জোট ছাড়াও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা

জোট ছাড়াও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা

দোরগোড়ায় বিধানসভা নির্বাচন। দিল্লিতে জোরদার জোট তত্পরতা। বামসঙ্গ চেয়ে দরবার প্রদেশ নেতৃত্বের। বল এখন সোনিয়া গান্ধীর কোর্টে। তবে শুধুই কংগ্রেস নয় রাজ্যের বাম শিবিরের নজরও এখন দশ জনপথেই। তবে শুধুই জোটের ওপর ভরসা করে দুহাজার ষোলোর শক্তিপরীক্ষায় নামতে নারাজ  বামেরা। প্ল্যান এ বাম-কংগ্রেস জোট হলেও ইতিমধ্যেই প্ল্যান বিও ছকে ফেলেছেন রাজ্য সিপিএমের শীর্ষনেতারা।  কীরকম সেই প্ল্যান বি? অ্যাকশন প্ল্যানের নিরিখে বাছাই করা কেন্দ্রগুলিকে ভাগ করা হয়েছে তিনটি পর্যায়ে। কলকাতা বিধানসভার এগারোটি কেন্দ্রকে ভাগ করা হয়েছে সন্ত্রাস এবং  সাংগঠনিক শক্তির ভিত্তিতে। তৃতীয় পর্যায়ে রাখা হয়েছে এমন কেন্দ্রগুলিকে যেখানে সন্ত্রাসের আশঙ্কার পাশাপাশিই দুর্বল বামেদের সাংগঠনিক শক্তিও। এবং সেই নিরিখেই ইতিমধ্যেই ঠিক হয়ে গেছে কে কে হবেন সেনাপতি। কে কে হচ্ছেন ভোট যুদ্ধে সেনাপতি।চলুন একনজরে দেখে নেওয়া যাক:

বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়! বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়!

রাজ্যে বাম-কংগ্রেস জোটের চেষ্টায় কোনও লাভ হবে না। ভোটের ফল বেরোলে রাজ্যে কোনও স্বীকৃত বিরোধী দলই থাকবে না। আজ এভাবেই বাম ও কংগ্রেস শিবিরকে উড়িয়ে দিলেন  মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। বিরোধী দলের নেতারা অবশ্য দাবি করছেন, জোট নিয়ে ভয় পেয়েছেন শাসক দলের নেতারা। তাই বার বার এধরনের আস্ফালন। তৃণমূলকে হারাতে কী কংগ্রেসের হাত  ধরবে সিপিএম?  ভোটের আগে এই জল্পনায় সরগরম রাজ্য রাজনীতি। বিরোধী শিবিরে  যখন জোট তত্‍পরতা তুঙ্গে, তখনই জোট নিয়ে বার বার কটাক্ষ শোনা গেছে শাসকদলের গলায়। দলের নেতামন্ত্রীরা তো বটেও, জোট নিয়ে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন খোদ তৃণমূলনেত্রীও।

আজ টি বোর্ডের সামনে দিনভর অবস্থান বিক্ষোভ দেখাবে বাম নেতৃত্ব আজ টি বোর্ডের সামনে দিনভর অবস্থান বিক্ষোভ দেখাবে বাম নেতৃত্ব

চা বাগানে লাগাতার শ্রমিক মৃত্যুকে এবার নির্বাচনী হাতিয়ার করতে চলেছে বামেরা। আজ টি বোর্ডের সামনে দিনভর অবস্থান বিক্ষোভ দেখাবে বাম নেতৃত্ব। বেলা বারোটা থেকে সন্ধে ছটা পর্যন্ত চলবে বিক্ষোভ। বিক্ষোভের যৌথ আয়োজনে কলকাতা জেলা বামফ্রন্ট, এগারোটি ট্রেড ইউনিয়ন, বারোই জুলাই কমিটি। টি প্ল্যানটেশন আইনের পরিবর্তন থেকে অধিগৃহীত চা বাগানের দুরবস্থা-সব নিয়েই সরব হবেন বিক্ষোভকারীরা। চা শ্রমিকদের আর্থিক সাহায্যেরও পরিকল্পনা রয়েছে বামেদের। পাশপাশি, উত্তরবঙ্গের এই ভয়ঙ্কর চেহারা দক্ষিণবঙ্গের মানুষদের কাছে তুলে ধরাও বামেদের উদ্দেশ্য। সেইজন্য সতেরোই জানুয়ারি সারা রাজ্য থেকে অর্থ জোগাড় করা হবে। 

ব্রিগেডে কোন নেতা কী বললেন, এক নজরে ব্রিগেডে কোন নেতা কী বললেন, এক নজরে

সাম্প্রদায়িকতা ইস্যুতে মোদী-মমতাকে একসঙ্গে বিঁধলেন সিপিএম নেতা বিমান বসু। তাঁর মন্তব্য, দাদাভাই-দিদিভাই একসঙ্গে মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরির চেষ্টা করছেন। এবার আর ভোট লুঠ করে জেতা যাবে না। ব্রিগেডের ম়ঞ্চ থেকে কড়া বার্তা সিপিএম নেত্রী বৃন্দা কারাটের। তাঁর চ্যালেঞ্জ, এবার তৃণমূল পরাজিত হবেই। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে তৃণমূল সরকারকে বিঁধলেন সিপিএম নেত্রী বৃন্দা কারাট। তাঁর মন্তব্য, পালাবদলের পর নারী নির্যাতনে রাজ্যের স্থান এক নম্বরে। শুধু বাম মনস্করাই নন,তৃণমূলের বিবেকবানদেরও দলে টানতে হবে। ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে বার্তা ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের। চিটফান্ড থেকে সাম্প্রদায়িকতা সব ইস্যুতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করলেন সিপিএম নেতা মহঃ সেলিম। তাঁর মন্তব্য, চিটফান্ডের টাকা লুঠ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর দিল্লিতে মোদীভাইয়ের দ্বারস্থ হচ্ছে মমতা।আদতে তৃণমূল-বিজেপি জয়েন্ট ভেঞ্চার চলছে। শক্তি প্রদর্শন করতে নয়। তৃণমূলের জহ্লাদ বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ জানাতেই আজকের ব্রিগেড সমাবেশ। ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন সিপিএম নেতা মহঃ সেলিম।