চাঁদখালিতে মাছ ধরতে গিয়ে অপহৃত ৩ মত্স্যজীবী

চাঁদখালিতে মাছ ধরতে গিয়ে অপহৃত ৩ মত্স্যজীবী

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার চাঁদখালিতে মাছ ধরতে গিয়ে জলদস্যুদের হাতে অপহৃত হলেন ৩ মত্‍স্যজীবী। বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ সীমান্তে দশজন সশস্ত্র জলদস্যু মত্‍স্যজীবীদের ৩টি নৌকায় ব্যাপক লুঠপাট চালায়।ওই ৩ জনের ব

৮টি মাছ ধরার নৌকা সহ ৫৮ জন ভারতীয় মৎস্যজীবীকে আটক করল পাকিস্তান ৮টি মাছ ধরার নৌকা সহ ৫৮ জন ভারতীয় মৎস্যজীবীকে আটক করল পাকিস্তান

আরব সাগরে গুজরাত উপকূলের জাখাউ পোস্টের কাছ থেকে ৮টি মাছ ধরার নৌকা সহ ৪৮ জন ভারতীয় মৎসজীবীকে আটক করল পাকিস্তান মেরিটাইম সিকিউরিটি এজেন্সি (এমএসএ)। আজ ন্যাশনল ফিশওয়ারকার্স ফোরাম (এনএফএফ) সূত্রে এই খবর জানা গেছে।

গাঁটের ব্যাথা সারাতে প্রতিবছর ৮০ টন বিষধর সাপ ধরা হয় ভিয়েতনাম উপকূল থেকে গাঁটের ব্যাথা সারাতে প্রতিবছর ৮০ টন বিষধর সাপ ধরা হয় ভিয়েতনাম উপকূল থেকে

সাপের ঘরে অনুপ্রবেশ! এক প্রকার জঙ্গি নাশকতাই বটে। ভিয়েতনামের সমুদ্রতট থেকে ৮০ টন বিষধর সাপ ধরা হয় প্রতি বছর।  যদিও  বেশকিছু মৎস্যজীবীর প্রাণও যায় এই বিষাক্ত খেলায়।  কিন্তু বিশ্ব বাজারে সাপের বিষের বাড়ন্ত  চাহিদার জন্য ফুলে ফেঁপে উঠছে সাপ ধরার ব্যবসা।

মত্‍স্যজীবীদের ঘর থেকে উদ্ধার ৫৭ লক্ষ টাকার সোনার বিস্কুট মত্‍স্যজীবীদের ঘর থেকে উদ্ধার ৫৭ লক্ষ টাকার সোনার বিস্কুট

তামিলনাড়ুর মাদুরাইয়ের দুই মত্‍সজীবীর বাড়ি থেকে উদ্ধার হল সোনার বিস্কুট। ২. ৩ কিলোগ্রামের ওই সোনার বিস্কুটের মূল্য প্রায় ৫৭ লক্ষ টাকা। সমুদ্রের রুটের মাধ্যমে সোনার বিস্কুটের চালান হচ্ছে বলে খবর ছিল পুলিসের কাছে।  

কাকদ্বীপে ১৬ জন মৎস্যজীবী সহ নিখোঁজ ট্রলার কাকদ্বীপে ১৬ জন মৎস্যজীবী সহ নিখোঁজ ট্রলার

কাকদ্বীপ থেকে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে গেল ট্রলার। খোঁজ মিলছেনা ১৬ জন মত্স্যজীবীর। গতকাল কাকদ্বীপ ফিশিং হারবার থেকে রওনা দেয় এমভি লোকনাথ নামের ট্রলারটি। আজ ট্রলারটির সঙ্গে যোগযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। গত তিন-চার দিন ধরে আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ। ট্রলারটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে থাকতে পারে বলে অনুমান।

ভারতে থাকা ইতালীয়দের সতর্কবার্তা দিল ইতালি সরকার

দু`দেশের কুটনৈতিক সম্পর্ককে আরও চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দিয়ে ভারতে অবস্থিত ইতালির নাগরিকদের `সজাগ ও সতর্ক` থাকার নির্দেশ দিয়েছে ইতালির সরকার। ইতালি দূতাবাসের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানান হয়েছে, "দুই নাবিককে ফেরত পাঠানো নিয়ে ভারতে, বিশেষ করে কেরালায়, কোনও বিক্ষোভ প্রদর্শন হলে, তার থেকে ইতালীয়দের দূরে থাকাই বাঞ্ছনীয়।"