ফের হাইকোর্টের তোপের মুখে রাজ্য, বীজপুরে বধূ নির্যাতনের মামলায় সিআইডি তদন্তের নির্দেশ আদালতের

ফের হাইকোর্টের তোপের মুখে রাজ্য। এবার বধূ নির্যাতনের একটি মামলায় সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিল আদালত। উত্তর চব্বিশ পরগনার বীজপুরের ওই মামলায় পুলিসি তদন্তে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। দুহাজার এগারোর নভেম্বরে উত্তর চব্বিশ পরগনার নৈহাটির অন্তরা চৌধুরীর বিয়ে হয় বীজপুরের সঞ্জয় শীলের। নৌবাহিনীতে চাকরি করতেন সঞ্জয়। পণ বাবদ মোটা টাকাও দেওয়া হয়। অন্তরা দেবীর অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই বাড়তে থাকে নির্যাতন। বীজপুর থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে উল্টে হেনস্থা করা হয় তাঁকে।

মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি ধারায় মামলা দায়ের নজরুল ইসলামের

এবার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি ধারায় অভিযোগ দায়ের করলেন আইপিএস অফিসার নজরুল ইসলাম। মুখ্যমন্ত্রীর একসময়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এই আইপিএস অফিসার দীর্ঘদিন ধরেই কড়া ভাষায় তাঁর সমালোচনা করে চলেছেন। যে কারণে সরকারের তরফে তাঁর বিরুদ্ধে চার্জশিটও পেশ হয়েছে। আটকে গিয়েছে তাঁর পদোন্নতি। সে কারণেই এবার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব ও ডিজির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলায় উদ্যোগী এই আইপিএস অফিসার।রেলমন্ত্রী থাকাকালীন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত কাছের আইপিএস অফিসার ছিলেন নজরুল ইসলাম। সময় গড়িয়েছে। রেলমন্ত্রকের পাঠ চুকিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গে করে নিয়ে এসেছিলেন নজরুল ইসলামকেও। কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই মধুচন্দ্রিমায় ছেদ। প্রথম গণ্ডগোলের সূত্রপাত একটি বইলেখাকে কেন্দ্র করে।