হেরে যাওয়ার পরেও বাম-কংগ্রেস জোট কি থাকছে?

হেরে যাওয়ার পরেও বাম-কংগ্রেস জোট কি থাকছে?

বিধানসভাতেও জোটবদ্ধ লড়াই জারি থাকবে। ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের বিরোধিতাই লক্ষ্য বাম-কংগ্রেসের। জানালেন আব্দুল মান্নান, সুজন চক্রবর্তীরা।

কেরলে সরকার গড়ার পথে বাম জোট কেরলে সরকার গড়ার পথে বাম জোট

পশ্চিমবঙ্গে গণনার ট্রেন্ড যখন শুরু থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে সুইং করছে, তখন কেরল কার্যত ক্লিন সুইপের পথে বামেরা। সেখানে ১৪০টি আসনের মধ্যে বর্তমানে ১৩৭টি আসনে গণনা চলছে। তার মধ্যে এই মুহূর্তে ৮৮টি আসনে এগিয়ে রয়েছে এলডিএফ। অন্যদিকে, ওমেন চান্ডির নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ পিছিয়ে রয়েছে অনেকটাই। তারা ৪৯টি আসনে এগিয়ে রয়েছে। বিজেপি এগিয়ে রয়েছে ২টি করে আসনে।

কেউ দিল বেশি, কেউ দিল কম,তবে সব এক্সিট পোলই বলল 'ক্ষমতায় মমতাই' কেউ দিল বেশি, কেউ দিল কম,তবে সব এক্সিট পোলই বলল 'ক্ষমতায় মমতাই'

দেশের ৫টি রাজ্যে নির্বাচন শেষ হতেই সামনে উঠে আসছে একের পর এক এক্সিট পোল। ইন্ডিয়া টুডে, টাইমস নাও-সি ভোটারের এক্সিট পোল যেখানে তৃণমূল কংগ্রেসকে ক্লিন সুইপ দিয়েছে, সেখানেই শাসকদল ও জোটরে মধ্যে জোর টক্কর দেখছে নেউজ নেশন। তাদের এক্সিট পোল অনুসারে যেকেউই এবার গড়তে পারে সরকার। তবে, অবশ্য সামান্য হলেও তৃণমূলকেই এগিয়ে রেখেছে তারাও। এক নজরে দেখে নিন সব এক্সিট পোলের হিসেব ---

বাম-কংগ্রেসের জোট, ফেভিকলের মজবুত জোড়, বললেন সূর্যকান্ত মিশ্র বাম-কংগ্রেসের জোট, ফেভিকলের মজবুত জোড়, বললেন সূর্যকান্ত মিশ্র

বাম-কংগ্রেসের জোট, ফেভিকলের মজবুত জোড়। পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডীপুরের জনসভায় বললেন সূর্যকান্ত মিশ্র। সিপিএম রাজ্য সম্পাদকের দাবি, এই জোট রাজ্যে এক স্থায়ী সরকার দেবে। প্রায় একমাস অতিক্রান্ত। ভোট এসে ঠেকেছে তার শেষ দফায়। জয়ের দাবি আগেই করেছেন। বিরোধী দলনেতা এবার নিশানা করলেন প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

মনের জোর বাড়ানো এখন বাঁয়ে হাত কি খেল! মনের জোর বাড়ানো এখন বাঁয়ে হাত কি খেল!

আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন আপনার মনের জোর বাড়াতে। কিন্তু সেটা চাইলেই কি আর এত সহজে করা যায়? তার জন্য চাই নির্দিষ্ট কিছু পরিকল্পনা এবং অভ্যাস। তাহলেই আপনি বাড়াতে পারবেন আপনার মনের জোর।

RSP অনড়, বাম- কংগ্রেসের কমপক্ষে দশটি আসনে বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের সম্ভাবনা থেকেই গেল RSP অনড়, বাম- কংগ্রেসের কমপক্ষে দশটি আসনে বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের সম্ভাবনা থেকেই গেল

বাম এবং কংগ্রেসের কমপক্ষে দশটি আসনে বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের সম্ভাবনা থেকেই গেল। আরএসপির অনড় মনোভাব, মুর্শিদাবাদে কংগ্রেসের আসন ছাড়তে না চাওয়া, সব মিলিয়ে কিছুটা হলেও ধাক্কা খেল জোট। সামান্য কিছু টানাপোড়েনের জেরে ২৯৪টি আসনেই জোট বেঁধে লড়তে পারছে না বাম এবং কংগ্রেস। দশেরও বেশি আসনে সম্ভবত বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াই হচ্ছেই। বুধবার এই নিয়ে আলাদাভাবে বৈঠকে বসে দু-পক্ষই।

