এসপি বিধায়কের গাড়ির ধাক্কায় মহিলার মৃত্যু এসপি বিধায়কের গাড়ির ধাক্কায় মহিলার মৃত্যু

সমাজবাদী পার্টির বিধায়কের গাড়ির ধাক্কায় মারা গেলেন ২৬ বছর বয়সী এক মহিলা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের আহমেদপুরের আলামবাড়ি এলাকায়। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, আহমেদপুরের আলামবাড়ি এলাকা থেকে বেরনোর সময় একটি বাইকে ধাক্কা মারে নিজামবাদের এসপি বিধায়কের গাড়ি। স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রের খবর, ঘটনাস্থলেই মারা যান বছর ২৬ ওই মহিলা। মহিলার নাম সোনি। ঘটনার জেরে গুরুতর জখম হয়েছেন আরও দুজন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদের ভর্তি করা হয় ঘটনাস্থলের কাছাকাছি একটি হাসপাতালে। আহতদের অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিস।  

‘অপরাধ’ মেনুতে গোমাংস,  জম্মু-কাশ্মীরে বিধানসভাতেই বিজেপি বিধায়কের হাতে প্রহৃত নির্দল বিধায়ক ‘অপরাধ’ মেনুতে গোমাংস, জম্মু-কাশ্মীরে বিধানসভাতেই বিজেপি বিধায়কের হাতে প্রহৃত নির্দল বিধায়ক

ফের বিতর্কে বিজেপি। বিষয় সেই গোমাংস। জম্মু-কাশ্মীর বিধানসভার ভিতর বেনজির দৃশ্য। নির্দল বিধায়ককে বেধড়ক পেটালেন বিজেপি বিধায়করা। বুধবার একটি পার্টির আয়োজন করেছিলেন নির্দল বিধায়ক ইঞ্জিনিয়ার রশিদ। খাদ্য তালিকায় ছিল গোমাংস। সেই কারণেই তাঁকে পেটানো হয় বলে অভিযোগ।  ইঞ্জিনিয়ার মার খাচ্ছেন দেখে ছুটে যান ন্যাশনাল কনফারেন্স ও কংগ্রেসের বিধায়করা। তাঁরা ইঞ্জিনিয়ারকে বিজেপি বিধায়কদের হাত থেকে উদ্ধার করেন। হিন্দু ভাবাবেগে আঘাত করেছেন ইঞ্জিনিয়ার, সে কারণেই এই ঘটনা বলে জানিয়েছে বিজেপি। ঘটনার পরেই ওয়াকআউট করে ন্যাশনাল কনফারেন্স এবং কংগ্রেস। 

সাঁইথিয়ার ভোটপ্রচারে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন শতাব্দী রায়

পাঁচ বছরে দেখা মেলেনি। ফের কেন এসেছেন ভোট চাইতে? সাঁইথিয়ায় ভোটপ্রচারে গিয়ে এমনই অস্বস্তিকর প্রশ্নের মুখে পড়তে হল বীরভূম লোকসভা আসনে তৃণমূল প্রার্থী শতাব্দী রায়কে। গ্রামবাসীদের বিক্ষোভের মুখে ফিরে যেতে হয় তৃণমূল প্রার্থীকে। অবশ্য বিক্ষোভের ঘটনা অস্বীকার করেছেন শতাব্দী রায়। পাঁচ বছর আগে ভোট প্রচারে এসেছিলেন তারকা প্রার্থী। সাঁইথিয়ার দেরিয়াপুরের মানুষকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি ভোটে জিতলে বদলে যাবে গ্রামের ছবি। সময় কেটে গিয়েছে। সামনে আরও একটা ভোট। ফের ভোটপ্রার্থী সাংসদ। কিন্তু গ্রামের ভাঙা রাস্তার তো উন্নতি হয়নি। কোথায় গেল প্রতিশ্রুতি? পাঁচবছর পর সাংসদ শতাব্দী রায়কে পেয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন গ্রামবাসীরা। প্রায় আধঘণ্টা তৃণমূল প্রার্থীর গাড়ি আটকে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। পরে স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের হস্তক্ষেপে উঠে যায় বিক্ষোভ।