এখনও অধরা মুন্না

এখনও অধরা কসবায় যুবক খুনে মূল অভিযুক্ত মুন্না ও তার সঙ্গীরা। মুন্নার সিন্ডিকেটরাজ ও তোলাবাজির প্রতিবাদ করে খুন হন কসবার যুবক মনোজ সাউ। খুনের পর চব্বিশ ঘণ্টা কেটে গেলেও মুন্নার হদিশই করতে পারল না পুলিস। অভিযোগ, শাসকদলের ঘনিষ্ঠ হওয়াতেই মুন্নাকে গ্রেফতারের জন্য সক্রিয় হচ্ছে না পুলিস।

ভেঙে পড়া বাড়ি নিয়ে গার্ডেনরিচে ফের তরজায় মুন্না-মোক্তার

ফের গার্ডেনরিচে মুন্না-মোক্তারের লড়াই। এ বার একটি ভেঙে পড়া বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ গার্ডেনরিচে পুলিস খুনে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা মুন্নার বিরুদ্ধে। 

মুন্নাকে গ্রেফতার কি মুখরক্ষার স্বার্থেই?

মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্নাকে গ্রেফতার করল সিআইডি। কিন্তু ঘটনা পরম্পরা বলছে, শাসকদলের তরফে মুন্নাকে বারবারই আড়াল করার চেষ্টা হয়েছে। তাহলে শেষপর্যন্ত কেন তাকে গ্রেফতার করা হল? আরাবুল ইসলামের মতো এক্ষেত্রেও কি রাজ্যপালের বক্তব্য এবং সমালোচনার ঝড়ে মুখরক্ষার চেষ্টা? আরাবুল ইসলামের পর মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না। গত ১২ ফেব্রুয়ারি পুলিস খুনের দিন মুন্নার ভূমিকা স্পষ্ট হয়েছিল ছবিতে।  

অবশেষে বিহার থেকে গ্রেফতার মুন্না

অবশেষে গ্রেফতার হলেন গার্ডেনরিচকাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না। বিহারের রোহতাস জেলার ডেহরি অন শোন থেকে তাঁকে গ্রেফতার করেছে বিহার পুলিস। একটি পিসিও থেকে ফোন করার সময় তাঁকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানা গেছে সিআইডি সূত্রে। সিআইডি-র দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই মুন্নাকে গ্রেফতার করা হয়। বিহারের স্থানীয় আদালতে পেশ করার পর  ট্রানজিট রিমান্ডে মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্নাকে কলকাতায় আনা হবে। কবে বা কখন তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে তা নিয়ে কোনও স্পষ্ট তথ্য মেলেনি।

গার্ডেনরিচ কাণ্ডের সিবিআই তদন্ত চাইলেন বিরোধী দলনেতা

গার্ডেনরিচ কাণ্ডের সিবিআই তদন্ত চাইলেন বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র। তাঁর মতে, মুখ্যমন্ত্রী ও এক মন্ত্রী জড়িত থাকায় সিআিডি-র পক্ষে নিরপেক্ষ ভাবে তদন্ত করা সম্ভব নয়। আজই গুড়িয়া কাণ্ডের তদন্তভার সিআইডি-র হাত থেকে সিবিআই-কে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট।

পুরমন্ত্রীর বদান্যতায় গার্ডেনরিচে রমরমা গুণ্ডারাজ

গার্ডেনরিচে পুলিস খুনের ঘটনায় উঠে আসছে একের পর এক তৃণমূল নেতার নাম। তাঁরা প্রত্যেকেই পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের ঘনিষ্ঠ ও স্নেহধন্য বলেই অভিযোগ। মুন্না, সানু,অনিল, টাব্বু সহ এলাকার ত্রাস সবার মাথাতেই যে ববি হাকিমের স্নেহের হাত হয়েছে এখন প্রকাশিত সেই খবরও। ফলে দলের তরফ থেকে বিষয়টিকে আর কোনও ভাবেই চেপে রাখা যাচ্ছে না।

