লোকসংস্কৃতি, পর্যটক, মেলায় জমজমাট ডুয়ার্স উত্‍সব

লোকসংস্কৃতি, পর্যটক, মেলায় জমজমাট ডুয়ার্স উত্‍সব

আলিপুরদুয়ারের সলসলাবাড়িতে চলছে ডুয়ার্স উত্সব। ডুয়ার্সের জনবৈচিত্র, জৈববৈচিত্র ও লোকসংস্কৃতির কিছু টুকরো ছবি উঠে এসেছে এই মেলায়। ডুয়ার্স উত্সব শুরু হয়েছে ৪ জানুয়ারি থেকে। চলবে ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত।

দার্জিলিঙে সভাস্থলেই গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে ক্ষোভের মুখে মুখ্যমন্ত্রী

দার্জিলিঙে উত্তরবঙ্গ উৎসবের সূচনায় শুরুতেই ছন্দপতন। মুখ্যমন্ত্রীর ভাষণের মাঝে তাঁর সামনেই গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে পোস্টার নিয়ে বিক্ষোভ জানাতে  থাকেন উপস্থিত মোর্চার কর্মী সমর্থকরা। এর পরেই উত্তেজিত মুখ্যমন্ত্রী মঞ্চ থেকেই কার্যত ধমকের সুরে মোর্চা সমর্থকদের জানালেন, "এটা রাজনৈতিক দাবি জানানোর জায়গা নয়, সরকারি মঞ্চ। আপনাদের দাবি আপনাদের দলীয় সভায় জানাবেন।" মঞ্চে তখন উপস্থিত গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রধান বিমল গুরুং।

পাহাড় সংঘাত, বিজনবাড়ি সেতু উদ্বোধনে ব্রাত্য মুখ্যমন্ত্রী

গোর্খাল্যান্ডের দাবির তোলার পর নতুন করে রাজ্যের সঙ্গে সংঘাতের পথে মোর্চা। মুখ্যমন্ত্রীকে বাদ দিয়েই বিজনবাড়িতে রঙ্গিলা নদীর ওপর নতুন সেতু উদ্বোধনের সিদ্ধান্ত নিল জিটিএ। আজ সকাল এগারোটায় সেতুর উদ্বোধন করবেন জিটিএর চিফ এক্সিকিউটিভ বিমল গুরুং। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর কর্মসূচিতে এই সেতু উদ্বোধনের বিষয়টি ছিল।

মুখ্যমন্ত্রী পাহাড়বাসীর আবেগকে আঘাত করেছেন: বিমল গুরুং

"দার্জিলিঙকে এই রাজ্যের অঙ্গ বলায় পাহাড়বাসীর আবেগ আহত হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্য করা উচিত হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী যখনই এখানে আসেন আমাদের সামান্য দুঃখ দিয়ে যান।" উত্তরবঙ্গ উৎসবের অনুষ্ঠান মঞ্চে বিক্ষোভ প্রর্শনকারীদের কার্যত সমর্থন করে এই প্রতিক্রিয়াই জানালেন জিটিএ প্রধান বিমল গুরুং। তিনি আরও অভিযোগ করেন জিটিএকে অন্ধকারে রেখেই সরকারি সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। এই প্রসঙ্গে তিনি সরাসরি ক্ষোভ প্রকাশ করেন জিটিএ-র প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি জেলাশাসক সৌমিত্র মোহনের বিরুদ্ধে। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী গৌতম দেব তাঁকে এ দিনের অনুষ্ঠানে আসতে অনুরোধ করেন।

উৎসব করব না তো কি শ্রাদ্ধ করব?: মুখ্যমন্ত্রী

উত্তরবঙ্গ উৎসবে আবার অসহিষ্ণু মন্তব্য করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উৎসব সূচনার ভাষণে নাম না করে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর উদ্দেশে তিনি বলেন রাজ্যে উৎসব করব না তো কি ভাগাড় করব? আজ থেকে শুরু হল উত্তরবঙ্গ উৎসব। রাজ্যে আর্থিক সঙ্কটের মধ্যে উৎসবের আধিক্য নিয়ে মুখ খুলেছেন অনেকেই। এ প্রসঙ্গে সমালোচনায় সরব বামেরাও। সেই সমালোচক কুলের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রীর বিষোদ্গার, "উৎসব করব না তো কি শ্রাদ্ধ করব?... শকুনের ভাগাড় করব?"