OMG! রাস্তার ক্ষিপ্ত বুনো হাতিকে 'এক ধমকে' জঙ্গলে ফেরাল শিশু (ভাইরাল ভিডিও)

OMG! রাস্তার ক্ষিপ্ত বুনো হাতিকে 'এক ধমকে' জঙ্গলে ফেরাল শিশু (ভাইরাল ভিডিও)

ঠিক যেন একটা সেলুলয়েডের দৃশ্য। রাস্তায় দাড়িয়ে থাকা গাড়ি ও মানুষের দিকে ধেয়ে আসছে এক বন্য হাতি। হিংস্র। ক্ষিপ্ত। আক্রমণের এ যেন ঠিক প্রাক মুহূর্ত। সকলেই ভাবছেন এবার বোধহয় আর বাড়ি ফেরা হল না। শেষ পর্যন্ত হাতির হানাতেই প্রাণ হারাতে হবে। কিন্তু তারপর?

বনদফতরের নিষেধাজ্ঞাকে অগ্রাহ্য করে জঙ্গলেও মাইক বাজিয়ে চলছে পিকনিক! বনদফতরের নিষেধাজ্ঞাকে অগ্রাহ্য করে জঙ্গলেও মাইক বাজিয়ে চলছে পিকনিক!

ডুয়ার্সের বিভিন্ন এলাকার পাশাপাশি জঙ্গলেও চলছে রমরমিয়ে পিকনিক। মাইক বাজিয়ে পিকনিকের পাশাপাশি ইতিউতি ছড়ানো হচ্ছে খাবারের প্লেট, গ্লাস, মদের বোতল, প্লাসটিক। পরিবেশ নষ্ট হওয়ায় জঙ্গল থেকে বেরিয়ে পড়ছে জীবজন্তুরা। নতুন বছরের শুরুতে ঠান্ডা উপভোগ করতে ডুয়ার্সের বিভিন্ন জায়গায় পিকনিক করতে যান বহু মানুষ। এপর্যন্ত ঠিক ছিল। কিন্তু বনদফতরের নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে জঙ্গলেও মাইক বাজিয়ে চলছে পিকনিক।

জঙ্গলে জামাইষষ্ঠী নিয়ে হাজির মাচান জঙ্গলে জামাইষষ্ঠী নিয়ে হাজির মাচান

জামাইষষ্ঠী বলতেই বাঙালি বুঝতো শাশুড়ি আদরে ১০ পদের বাঙালি খাবার দিয়ে জামাই আদর। সেই ট্রাডিশন থেকে বেরিয়ে এখন অনেকেই জামাইকে নিয়ে যান রেস্তোরাঁয়। শহরের বাঙালি রেস্তোরাঁয় এখন আয়োজন করা হয় জামাইষষ্ঠী স্পেশাল মেনুর। তবে, এবার বাঙালি খাবার না হলেও 'ফ্যামিলি ফুড' নিয়ে জঙ্গলে জামাইষষ্ঠীর আয়োজন করেছে শহরের সুপার স্পেশালিটি রেস্তোরাঁ মাচান।

জাল বেয়ে উঠেই ফের জঙ্গলে মিলিয়ে গেল চিতাবাঘ

ফের চাবাগানের জলাশয়ে পড়ে গেল একটি পূর্ণবয়স্ক চিতাবাঘ। প্রায় একঘণ্টার চেষ্টায় শিলিগুড়ির চা বাগানের জলাশয়ে পড়ে যাওয়া চিতাবাঘটিকে উদ্ধার করলেন বনকর্মীরা। মঙ্গলবার রাতে বাগডোগরার কাছে হাসখোয়া চা বাগানের জলে পড়ে যায় চিতাবাঘটি।

জু থেকে জঙ্গলে

বন্দিদশা থেকে মুক্তি। তিনটি হাতিকে কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানে পাঠানোর নির্দেশ দিল কেন্দ্রীয় জু অথরিটি। খোলামেলা পরিবেশেই এখন থেকে থাকতে চলেছে হাতি তিনটি। দীর্ঘদিন চিড়িয়াখানায় থাকার পর নতুন পরিবেশে মানিয়ে নেওয়ার জন্য তাদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দিয়েছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

হাতির উপদ্রবে বন্ধের মুখে স্কুল

প্রায়শই জঙ্গল থেকে গ্রামে ঢুকে পড়ে হাতির পাল। তাই উপায়ন্তর না দেখে গ্রাম খালি করে অন্যত্র চলে গিয়েছেন বাসিন্দারা। আর গ্রামের স্কুল? ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা কমতে কমতে এসে দাঁড়িয়েছে পঁচিশ। হাতির হানার ভয়ে ছেলেমেয়েকে স্কুলে পাঠাতেও ভয় পান অভিভাবকেরা।

হাতির উপদ্রবে বন্ধের মুখে স্কুল

প্রায়শই জঙ্গল থেকে গ্রামে ঢুকে পড়ে হাতির পাল। তাই উপায়ন্তর না দেখে গ্রাম খালি করে অন্যত্র চলে গিয়েছেন বাসিন্দারা। আর গ্রামের স্কুল? ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা কমতে কমতে এসে দাঁড়িয়েছে পঁচিশ। হাতির হানার ভয়ে ছেলেমেয়েকে স্কুলে পাঠাতেও ভয় পান অভিভাবকেরা।

কালচিনিতে উদ্ধার চিতাবাঘ

পূর্ণবয়স্ক চিতাবাঘ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল আলিপুরদুয়ারের কালচিনি ব্লক এলাকায়। গত কয়েকদিন ধরে এলাকার চাবাগানে উত্পাত চালাচ্ছিল চিতাবাঘটি।