রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর প্রতিবাদ অনশনের মিছিলে পা মেলালেন রাহুল গান্ধী রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর প্রতিবাদ অনশনের মিছিলে পা মেলালেন রাহুল গান্ধী

হায়দরাবাদের রিসার্চ স্কলার রোহিত ভেমুলার মৃত্যুতে ক্রমশ জোরালো হচ্ছে প্রতিবাদ। আজ রোহিতের ২৭তম জন্মদিন। গতকাল মধ্যরাতে বিচারের দাবিতে মোমবাতি মিছিল করেন প্রতিবাদীরা। তাতে সামিল হন রোহিতের মা। কিছুক্ষণের মধ্যেই পৌঁছান কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী। মিছিলে পা মেলান তিনি। রোহিতের জন্মদিনের দিনই গণ অনশন শুরু করতে চলেছেন বিক্ষোভকারীরা। তাতে সামিল হচ্ছেন রোহিতের সঙ্গে সাসপেন্ড হওয়া চার পড়ুয়াও। ১২ ঘণ্টার প্রতীকী অনশন করছেন রাহুল গান্ধীও। এদিন রাহুল গান্ধী বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছনোর কিছুক্ষণ আগেই ছুটিতে চলে যান পি আপ্পা রাওয়ের পর দায়িত্বে আসা উপাচার্য বিপিন শ্রীবাস্তব। ১৭ জানুয়ারি আত্মহত্যা করেন রোহিত। আর ২৬ জানুয়ারি অনির্দিষ্টকালের ছুটিতে চলে যান পি আপ্পা রাও। এবার চারদিনের ছুটিতে চলে গেলেন বিপিন শ্রীবাস্তবও। রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর জন্য দুজনকেই কাঠগড়ায় তুলছেন পড়ুয়ারা।

তাঁর সরকার গরিবের সরকার, দলিতের সরকার, বললেন প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকার গরিবের সরকার, দলিতের সরকার, বললেন প্রধানমন্ত্রী

তাঁর সরকার গরিবের সরকার, দলিতের সরকার। নিজের লোকসভা কেন্দ্র বারাণসীতে এক অনুষ্ঠানে একথা বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। হায়দরাবাদে দলিত ছাত্রের আত্মহত্যার ঘটনায় বিরোধীরা দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ইস্তফার দাবি তুলেছেন। স্মৃতি ইরানি ও বন্দারু দত্তাত্রেয়কে না সরানোয় প্রধানমন্ত্রীর দিকেই তাঁরা আঙুল তুলছেন। এই পরিস্থিতিতে নিজেকে গরিব ও দলিত দরদী বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করলেন মোদী। আজ বারাণসীতে বিশেষভাবে সক্ষম ছাত্রছাত্রীদের সহায়তা সরঞ্জাম প্রদান করেন তিনি। বারাণসী-দিল্লি মহামান্য এক্সপ্রেসের উদ্বোধনও করেন। কিন্তু, নিজের ভাষণে নতুন ট্রেনের কথা বলতে ভুলে যান প্রধানমন্ত্রী। দ্বিতীয়বার বলতে উঠে সে ভুল স্বীকার করে নেন তিনি।