শিল্পে চলবে না 'জঙ্গি' রাজনীতি, সাফ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

শিল্পে চলবে না 'জঙ্গি' রাজনীতি, সাফ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

শিল্প বন্ধ করে রাজনীতি নয়। সাফ বক্তব্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। বাঁকুড়ার বড়জোরায় শিল্পের উদ্বোধনে মুখ্যমন্ত্রীর কড়া বার্তা, ইউনিয়নের নামে যেন কারখানার গেটে তালা না পড়ে।  শ্রমিকদের হাতে ভদ্রেশ্বরের নর্থব্রুক জুটমিলে সিইও খুনের পর শিল্পমহলের তরফে মুখ্যমন্ত্রীকে কড়া বার্তা দেওয়া হয়। শ্রমিক আন্দোলনের বিরুদ্ধে কড়া হুঁশিয়ারিও দেন মুখ্যমন্ত্রী। অবস্থা যে বদলায়নি, তা বোঝা গেছে তারপরের বেশ কিছু ঘটনায়। ইসিএলের জেকে নগর কোলিয়ারি, কখনও শ্যাম সেল, কখনও বা বর্ধমানের সুনীতি পেপার মিল। জঙ্গি শ্রমিক আন্দোলনের আর তোলা আদায়ে রীতিমতো জেরবার হয়েছেন শিল্পপতিরা। শিল্পক্ষেত্রে রাজ্যের ভাবমূর্তি যে তলানিতে ঠেকছে, তা আঁচ করতে পেরে মুখ্যমন্ত্রী আরও একবার সরব হলেন জঙ্গি শ্রমিক আন্দোলনের বিরুদ্ধেই।    

উত্তরবঙ্গে বেড়েই চলেছে এনসেফেলাইটিসের প্রকোপ উত্তরবঙ্গে বেড়েই চলেছে এনসেফেলাইটিসের প্রকোপ

উত্তরবঙ্গজুড়ে বেড়েই চলেছে এনসেফ্যালাইটিসের প্রকোপ। এই রোগে মৃতের সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এঅবস্থায় উপযুক্ত পরকাঠামো না মেলায় শুক্রবার রাতে ধুপগুড়ি গ্রামীন হাসপাতালে বিক্ষোভ দেখান রোগীরা। এরপরই কার্যত বিরক্ত হয়ে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চান হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার মধুসূদন সাউ। তাঁর অভিযোগ, রোগীর তাঁর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন।চিকিতসার উপযুক্ত পরিকাঠামোই নেই। তাই দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চান ধূপগুড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের মেডিক্যাল সুপার মধুসূদন সাউ। শুক্রবার  রোগীর আত্মীয়দের বিক্ষোভের মুখে পড়ে এমনই জানান তিনি।  

স্কুল শিক্ষকদের পেনশন সমস্যা কাটাতে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী স্কুল শিক্ষকদের পেনশন সমস্যা কাটাতে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী

স্কুল শিক্ষক, পুরসভা বা পঞ্চায়েত কর্মীদের পেনশন সমস্যা কাটাতে এবারে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গের সাতজেলা নিয়ে পেনশন ডিরেক্টরেট তৈরি করছে সরকার। আগামী পয়লা অগাস্ট উত্তর কন্যায় এই ডিরেক্টরেট চালু করা হবে। উদ্বোধন করবেন উত্তরঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী গৌতম দেব। পরিকাঠামো তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ওয়েবেলকে। সময় মতো পেনশন পাওয়া স্কুল শিক্ষকদের দীর্ঘদিনের সমস্যা। শুধু শিক্ষকরাই নন অনেকেক্ষেত্রেই পঞ্চায়েত বা পুরসভা কর্মীদেরও এই সমস্যা ভোগ করতে হয়। সমস্যা মেটাতে এবারে তাই পেনশন ডিরেক্টরেটকে দুইভাগে ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। উত্তরবঙ্গের সাত জেলার জন্য উত্তরকন্যায় তৈরি হচ্ছে নতুন ডিরেক্টরেট।