আর কতটা গম্ভীর হলে গৌতমকে খেলানো যায়! প্রশ্ন ক্রিকেট সমালোচকদের

আর কতটা গম্ভীর হলে গৌতমকে খেলানো যায়! প্রশ্ন ক্রিকেট সমালোচকদের

সাউদাম্পটনে ভারতের বিশাল ব্যবধানে হার ধোনিবাহিনীর আত্মবিশ্বাস একটু হলেও খামতি দেখা দিতে পারে। গত টেস্টে প্রথম সারির পাঁচ ব্যাটসম্যানদের খারাপ পারফরমেন্স নিয়ে মুখ খুলেছে ক্রিকেট সমালোচকরা। তবুও ধোনির মেজাজ ফুরফুরে! ম্যানচেস্টারে নামার আগে কোনও টেনশন নিতে চাননা কুল অধিনায়ক।  ক্রিকটে বিশেষজ্ঞরা প্রশ্ন তুলছেন, শিখর ধাওয়ানের পারফরমেন্স নিয়ে। পরিবর্তে তাঁরা চাইছেন রিজার্ভ বেঞ্চে বসে থাকা অর্ধশত টেস্ট খেলা গৌতম গম্ভীরকে। তাতে ওপেনিং জুটিতে বাঁহাতি সমন্বয়ও ভাঙছেনা, ভাগ্য ঠিক থাকলে ধাওয়ানের ক্ষরা কাটিয়ে উঠতে পারে গম্ভীর। বলা যেতে পারে এই মুহূর্তে গম্ভীরকে খেলানো হল  সাপও মরল, লাঠিও ভাঙল না।

লাস্ট বয়কে হারিয়ে নাইটদের গম্ভীর হাসি

অবশেষে আর একটা জয়ের মুখ দেখল কলকাতা নাইট রাইডার্স। পেপসি আইপিএলের দুর্বলতম দল পুণে ওয়ারিয়র্সের বিরুদ্ধে গতকাল ৪৬ রানে সহজে জয় তুলে নিল শাহরুখের নাইটরা।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পুনের দুর্বল বোলিং বাহিনীর বিরুদ্ধে কোনও রকমে ১৫০ রানের বাউন্ডারিটা টপকান গম্ভীর এন্ড কোম্পানি। অধিনায়কের হাফসেঞ্চুরি আর রায়ান টেন দুসখাতে ৩১ রানের সৌজন্যে পুণের বিরুদ্ধে মোটামুটি ভদ্রস্থ ১৫৩ রানের টার্গেট দেয় কলকাতা। যদিও আইপিএলের নিরিখে ১৫২রানের সীমাটা কোনও ব্যাপারই নয় তবুও পুনের বর্তমান হালত এতটাই সঙ্গিন ওই কটা রান করতেই হিমশিম খেল যুবরাজরা। মাত্র ১৯.৩ ওভারে ১০৬ রানেই গুটিয়ে যায় পুণের ইনিংস। যুবরাজ থেকে ফিঞ্চ, পুণের সবাই যেন ঠিকই করে ফেলেছেন এবারে আইপিএলে লিগ টেবিলে শেষ জায়গাটা ছেড়ে তাঁরা একপাও নড়বেন না।

আজ দ্বিমুখী বদলার ম্যাচে কলকাতার সামনে চেন্নাই

ঘরের মাঠে ধোনি ধামালের কাছে নাস্তানাবুদ হয়েছিল নাইট বাহিনী। আজ ফিরতি খেলায় সিংহের গুহায় ঢুকে সেই পরাজয়ের প্রতিশোধ নেওয়ার কঠিন চ্যালেঞ্জ গম্ভীরদের সামনে। পরপর তিন ম্যাচ হারের পর আগের ম্যাচে কিংস XI ইলেভেন পাঞ্জাবকে হারিয়ে কিছুটা চনমনে কলকাতা নাইট রাইডার্স। কিন্তু সেই চনমনে ভাব বিধ্বংসী চেন্নাইয়ের উড়ান থামাতে কতখানি সক্ষম হবে সেই নিয়ে নাইটদের অন্দরমহলেই সন্দেহ প্রবল। খাতায় কলমে আজকের লড়াইটা লিগ টেবিলে দু`নম্বরে থাকা চেন্নাই কিংসের সঙ্গে সাত নম্বরে থাকা কলকাতা নাইট রাইডার্সের। এবারের আইপিএলের নিরিখে এটা কিং খানের দলের বদলার ম্যাচও বটে। কিন্তু এর আড়ালে আর একটি অমোঘ সত্যিও যে লুকিয়ে আছে। এই মাঠেই আইপিএল-৫-এর ফাইনালে ধোনির চেন্নাইকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন ট্রফিটা দখল করেছিল গম্ভীরের কলকাতা। সেই ইতিহাস মনে হয় না চেন্নাই দলের স্মৃতি থেকে মুছে গেছে। তাই এবারের হিসাবনিকাশের অলক্ষ্যেই আর একটা বদলার কাউন্টডাউনও কিন্তু শুরু হয়ে গেছে। আর ২২ গজে প্রতিশোধের মামলায় মহেন্দ্র সিং ধোনি নামক ব্যক্তিটি যে কতখানি নির্মম সে বিষয়ে সম্যক জ্ঞান আছে নাইট দলের সবারই। তাই আশা করা যায় আজ আরও অনেক ক্রিকেটিয় অঙ্কের সঙ্গে এই ফ্যাক্টরটিও মাথায় নিয়ে খেলতে নামবেন কলকাতার সৈন্যরা।