আগের বার জেতা আরও দুটি আসন দাবি করল কংগ্রেস আগের বার জেতা আরও দুটি আসন দাবি করল কংগ্রেস

জোটে নতুন জট। এবার কাঁটা আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ি। আগের বার জেতা দুটি আসন দাবি করল কংগ্রেস। আগের ৭৫টির সঙ্গে আজ নতুন করে এই দুটি আসনে লড়ার কথা ঘোষণা করেছেন অধীর চৌধুরী।

কংগ্রেসকে আসন ছাড়তে রাজি শরিকরা, বল এবার সিপিএমের কোর্টে কংগ্রেসকে আসন ছাড়তে রাজি শরিকরা, বল এবার সিপিএমের কোর্টে

কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতা নিয়ে আরও একধাপ এগোল বামেরা। বেশ কয়েকটি আসন ছেড়ে দিতে রাজি হয়েছে বাম শরিকরা। বল এখন অবশ্য সিপিএমের কোর্টে। আসন সমঝোতা করতে হলে বড় শরিক হিসেবে নিজেদের কোটা থেকে বেশি আসন ছাড়তে হবে সিপিএমকেই।

কিছুক্ষণ পরেই বামেদের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা কিছুক্ষণ পরেই বামেদের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা

কংগ্রেসের জন্য কিছু আসন ছেড়ে এবং অমীমাংসিত কিছু আসন বাদ রেখে আজই প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে চলেছে বামেরা। কলকাতা সহ কিছু জেলায় এখনও জারি বাম কংগ্রেস টানাপোড়েন । তালিকায় বাদ  সেই আসনগুলিও। বিধানসভা নির্বাচনে বামেদের লড়াইয়ের মুখ সূর্যকার্ন্ত মিশ্রই । ভোটে লড়বেন অশোক ভট্টাচার্য, অসীম দাশগুপ্ত, কান্তি গাঙ্গুলিরা। ভোটে লড়বেন অনাদি সাহু, রবীন দেব। তবে অসুস্থতার কারণে লড়বেন না গৌতম দেব।

আজ রাজ্য কমিটির বৈঠকে বসছে আরএসপি আজ রাজ্য কমিটির বৈঠকে বসছে আরএসপি

বাম-কংগ্রেস জোটের আসন রফা নিয়ে আজ রাজ্য কমিটির বৈঠকে বসছে আরএসপি।  জোট নিয়ে সিপিএমের একতরফা সিদ্ধান্তের অভিযোগে  আগেই আপত্তি তুলেছে  আরএসপি। তাঁদের অভিযোগ, শরিক দলের সঙ্গে কোনওরকম আলোচনা না করেই জোট নিয়ে একতরফা সিদ্ধান্ত নিচ্ছে আলিমুদ্দিন। আজকের আলোচনায় গুরুত্ব পাবে মুর্শিদাবাদের  আসন বন্টন। গতবারের বিধানসভা নির্বাচনে  ২৩টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল আরএসপি। আরএসপি সূত্রের খবর, বাম-কংগ্রেস জোট হলে এবার তারা ৩টি আসন  ছাড়তে পারে। তিনের বেশি আসন কোনওভাবেই ছাড়তে রাজি নয় বামেদের এই শরিক দল। মুর্শিদাবাদে বেশ কয়েকটি জায়গায় আরএসপিরও সংগঠন যথেষ্ঠই মজবুত। আজকের  বৈঠকে  আসন বন্টনের বিষয়টিই সবথেকে বেশি গুরুত্ব পাবে বলে জানা গেছে। জোট ইস্যুতে আগামিকাল ফরোয়ার্ড ব্লকও বৈঠকে বসছে।

বাঁ হাতিদের নিয়ে ৫টি অজানা এবং মজাদার তথ্য বাঁ হাতিদের নিয়ে ৫টি অজানা এবং মজাদার তথ্য

