মোদীর রাজ্যে প্যাটেল-ফ্যাক্টর

গুজরাতে নির্বাচন মানেই প্যাটেল সমাজের ভোট বিজেপির বাক্সে। ১৯৯৫ থেকে চলে
আসা এই একই চিত্রনাট্যে এবার কিছুটা বদল হলেও হতে পারে। একাধিক কারণে মোদির
ওপর ক্ষুব্ধ প্যাটেল সমাজের একটা বড় অংশ। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, এই
ক্ষোভের বড়সড় গুনাগার দিতে হতে পারে মোদিকে। গুজরাত থেকে রজতশুভ্র
মুখোটির বিশেষ রিপোর্ট
। 

ভোটের প্রচারে তাক লাগাচ্ছে ত্রিমাত্রিক মোদী

গুজরাতে ভোটের প্রচারে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। গান্ধীনগরের স্টুডিওয়ে বসে তিনি বক্তৃতা দিচ্ছেন। আর, থ্রিডি প্রযুক্তির সাহায্যে ৫৩টি জায়গায় প্রচারিত হচ্ছে তাঁর বক্তব্য। ভোটাররা দেখছেন মুখ্যমন্ত্রীর ত্রিমাত্রিক প্রতিবিম্ব। প্রযুক্তির কল্যাণে এই নকল মোদী একেবারে আসলের মতোই। নির্বাচনী জনসভা। বাঁদিকে, সশরীরে উপস্থিত নরেন্দ্র মোদী। ডানদিকে, তাঁর ত্রিমাত্রিক প্রতিবিম্ব। গুজরাট থেকে রজতশুভ্র মুখোটির বিশেষ প্রতিবেদন।

দাঙ্গা, কংগ্রেস নয়, প্রাক্তন বন্ধুরাই অন্তরায় মোদীর

গোধরা নয়, সোনিয়া গান্ধী নয়, কংগ্রেস নয়। নির্বাচনের প্রচারে নরেন্দ্র মোদীকে কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছেন তাঁর একসময়ের ঘনিষ্ঠরাই। তাঁদের একজন কেশুভাই প্যাটেল। গুজরাতের রাজনীতিতে মোদীর গুরু হিসেবেই পরিচিত তিনি। অন্যজন গোবর্ধন জারাপিয়া। তিনি মোদীর প্রাক্তন সেনাপতি। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মোদীর গদি যদি টলে, তাহলে তার অন্যতম কারণ হবেন এই দুজন। গুজরাট থেকে রজতশুভ্র মুখোটির বিশেষ প্রতিবেদন।

এখনও সংখ্যালঘু ক্ষোভে আক্রান্ত মোদীগড়

তেরো ডিসেম্বর গুজরাটের প্রথম দফার নির্বাচন।  নির্বাচনের ঠিক আগে কেমন আছেন গুজরাটের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়? উন্নয়নের সুফলই বা কতটা পেয়েছেন তাঁরা? সরকারের কাছে তাঁদের আশাই বা কতটা বাস্তবায়িত হয়েছে। গত দু'দশকে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভের পাল্লাই বেশি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের। গুজরাট থেকে রজতশুভ্র মুখোটির রিপোর্ট।

মোদীর বিরুদ্ধে প্রার্থী অপসারিত পুলিসকর্তার স্ত্রী

গুজরাট হিংসা নিয়ে সরাসরি নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন আইপিএস অফিসার সঞ্জীব ভাট। তাঁর অভিযোগ ছিল হিংসা মোকাবিলায় পুলিসকর্তাদের ধীরে চল নীতি অনুসরণ করতে বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এর জেরে অপসারিত হন সঞ্জীব ভাট। এই নিয়ে আইনি লড়াইও শুরু করেছেন এই অপসারিত পুলিস অফিসার। কিন্তু এবার লড়াইয়ের ময়দানটা ভিন্ন। আসন্ন গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে মণিনগর কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সঞ্জীব ভাটের স্ত্রী শ্বেতা ভাট। শুক্রবার ওই কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তিনি।