহমত প্রকাশ করেছেন বলে প্রদেশ নেতাদের দাবি। যদিও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীই। প্রয়োজনে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডেকে এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। এমাসের মধ্যেই হাইকমান্ড চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলবে বলে আশাবাদী প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব।  

রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর প্রতিবাদ অনশনের মিছিলে পা মেলালেন রাহুল গান্ধী রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর প্রতিবাদ অনশনের মিছিলে পা মেলালেন রাহুল গান্ধী

হায়দরাবাদের রিসার্চ স্কলার রোহিত ভেমুলার মৃত্যুতে ক্রমশ জোরালো হচ্ছে প্রতিবাদ। আজ রোহিতের ২৭তম জন্মদিন। গতকাল মধ্যরাতে বিচারের দাবিতে মোমবাতি মিছিল করেন প্রতিবাদীরা। তাতে সামিল হন রোহিতের মা। কিছুক্ষণের মধ্যেই পৌঁছান কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী। মিছিলে পা মেলান তিনি। রোহিতের জন্মদিনের দিনই গণ অনশন শুরু করতে চলেছেন বিক্ষোভকারীরা। তাতে সামিল হচ্ছেন রোহিতের সঙ্গে সাসপেন্ড হওয়া চার পড়ুয়াও। ১২ ঘণ্টার প্রতীকী অনশন করছেন রাহুল গান্ধীও। এদিন রাহুল গান্ধী বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছনোর কিছুক্ষণ আগেই ছুটিতে চলে যান পি আপ্পা রাওয়ের পর দায়িত্বে আসা উপাচার্য বিপিন শ্রীবাস্তব। ১৭ জানুয়ারি আত্মহত্যা করেন রোহিত। আর ২৬ জানুয়ারি অনির্দিষ্টকালের ছুটিতে চলে যান পি আপ্পা রাও। এবার চারদিনের ছুটিতে চলে গেলেন বিপিন শ্রীবাস্তবও। রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর জন্য দুজনকেই কাঠগড়ায় তুলছেন পড়ুয়ারা।

অরুণাচল প্রদেশে জারি করা হল রাষ্ট্রপতি শাসন অরুণাচল প্রদেশে জারি করা হল রাষ্ট্রপতি শাসন

ধোপে টিঁকল না কংগ্রেসের আপত্তি। অরুণাচল প্রদেশে জারি হল রাষ্ট্রপতি শাসন। আজ বিকেলে রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়ে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। ঠিক কী কারণে,কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশ করেছে তা প্রণব মুখোপাধ্যায়কে বুঝিয়ে বলেন তিনি। এরপরই কেন্দ্রের সুপারিশে সিলমোহর দেন রাষ্ট্রপতি। অবসরপ্রাপ্ত IAS  জি এস পট্টনায়েক এবং দিল্লি পুলিসের প্রাক্তন প্রধান Y S DADWAL-কে রাজ্যপালের উপদেষ্টা পদে নিয়োগ করা হয়েছে। গতকালই রাষ্ট্রপতি শাসন সুপারিশের বিরোধিতায় সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন দাখিল করে  কংগ্রেস। কেন্দ্রের কাছে রাষ্ট্রপতি শাসন সুপারিশের কারণ জানতে চান রাষ্ট্রপতিও। রাজনৈতিক চাপানউতোরের পর আজ শেষপর্যন্ত রাষ্ট্রপতি শাসন জারির ফাইলে সই করলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। নাবাম টুকির মতে, পরিকল্পনামাফিক রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করেছে কেন্দ্র।

শীতে জমজমাট পাহাড়ের রাজনীতি, কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গে জোট করতে পারে মোর্চা শীতে জমজমাট পাহাড়ের রাজনীতি, কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গে জোট করতে পারে মোর্চা

জমে গেল পাহাড়ের রাজনীতি। পাহাড় সফরে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইঙ্গিত দেন, পাহাড়ের বাকি সব দলগুলিকে জড়ো করে মোর্চার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে পারে তৃণমূল। প্রার্থী হিসেবে বেছে নেওয়া হতে পারে একদা বিমল গুরুংয়ের কাছের কাউকে। আজ পাল্টা দিলেন বিমল গুরুং। বললেন, তৃণমূলের বিভাজনের রাজনীতির মোকাবিলায় কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গেও জোট করতে পারে মোর্চা। বস্তুত শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, এভাবে বিজেপিকেও বার্তা দিলেন মোর্চা সভাপতি। কারণ মোর্চা কংগ্রেস কিংবা বামেদের সঙ্গে জোট বাঁধলে পাহাড়ে ক্ষতি বিজেপিরই। একই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, জিটিএ আইন মানছে না রাজ্য সরকার নিজেই।

নেতাজি ফাইল প্রকাশের পর নেহরুর চিঠি নিয়েই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি নেতাজি ফাইল প্রকাশের পর নেহরুর চিঠি নিয়েই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি

নেতাজি যুদ্ধপরাধী! ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এটলিকে লেখা চিঠিতে এমনটাই নাকি লিখেছিলেন জওহরলাল নেহরু! আর এই নথি সামনে আসতেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। কংগ্রেসের দাবি  চিঠিটি জাল! চিঠিতে নেই নেহরুর কোনও সইও। তাইহোকু বিমান দুর্ঘটনাতেই কী নেতাজির মৃত্যু হয়েছিল? পঁয়তাল্লিশের আঠারোই অগাস্টের পরও কী জীবিত ছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু? বিমান দুর্ঘটনায় সুভাষচন্দ্রের মৃত্যু হয়েছে এমনটা সম্ভবত বিশ্বাস করতে পারেননি নেহরু। আর তাই চিঠি লিখে বসেছিলেন তত্কালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লেমেন্স এটলিকে। নেতাজি ফাইল প্রকাশ্যে আসায় সামনে এসছে এমনই একটি চিঠি। আর সেই চিঠি ঘিরেই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি। পয়তাল্লিশেরই ডিসেম্বরে এটলিকে  নেহরু লিখছেন , বিশ্বস্ত সূত্রে তিনি জানতে পেরেছেন, এটলির চোখে যুদ্ধপরাধী  সুভাষ চন্দ্র বসু কে রাশিয়ায় ঢোকার অনুমতি দিয়েছেন স্টালিন।আর এ চিঠি সামনে আসতেই উঠছে একের পর এক প্রশ্ন?

বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়! বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়!

রাজ্যে বাম-কংগ্রেস জোটের চেষ্টায় কোনও লাভ হবে না। ভোটের ফল বেরোলে রাজ্যে কোনও স্বীকৃত বিরোধী দলই থাকবে না। আজ এভাবেই বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন  মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। বিরোধী দলের নেতারা অবশ্য দাবি করছেন, জোট নিয়ে ভয় পেয়েছেন শাসক দলের নেতারা। তাই বার বার এধরনের আস্ফালন। তৃণমূলকে হারাতে কী কংগ্রেসের হাত  ধরবে সিপিএম?  ভোটের আগে এই জল্পনায় সরগরম রাজ্য রাজনীতি। বিরোধী শিবিরে  যখন জোট তত্‍পরতা তুঙ্গে, তখনই জোট নিয়ে বার বার কটাক্ষ শোনা গেছে শাসকদলের গলায়। দলের নেতামন্ত্রীরা তো বটেও, জোট নিয়ে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন খোদ তৃণমূলনেত্রীও।