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বাম আর ডান (কংগ্রেস) জোট হবে নাকি হবে না, এই দিকেই তাকিয়ে আছে রাজ্যবাসী। নির্বাচনে দুদল এক হয়ে লড়বে কিনা সময়ই বলবে। কিন্তু মানুষকে তো জীবনে ডান আর বাঁ দুটো হাত নিয়েই চলতে হয়। কিন্তু বাঁ হাতিদের সম্পর্কে আর কতটুকুই বা জানি আমরা। তাই আজ ''বামপন্ধী''-দের নিয়ে কয়েকটা অজানা তথ্য।কারণ, বাঁ হাতিরা আমাদের যে সবসময়ই একটু বাড়তি আকর্ষণ করেন।

কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের প্রস্তাব নিয়ে আজ বামফ্রন্টের বৈঠক কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের প্রস্তাব নিয়ে আজ বামফ্রন্টের বৈঠক

কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের প্রস্তাব নিয়ে আজ বামফ্রন্টের বৈঠক। কাল থেকে দুদিন আলোচনায় বসবে সিপিএম রাজ্য কমিটি। কেরল লবির চাপে জোট প্রস্তাব খারিজ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে প্ল্যান বি তৈরি রাখতে চাইছে আলিমুদ্দিন। কালকের কথা বেশি না ভেবে আজ বাঁচার রাস্তা কী হবে সেটাই আগে চিন্তা করা দরকার। আলিমুদ্দিনের জোটপন্থী নেতাদের ভাবনা এখন এই খাতেই বইছে। তবে, রয়ে গেছে অনেক যদি-কিন্তু।

কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না হলে অন্য পথ খোলা রেখেই এগোচ্ছে বামেরা কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না হলে অন্য পথ খোলা রেখেই এগোচ্ছে বামেরা

সরাসরি কংগ্রেসের সঙ্গে জোট নাকি তৃণমূল-বিজেপি বিরোধী ধর্ম নিরপেক্ষ মঞ্চ। দুই পথ খোলা রেখেই এগোচ্ছে বামেরা। দলের বড় অংশ চান জোট হোক  সরাসরি। অপর অংশের দাবি, বৃহত্তর মঞ্চ গড়লে কংগ্রেস ছাড়াও আরও অনেককে যুক্ত করা যাবে। চূড়ান্ত পথ ঠিক হবে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে।

কংগ্রেসের মাস্টার স্ট্রোক, বাম-কংগ্রেস অঘোষিত জোট কান্দিতে কংগ্রেসের মাস্টার স্ট্রোক, বাম-কংগ্রেস অঘোষিত জোট কান্দিতে

বিধানসভা ভোটে বাম-কংগ্রেস জোট এখনও জল্পনার স্তরে। এরই মাঝে কান্দিতে বাম-কংগ্রেস অঘোষিত জোট। তৃণমূলকে রুখতে কংগ্রেসের মাস্টার স্ট্রোক। আস্থা ভোটের আগে বাম সমর্থিত নির্দল প্রার্থীকে উপ-পুরপ্রধান ঘোষণা। বোর্ড দখলে থাকলে ওই কাউন্সিলরকে পুর প্রধান করারও আগাম ঘোষণা অধীর চৌধুরীর।

শীতে জমজমাট পাহাড়ের রাজনীতি, কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গে জোট করতে পারে মোর্চা শীতে জমজমাট পাহাড়ের রাজনীতি, কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গে জোট করতে পারে মোর্চা

জমে গেল পাহাড়ের রাজনীতি। পাহাড় সফরে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইঙ্গিত দেন, পাহাড়ের বাকি সব দলগুলিকে জড়ো করে মোর্চার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে পারে তৃণমূল। প্রার্থী হিসেবে বেছে নেওয়া হতে পারে একদা বিমল গুরুংয়ের কাছের কাউকে। আজ পাল্টা দিলেন বিমল গুরুং। বললেন, তৃণমূলের বিভাজনের রাজনীতির মোকাবিলায় কংগ্রেস বা বামেদের সঙ্গেও জোট করতে পারে মোর্চা। বস্তুত শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, এভাবে বিজেপিকেও বার্তা দিলেন মোর্চা সভাপতি। কারণ মোর্চা কংগ্রেস কিংবা বামেদের সঙ্গে জোট বাঁধলে পাহাড়ে ক্ষতি বিজেপিরই। একই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, জিটিএ আইন মানছে না রাজ্য সরকার নিজেই।