মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণেও পাল্টা চাপের খেলা মমতার

অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে কেন্দ্রে কংগ্রেসের সঙ্গে তৃণমূলের সঙ্ঘাত তুঙ্গে। এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেসকে পাল্টা চাপে রাখতে রাজ্যের দুই দলত্যাগী কংগ্রেস নেতাকে মন্ত্রিসভায় নিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পাচ্ছেন কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী ও হুমায়ুন কবীর। পূর্ণমন্ত্রীই করা হচ্ছে কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীকে। কাল শপথ নেবেন মোট ন`জন মন্ত্রী। স্বাস্থ্য দফতরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হচ্ছেন হচ্ছেন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। এছাড়াও পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন মদন মিত্র, অরূপ বিশ্বাস, সুব্রত সাহা। দেড়বছরের মাথায় মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ করছেন মুখ্যমন্ত্রী। বুধবার শপথ নেবেন নতুন মন্ত্রীরা।  

পার্থর সাফাইয়ের পরও বাসভাড়া বিভ্রান্তি জট কাটল না

রাজ্যের মন্ত্রিগোষ্ঠীর বৈঠকের পরও নতুন বাসভাড়া নিয়ে বিভ্রান্তির জট কাটল না। বৈঠক শেষে শিল্পমন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রতি স্টেজে এক টাকা করেই ভাড়া বাড়বে। কিন্ত নতুন স্টেজ বিন্যাসের ফলে ভাড়াবৃদ্ধিতে যে অসামঞ্জস্য তৈরি হয়েছে, তা কী করে কাটবে সেব্যাপারে স্পষ্ট ব্যাখ্যা মেলেনি মন্ত্রীর কথায়। যদিও বাস মালিকরা জানিয়ে দিয়েছেন, নতুন করে স্টেজের পূনর্বিন্যাস হলে তা তাঁরা মানবেন না। সরকার ঘোষিত বর্ধিত বাসভাড়া চালু হওয়ার পর থেকেই চলছে বিভ্রান্তি। সরকার প্রতি স্টেজে একটাকা ভাড়াবৃদ্ধির কথা ঘোষণা করলেও বাস্তবে অনেকটাই বেশি ভাড়া দিতে হচ্ছে ।