সহকর্মীদের মনোবল ফেরাতে মাঠে নামলেন নগরপাল

কলকাতা পুলিসের দায়িত্ব নিয়েই বাহিনীর ক্ষোভ প্রশমন ও মনোবল ফেরাতে উদ্যোগী হলেন সুরজিত কর পুরকায়স্থ। আজ আলিপুর বডিগার্ড লাইন ও গার্ডেনরিচ থানায় গিয়ে কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। অন্যদিকে, গার্ডেনরিচ কাণ্ডে এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার সমস্ত অভিযুক্তকেই নিজের হেফাজতে নিয়েছে সিআইডি। যদিও এখনও অধরা অন্যতম প্রধান অভিযুক্ত মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না।

এডিজি বদলির প্রশ্নে সুর নরম রাজ্যের

এডিজি আইনশৃঙ্খলাকে বদলির প্রশ্নে সুর নরম করল রাজ্য সরকার। আজ মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত মাথা পেতে নেবেন তাঁরা। রাজ্যের তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের ঠিক আগে এডিজি আইনশৃঙ্খলাকে নগরপালের পদে বদলি করে রাজ্য সরকার। বিধি মেনে এবিষয়ে নির্বাচন কমিশনের অনুমতি নেওয়া হয়নি। ফলে কমিশনের কাছে বিধিভঙ্গের অভিযোগ আনে বামেরা। একই দাবি জানিয়ে নয়াদিল্লিতে কমিশনের দ্বারস্থ হয় কংগ্রেসও। কমিশনের সদর দফতরে চিঠি দিচ্চেন এআইসিসি-র সাধারণ সম্পাদক শাকিল আহমেদ।

দুষ্কৃতির খোঁজে সিআইডির তল্লাসি গার্ডেনরিচে

দুষ্কৃতীর গুলিতে কলকাতা পুলিসের স্পেশাল ব্রাঞ্চের এস আই তাপস চৌধুরীর নিহত হওয়ার ঘটনার তদন্তে আজ ফের গার্ডেনরিচে গেল সিআইডি। সিআইডির স্পেশাল আইজি বিনীত গোয়েলের নেতৃত্বে আট জন অফিসারের একটি দল আজ দুপুরে ভবানী ভবন থেকে গার্ডেনরিচ থানায় পৌঁছন। সেখান থেকে কলকাতা পুলিসের অফিসারদের সঙ্গে নিয়ে তাঁরা যান হরিমোহন ঘোষ কলেজের সামনে।

অভিযুক্তকে আড়াল করা মন্ত্রীর কাজের মধ্যে পড়ে না: রাজ্যপাল

"অভিযুক্তকে আড়াল করা মন্ত্রীর কাজের মধ্যে পড়ে না।" গার্ডেনরিচ কাণ্ডে পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করে এ কথাই বললেন রাজ্যপাল এম কে নারায়ণন। আজ নিহত এসআই তাপস চৌধুরীর বাড়িতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে রাজ্যপাল বলেন, "এফ আইআরএ আরও নাম থাকলে তদন্তকারী দলের হেফাহাজতেই থাকা উচিত অভিযুক্তের। ফিরহাদ হাকিম প্রসঙ্গে বলি, অভিযুক্তকে আড়াল করা তাঁর কাজের মধ্যে পড়ে না, অন্তত আমি সেভাবেই দেখি।"

বেহালা কাণ্ডে অভিযুক্তদের নাগাল পেল পুলিস, আটক ৪

অবশেষে কিনারা করা গেল নাটকীয় বেহালা হত্যাকান্ডের। মূল অভিযুক্ত সহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিস। ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মুন্না ঢালি। মুন্না দীপক বাবুর কেবল অফিসের কর্মী ছিল বলে জানা গিয়েছে। ডাকাতির উদ্দেশ্যে হামলা করা হয় বলে মনে করা হচ্ছে। আমতলা থেকে অভিযুক্ত মুন্নাকে গ্রেরফতার করা হয়।